ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে সেমিনারে বক্তারা

প্রতিবন্ধী কর্মীরা কর্মক্ষেত্রে যোগ্যতার পরিচয় দিচ্ছেন

‘প্রমোশন অব ডিজঅ্যাবিলিটি ইনক্লুশান অ্যাট দ্য ওয়ার্কপ্লেস’ শীর্ষক সেমিনারে বক্তব্য দিচ্ছে চিটাগং চেম্বার প্রেসিডেন্ট মাহবুবুল আলম
‘প্রমোশন অব ডিজঅ্যাবিলিটি ইনক্লুশান অ্যাট দ্য ওয়ার্কপ্লেস’ শীর্ষক সেমিনারে বক্তব্য দিচ্ছে চিটাগং চেম্বার প্রেসিডেন্ট মাহবুবুল আলম

দি চিটাগং চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি, বাংলাদেশ এমপ্লয়ার্স ফেডারেশন (বিইএফ), ইপসা ও বাংলাদেশ বিজনেস অ্যান্ড ডিজঅ্যাবিলিটি নেটওয়ার্কের (বিবিডিএন) যৌথ আয়োজনে এবং এক্সেস বাংলাদেশ ফাউন্ডেশন ও ডিজাবিলিটি রাইটস ফান্ড’র সহযোগিতায় ‘প্রমোশন অব ডিজঅ্যাবিলিটি ইনক্লুশান অ্যাট দ্য ওয়ার্কপ্লেস’ শীর্ষক সেমিনার শনিবার সকালে ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারস্থ বঙ্গবন্ধু কনফারেন্স হলে অনুষ্ঠিত হয়।
চিটাগং চেম্বার প্রেসিডেন্ট মাহবুবুল আলমের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ এমপ্লয়ার্স ফেডারেশনের সদ্যবিদায়ী সভাপতি ও এ কে খান অ্যান্ড কোম্পানির ম্যানেজিং ডাইরেক্টর সালাহ্‌উদ্দীন কাসেম খান। প্রতিবন্ধীদের নিয়ে বিভিন্ন কার্যক্রম সম্পর্কে তথ্যচিত্র উপস্থাপন করেন ইপসা’র প্রোগ্রাম ম্যানেজার ভাস্কর ভট্টাচার্য্য, এক্সেস বাংলাদেশ ফাউন্ডেশন’র এক্সিকিউটিভ ডাইরেক্টর আলবার্ট মোল্লা, বিবিডিএন’র এক্সিকিউটিভ কমিটির কো-চেয়ার মুর্তজা আর খান, উর্মি গ্রুপ’র ডাইরেক্টর ফয়েজ রহমান এবং আইএলও বি-সেপ প্রজেক্ট’র চিফ টেকনিক্যাল অ্যাডভাইজর কিশোর কুমার সিং।
অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- চিটাগং চেম্বার সহসভাপতি সৈয়দ জামাল আহমেদ, পরিচালক মো. অহীদ সিরাজ চৌধুরী (স্বপন), অঞ্জন শেখর দাশ ও মো. জাহেদুল হক, সদ্যবিদায়ী পরিচালক মাহফুজুল হক শাহ, ইপসা’র এক্সিকিউটিভ ডাইরেক্টর আরিফুর রহমান, সিসিসি’র কাউন্সিলর গিয়াস উদ্দিন ও আঞ্জুমান আরা বেগম, লায়ন দিদারুল আলম, ম্যাফ সুজ লিমিটেডের এক্সিকিউটিভ ডাইরেক্টর জসিম আহমেদ, লুব-রেফ’র পরিচালক সালাউদ্দিন ইউসুফ, সিডিসি’র লুৎফুন্নেসা রূপসা ও গণসাক্ষরতা অভিযান’র ডিপিএম মোশাররফ হোসেন। সেমিনারে চিটাগং চেম্বার পরিচালক কামাল মোস্তফা চৌধুরী, মোহাম্মদ হাবিবুল হক, ছৈয়দ ছগীর আহমদ ও মো. আবদুল মান্নান সোহেল, প্রাক্তন সিনিয়র সহসভাপতি এম এ ছালাম ও সদ্যবিদায়ী পরিচালক মো. আরিফ ইফতেখার এবং বিভিন্ন সেক্টরের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
প্রধান অতিথি সালাহ্‌উদ্দীন কাসেম খান বলেন, ‘বাংলাদেশের সংবিধানে সকল নাগরিকের সমান অধিকারের কথা বলা হয়েছে। প্রতিবন্ধীরা স্বাভাবিক মানুষের মতোই প্রতিভাসম্পন্ন। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে নিয়োজিত প্রতিবন্ধীরা কর্মদক্ষতা, নিরাপত্তা, আনুগত্য এবং প্রতিষ্ঠানের ইমেজ বৃদ্ধিতে তুলনামূলক অধিক যোগ্যতার পরিচয় দিচ্ছেন। তাই সকল প্রতিষ্ঠানে প্রতিবন্ধীদের কাজের সুযোগ সৃষ্টি করে দিতে হবে।’
তিনি দেশের সকল সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে মোট জনশক্তির ১ শতাংশ প্রতিবন্ধীদের মধ্য থেকে নিয়োগদান এবং চিটাগং চেম্বারে প্রতিবন্ধীদের কল্যাণে কাজ করার লক্ষ্যে একটি সাব-কমিটি গঠনের প্রস্তাব করেন। চট্টগ্রামকে একটি প্রতিবন্ধীবান্ধব নগরী হিসেবে গড়ে তোলারও আহ্বান জানান তিনি।
চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, ‘প্রতিবন্ধীদের প্রতি আমাদের দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন করা প্রয়োজন। উন্নত বিশ্বে প্রতিবন্ধীদের জন্য সব জায়গায় বিশেষ ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হয়। আমাদের দেশের প্রতিবন্ধীরা কাজের ক্ষেত্রে অত্যন্ত নিষ্ঠাবান, সৎ এবং কঠিন পরিশ্রমী। প্রতিবন্ধীদের মেধাকে যথাযথ মূল্যায়ন করতে হবে। সরকার ২০১৩ সালে প্রতিবন্ধী সুরক্ষা আইন প্রণয়ন করেন, যা অত্যন্ত সময়োপযোগী।’
তিনি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে প্রতিবন্ধীদের কাজ করার ক্ষেত্রে বিদ্যমান প্রতিবন্ধকতা দূর করা এবং যেসব প্রতিষ্ঠানে প্রতিবন্ধীদের নিয়োগ দেয়া হবে, তাদের মাসিক বেতন থেকে কর অব্যাহতি প্রদানে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান। প্রতিবন্ধীদের উদ্যোক্তা হিসেবেও গড়ে তোলার অনুরোধ জানান চেম্বার সভাপতি।
চেম্বার সহসভাপতি সৈয়দ জামাল আহমেদ সরকারি চাকরিতে যৌক্তিকহারে প্রতিবন্ধীদের নিয়োগ প্রদানের আহ্বান জানান। এছাড়া ব্যবসায়ী সমাজ, করপোরেট হাউস এবং বিভিন্ন শিল্প কারখানায় অধিকহারে প্রতিবন্ধীদের নিয়োগদানের অনুরোধ জানান তিনি।
উল্লেখ্য, সেমিনারে উপস্থিত চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রিধারী ৫জন প্রতিবন্ধীকে তাৎক্ষণিকভাবে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে নিয়োগের ঘোষণা প্রদান করা হয়। অবশিষ্টদের জীবন বৃত্তান্ত চিটাগং চেম্বারে জমাদানের অনুরোধ জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তি