‘পিআইবির প্রথম শাখা হবে চট্টগ্রামে’

Untitled-1

ঢাকার বাইরে বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউটের (পিআইবি) প্রথম শাখা চট্টগ্রামে হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন পিআইবি’র মহাপরিচালক মো. শাহ আলমগীর।
গতকাল বুধবার চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব মিলনায়তেন পিআইবি আয়োজিত তিন দিনব্যাপী অনুসন্ধানমূলক রিপোর্টিং প্রশিক্ষণের সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ ঘোষণা দেন।
মহাপরিচালক মো. শাহ আলমগীর বলেন, পিআইবির প্রথম শাখা হবে চট্টগ্রামে। আগামী বছরের মধ্যে যাতে এটা রূপ পায় সে লক্ষ্যে কাজ করছি।
সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পিআইবি মহাপরিচালক মো. শাহ আলমগীর বলেন, পিআইবি প্রতিষ্ঠার পর ৪০ বছর হলো এখনো এর একটা আইন নেই। আইন না থাকায় আমাদের অনেক সমস্যা হচ্ছে। আইন প্রণয়নের লক্ষ্যে কাজ চলছে। আপনারা জেনে আনন্দিত হবেন আইনে পিআইবি প্রয়োজনে ঢাকার বাইরে শাখা করতে পারবে এমন বিধান আছে। আগামী শীতকালীন অধিবেশনেই আশা করি সংসদে এই আইন পাশ হবে। ঢাকার বাইরে প্রথম শাখা হবে চট্টগ্রাম। এটা আমার দীর্ঘদিনের ইচ্ছা। কত লোকবল লাগবে, অন্যান্য কি প্রয়োজন সব এবারের বাজেটে প্রস্তাব করব। আগামী বছরের মধ্যে যাতে রূপ পায় সে লক্ষ্যে কাজ করছি। পিআইবি’র চট্টগ্রাম শাখায় যাতে নিয়মিত প্রশিক্ষণ আয়োজন করা যায় সেজন্য একটা অডিটোরিয়ামও থাকবে।
মো. শাহ আলমগীর বলেন, আজ যদি চট্টগ্রামে পিআইবি’র নিজস্ব ভবন থাকত তাহলে ভিন্ন আঙ্গিকে প্রশিক্ষণের আয়োজন করা যেত। আমি দায়িত্ব নেয়ার পর প্রশিক্ষণ মডিউলে অনেক পরিবর্তন এনেছি। হাতে কলমে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থাও করেছি। ঢাকার বাইরে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে নিয়মিত প্রশিক্ষণের আয়োজন করছি। চট্টগ্রামে পরবর্তী প্রশিক্ষণ যদি হয় তা হবে বন্দর বিষয়ে।
শাহ আলমগীর বলেন, গণমাধ্যম মানুষকে যা জানাতে চায় মানুষ তাই জানে, যা শোনাতে চায় মানুষ তাই শোনে। সমাজ পরিবর্তনের এমন ক্ষমতা যার সেই সাংবাদিককে অবশ্যই সৎ হতে হবে। যদি কেউ মিথ্যা তথ্য দিতে চান বা বিভ্রান্তি সৃষ্টি করতে চান তাহলে সেই সাংবাদিকতা দিয়ে কি হবে?
অনুষ্ঠানে পিআইবি মহাপরিচালক শাহ আলমগীর প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণকারীদের হাতে সনদ তুলে দেন।
অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সভাপতি কলিম সরওয়ার বলেন, সাংবাদিকদের অনেক প্রতিবন্ধকতার মধ্যে থেকেই কাজ করতে হয়। প্রতিনিয়ত সাংবাদিকদের নতুন নতুন চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হয়। প্রযুক্তির অগ্রগতির সাথে সাথে নতুন চ্যালেঞ্জের সৃষ্টি হয়। এসব বাধা জয় করেই একজন সংবাদকর্মীকে প্রতিদিনের কাজ করে যেতে হয়। আর এতে সহায়ক হয় প্রশিক্ষণ। একজন সংবাদকর্মীর জন্য যে কোনো বয়সেই প্রশিক্ষণ খুব প্রয়োজনীয়।
চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শুকলাল দাশ বলেন, পিআইবি’র এ ধরণের প্রশিক্ষণ আয়োজন চট্টগ্রামের সাংবাদিকদের দক্ষতা বৃৃদ্ধিতে সহায়ক হবে। নিয়মিত প্রশিক্ষণের আয়োজন করলে সাংবাদিকরা উপকৃত হবে।
চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী বলেন, অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় অনেক প্রতিবন্ধকতার মুখোমুখি হতে হয়।
চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের (সিইউজে) সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী বলেন, আমরা সবাই শিখতে চাই। কর্মশালা বা প্রশিক্ষণ হলেই সাংবাদিকরা অংশ নিতে আগ্রহী হন। হাতে-কলমে প্রশিক্ষণ সংবাদকর্মীদের উৎসাহিত করে।
বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের যুগ্ম মহাসচিব তপন চক্রবর্তী বলেন, সাংবাদিকদের অবশ্যই সত্য প্রকাশ করতে হবে।
চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শুকলাল দাশের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক খন্দকার আলী আর রাজী, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ, অংশগ্রহণকারী সাংবাদিক বিপুল বড়ুয়া, ইফতেখারুল ইসলাম ও আল রাহমান। উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সহ-সভাপতি মনজুর কাদের মনজু, ক্রীড়া সম্পাদক নজরুল ইসলাম, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মিন্টু চৌধুরী এবং পিআইবি’র প্রতিবেদক জিলহাজ উদ্দিন নিপুন। বিজ্ঞপ্তি