আসওয়াদ ব্যান্ডের অ্যালবাম ‘বিধি’র মোড়ক উন্মোচনকালে সুফি মিজান

পরমসত্তার সাথে মিলনই সুফিসাধনার লক্ষ্য

নিজস্ব প্রতিবেদক
Untitled-1

স্রষ্টা বা পরমসত্তাকে জানার বা বোঝার জন্য বিভিন্ন ধর্মে ভিন্ন-ভিন্ন সাধনপদ্ধতি আছে। ইসলাম ধর্মে যে সাধনা প্রচলিত এবং সর্বজনবিদিত তা হলো সুফিবাদ। আরবি শব্দ ‘সুফ’ মানে ‘পশম’। আল-সুফিয়াহ বা সুফিবাদ শব্দটি দ্বারা পশমের তৈরি পোশাক পরিধান করাকে বুঝায়। সুফিরা তাদের বৈরাগ্যের নিদর্শনস্বরূপ পশমের কাপড় পরতেন বলে এ নামে পরিচিত ছিলেন। সম্ভবত সর্বপ্রথম ইরাকের বসরা নগরীতে দুনিয়াত্যাগের প্রেরণা, প্রবল আল্লাহ-ভীতি ও দুনিয়াত্যাগের বাড়াবাড়ি, সার্বক্ষণিক জিকির-আজাবের আয়াত পাঠে বা শুনে অজ্ঞান হওয়া বা মৃত্যুবরণ করা ইত্যাদির মাধ্যমে সুফিবাদের যাত্রা শুরু হয়।
স্রষ্টা বা পরমসত্তার সাথে মিলনই সুফিসাধনার অভীষ্ট লক্ষ্য। তার জন্য সাধককে কঠিন পথ পাড়ি দিতে হয়। চর্চা করতে হয় আধ্যাত্মিকতার। এ রকম চর্চায় নিবদ্ধ একদল তরুণ বেশ কবছর আগে গড়ে তোলেন ব্যান্ড ‘আসওয়াদ’। এরই মধ্যে উক্ত দল সুফি ব্যান্ড হিসেবে সুখ্যাতি পায় নগরে। গতকাল আলিয়ঁস ফ্রঁসেজ মিলনায়তনে আসওয়াদ ব্যান্ডের তৃতীয় অ্যালবাম ‘বিধি’র মোড়ক উন্মোচন উপলক্ষে এক স্বর্ণালি সন্ধ্যার আয়োজন করা হয়। মোড়ক উন্মোচন করেন পিএইচপি ফ্যামিলির চেয়ারম্যান সুফি মোহাম্মদ মিজানুর রহমান। স্বাগত বক্তব্য দেন আলিয়ঁস ফ্রঁসেজ পরিচালক ড. সেলভাম থরেজ।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে সুফি মিজান বলেন, অন্ধকার তাড়াতে দরকার হয় আলোর। আর ঘৃণা জয়ে লাগে ভালোবাসা। সুফিরা কালে-কালে কাজ করে গেছেন মানুষের কল্যাণে। হজরত খাজা গরিবে নেওয়াজ (র.) সহ আউলিয়ারা সুফিবাদের প্রচার- প্রসার ঘটিয়েছেন। মানুষকে সত্য-সুন্দর ও মুক্তির পথ দেখিয়েছেন তাঁরা। সুফিবাদ এক ধরনের আধ্যাত্মিক মানসিক অবস্থা। যা মানুষকে অন্তর্দৃষ্টি লাভে সাহায্য করে। সুফি সাধকেরা তাঁদের দেহ ও মনকে পবিত্র রাখেন। কারণ অন্তরের পবিত্রতার ওপর আল্লাহর জ্যোতি প্রতিবিম্বিত হয়।
সিডির মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে নিজেদের জনপ্রিয় গানগুলো পরিবেশন করে আসওয়াদ। প্রায় দেড় ঘণ্টার সংগীতায়োজনে অংশ নেন আসওয়াদের তানিম, তাহিম, মহসিন, আনোয়ার, মান্না, ওয়াসিম, ভিনোদ, রিফাত, আহাদ। উক্ত অনুষ্ঠানে ‘বিধি’ (টাইটেল সং), ‘ভালো লাগে’, ‘আলো আসবে’, ‘পাষাণী’, ‘মা’, ‘সুখ নাই’, ‘সীমানা পেরিয়ে’, ‘নির্ঘুম রাত’, ‘পাপপুণ্য’, ‘কোন আশায় তুই রইলি বসে’, ‘মন আমার’ ও ‘মনে বড়ো আশা’ (যন্ত্রসংগীত) গানগুলো পরিবেশনায় দর্শক মোহিত হয়। উল্লেখ্য, ব্যান্ড আসওয়াদ-এর
অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা আলিয়ঁস ফ্রঁসেজ পরিচালক মি. ব্রুনো, খ্যাতিমান বংশীবাদক ক্যাপ্টেন (অব.) আজিজুল ইসলাম, পিএইচপির পরিচালক মোহাম্মদ আনোয়ারুল হক, বিস্তার-এর কর্ণধার আলম খোরশেদ, সানশাইন গ্রামার স্কুলের অধ্যক্ষ সাফিয়া গাজী রহমান, চিটাগাং চেম্বারের সাবেক পরিচালক মাহফুজুল হক শাহ, শিল্পী সুব্রত বড়ুয়া রনি।
বিধি’র প্রতিটি সিডির দাম রাখা হয় ১০০ টাকা। সিডির মূল্যসহ ইউটিউব, বিভিন্ন মোবাইল অপারেটরে বিক্রয়লব্ধ অর্থ প্রখ্যাত গীতিকার ও সুরকার আবদুল গফুর হালী ফাউন্ডেশনকে প্রদান করা হবে বলে জানান আয়োজকেরা।