পটিয়ায় বৈশাখি অনুষ্ঠানে নেয়ার কথা বলে যুবতীকে ধর্ষণ

নিজস্ব প্রতিনিধি, পটিয়া

পটিয়ায় বৈশাখি অনুষ্ঠানে বেড়াতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে এক যুবতীকে (১৮) ধর্ষণ করা হয়েছে। রোববার বিকেলে অজ্ঞান অবস’ায় ওই যুবতীকে পটিয়া হাসপাতাল থেকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
ধর্ষক রিপন (২৬) গাড়িচালকের সহকারী। সে কচুয়াই ইউনিয়নের বাসিন্দা।
জানা গেছে, উপজেলার বড়লিয়া ইউনিয়নের যুবতী পটিয়া বিসিক শিল্প

নগরীর একটি গার্মেন্টসে চাকরি করতো। ধর্ষক রিপন বিসিক শিল্প নগরীতে মালামাল সাপস্নাই কাজে ব্যবহৃত গাড়ি চালকের সহকারী হিসেবে চাকরি করতো। পহেলা বৈশাখ অনুষ্ঠানে বেড়াতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে যুবতীকে সকালে রিপন একটি সিএনজি ট্যাক্সি করে অজ্ঞাতস’ানে নিয়ে যায়। বিকেল পৌনে ৫টায় কয়েকজন যুবক ওই যুবতীকে অজ্ঞান অবস’ায় পটিয়া হাসপাতালে নেয়। ধর্ষণের কারণে অতিরিক্ত রক্তড়্গরণ হওয়ায় যুবতীকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে পটিয়া জরম্নরি বিভাগের চিকিৎসক সায়মা আকতার জানান।
ধর্ষক রিপনের বন্ধু আবদুল মান্নান নিজেকে সাইফুল দাবি করে। সে জানিয়েছে তার বন্ধুর সঙ্গে মেয়েটির প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। তাদের মধ্যে কী হয়েছে সে বলতে পারে না। তবে ওই যুবতীর ভাই মো. দিদার অভিযোগ করেছেন, তার বোন পটিয়া বিসিক শিল্প নগরীর একটি গার্মেন্টসে চাকরি করতো। বৈশাখি অনুষ্ঠানে নেওয়ার কথা বলে তার বোনকে যৌন হয়রানি করেছে গাড়ি চালকের সহকারী রিপন। তার বোনের সঙ্গে রিপনের পরিচয় অল্প দিনের।
পটিয়া থানার (ওসি) বোরহান উদ্দিন জানান, যুবতী ধর্ষণের শিকার হওয়ার খবর পেয়ে তিনিসহ পটিয়া থানার একদল পুলিশ চমেক হাসপাতালে যান।