পেঁয়াজের বাজার পুরনো অজুহাতে নতুন করে অসি’রতা

নিজস্ব প্রতিবেদক
31_Kitchen-market_050517_00

কিছুদিন সি’তিশীল থাকার পর আবার অসি’র হয়ে উঠেছে পেঁয়াজের বাজার। এক সপ্তাহের ব্যবধানে খাতুনগঞ্জ পাইকারি বাজারে কেজি প্রতি পেঁয়াজের দাম বেড়েছে কমপক্ষে ১৪ টাকা। কয়েক দিনের ব্যবধানে এ দাম বাড়ার পেছনে ব্যবসায়ীরা সামনে দাঁড় করাচ্ছেন সেই পুরনো অজুহাতকেই। ভারতের ব্যাপক অঞ্চলে বন্যা, আমদানি কম, দেশেও অতি বৃষ্টি-বন্যার কারণে পেঁয়াজের ফলন ভাল না হওয়া; এসবই হল দাম বাড়ার পেছনে ব্যবসায়ীদের অজুহাত। এমনিতে চাল, ডাল, তেল, সবুজ শাক-সবজি সব কিছুরই দাম আগে থেকে বাড়তি, তার উপর পেঁয়াজেরও দাম নতুন করে বৃদ্ধি পাওয়ায় সাধারণ মানুষের হতাশা বাড়ছে।
গত সপ্তাহের শুরুর দু’দিন মানে শনি ও রোববার খাতুনগঞ্জের পাইকারি বাজারে দেশি ও ভারতীয় পেঁয়াজের দাম ছিল কেজিপ্রতি ৩২ থেকে ৩৪ টাকা। বাজারে তখন একধরনের কম দামী পাকিস্তানি ও মিশরি পেঁয়াজে সয়লাব ছিল বলে কোন কোন ক্ষেত্রে দেশি ও ভারতীয় পেঁয়াজের দাম আরও নিচে নেমে এসেছিল। কিন’ সোমবার থেকে হঠাৎ বাজারের চেহারা পাল্টাতে শুরু করে। ত্রিশের ঘর থেকে ধীরে ধীরে দামের অঙ্কটা বাড়তে বাড়তে চল্লিশের ঘরে পৌঁছে যায়। গতকাল পর্যন্ত এ দাম ছিল ৪৫ টাকা। খোলা বাজারে তা পঞ্চাশের ঘর পার হয়ে যায়।
খাতুনগঞ্জের হামিদুল্লাহ মিয়া বাজারের পেঁয়াজের আড়তদার প্রতিষ্ঠান গাপাল বাণিজ্য ভাণ্ডারের কর্ণধার চন্দন কুমার পোদ্দার সুপ্রভাতকে বলেন, আমাদের পেঁয়াজের বাজার তো পুরোটা নির্ভর করে ভারতের বাজারের উপর। ওখানকার বাজারের দাম বাড়া কমার সাথে আমাদের বাজারও পরিবর্তন হয়। ভারতীয় পেঁয়াজ উৎপাদনের সবচেয়ে বড় জায়গা উত্তর প্রদেশ। কিছুদিন আগে ওখানে বড় ধরনের বন্যায় পেঁয়াজের ফলনে বড় একটা ধাক্কা দেয়। ফলে স’ানীয় বাজারে হু হু করে পেঁয়াজের দাম বেড়ে যায়। যার প্রভাব পড়েছে এখানকার বাজারে। আর ভারতীয় পেঁয়াজের দাম বাড়লে দেশি পেঁয়াজের দামও বেড়ে যায়।
আমদানিকারক ও পাইকারি বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান গ্রামীণ বাণিজ্যালয়ের ব্যবস’াপক মো. রাজু সুপ্রভাতকে জানান, ইন্ডিয়ার বাজারে দাম বেড়ে যাওয়ায় আমরা আমদানিকারকরা কিছুটা আমদানি কম করছি। এর কিছুটা প্রভাব দেশের বাজারেও পড়েছে। তবে এটা সাময়িক, অল্পদিনের মধ্যেই আবার স্বাভাবিক হয়ে যাবে।