প্রকল্পের ‘কোর ক্যাচার’ স্থাপনের কাজ শুরু

বিজ্ঞপ্তি

দেশের প্রথম পারমাণবিক বিদ্যুৎ স’াপনা- রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের ১ নম্বর ইউনিটে গতকাল সকালে আনুষ্ঠানিকভাবে ‘কোর ক্যাচার’ বা ‘মেল্ট ট্র্যাপ’ স’াপনের কাজ শুরু হয়েছে। রিয়্যাক্টরের তলদেশে স’াপিত এই ডিভাইসটি আধুনিক পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের নিষ্ক্রিয় নিরাপত্তা ব্যবস’ায় এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ।
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক মন্ত্রী স’পতি ইয়াফেস ওসমান, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ড. মোহাম্মদ শওকত আকবর এবং রূপপুর প্রকল্পের জেনারেল কন্ট্রাক্টর এটমস্ত্রয় এক্সপোর্ট (এএসই) এর সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট, ওভারসীজ প্রজেক্টস- আলেস্কান্দার খাজিনসহ বিভিন্ন উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা অনুষ্ঠানে উপসি’ত ছিলেন।

আলেস্কান্দার খাজিন বলেন, “রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের নিরাপত্তায় এটি একটি অনন্য ব্যবস’া এবং প্রায় ২০০ টন ওজনের এমন একটি বড় আকারের ডিভাইস আমরা প্রথমবারের মতো প্রকল্পের ১ নম্বর ইউনিটের রিয়্যাক্টর ভবনে স’াপন করছি। আগামী ৬ মাসের মধ্যে এটি স’াপনের কাজ সম্পন্ন হবে।”
তিনি আরো জানান যে, ইউনিট-১ এর নির্মাণকাজ নির্ধারিত সিডিউল অনুযায়ী এগিয়ে চলছে। বর্তমানে প্রকল্পটিতে প্রায় ৪ হাজার লোক কর্মরত রয়েছেন এবং প্রতিদিন ৫ হাজার টনের অধিক সিমেন্ট নির্মাণ কাজে ব্যবহৃত হচ্ছে।

কোর ক্যাচার সর্বপ্রথম স’াপিত হয় রুশ নকশায় নির্মিত চীনের তিয়ানওয়ান পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পে। কোর ক্যাচার আধুনিক পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের নিষ্ক্রিয় নিরাপত্তা ব্যবস’ার একটি অংশ। রূপপুরে স’াপিত হবে আধুনিক ৩+ প্রজন্মের পারমাণবিক রিয়্যাক্টর ভিভিইআর ১২০০। রিয়্যাক্টরটিতে রয়েছে সক্রিয় ও নিষ্ক্রিয় নিরাপত্তা ব্যবস’ার অনন্য সমন্বয়, যার ফলে এটি যেকোন অভ্যন্তরিণ ও বাহ্যিক বিপর্যয় থেকে সর্বোচ্চ সুরক্ষিত।
রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে প্রতিটি ১২০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতাসম্পন্ন দুটি ভিভিইআর ১২০০ রিয়্যাক্টর স’াপন করা হবে। ২০১৫ সালের ২৫ ডিসেম্বর স্বাক্ষরিত চুক্তির অধীনে রসাটমের প্রকৌশল শাখা- এএসই প্রকল্পের জেনারেল কন্ট্রাক্টর হিসেবে দায়িত্ব পালন করছে। রূপপুর প্রকল্প বাস্তবায়নের প্রতিটি ধাপ কঠোরভাবে মনিটরিং করছে আন্তর্জাতিক আণবিক শক্তি সংস’া (আইএইএ) এবং বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (বায়েরা)।
২০১৭ সালের ৩০ নভেম্বর প্রথম কংক্রিট ঢালাইয়ের মাধ্যমে রূপপুর প্রকল্পের ১ নম্বর ইউনিটের মূল পর্বের নির্মাণকাজ শুরু হয়। চলতি বছরের ১৪ জুলাই ২ নম্বর ইউনিটেরও প্রথম কংক্রিট ঢালাই করা হয়।