আব্দুল্লাহ আল হারুনের স্মরণসভায় ড. অনুপম সেন

নির্বাচনে স্বাধীনতার পক্ষের শক্তিকে এক থাকতে হবে

আগামী নির্বাচনে স্বাধীনতার স্বপক্ষের শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে উন্নয়নের ধারাবিকতা বজায় রাখার আহবান জানিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামন্ডলীর সদস্য, বিশিষ্ট সমাজ বিজ্ঞানী প্রফেসর ড. অনুপম সেন বলেন, জননেতা মরহুম আব্দুল্লাহ আল হারুন চৌধুরীদের মত সাহসী-সহযোগী পেয়েছিলেন বলেই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তার ঐতিহাসিক ৬ দফা ঘোষণার মধ্যদিয়ে ধারাবাহিকভাবে ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছিলেন। তিনি ১৩ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে ১০ টায় জেলা পরিষদ মিলনায়তনে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ রাজনৈতিক সহচর, ভাষা সৈনিক সাবেক গণপরিষদ সদস্য জননেতা আবদুল্লাহ আল-হারুনের ১৪ তম মৃত্যুবার্ষিকী পালন উপলক্ষে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আয়োজিত স্মরণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন।

বক্তারা বলেন, আব্দুল্লাহ আল হারুন কোনো ব্যক্তি বিশেষ ছিলেন না; তিনি ছিলেন একটি ইতিহাস। ৫২ ভাষা আন্দোলন, ৬৬ ছয় দফা, সর্বোপরি ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধসহ এদেশের প্রতিটি প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক আন্দোলন সংগ্রামে জননেতা আব্দুল্লাহ আল হারুন সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেছিলেন।
আজকের দিনে তাঁর মত আদর্শিক নেতার বড়ই প্রয়োজন ছিল। তাঁর পথ অনুসরণ করে বর্তমান প্রজন্ম বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে একটি আধুনিক সমৃদ্ধশালী দেশ গঠনে ভুমিকা রাখতে পারে।

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এমএ সালামের সভাপতিত্বে এবং সাংগঠনিক সম্পাদক ও পৌর মেয়র দেবাশীষ পালিতের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত স্মরণ সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান।

আরও বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সহসভাপতি অধ্যাপক মো. মঈনুদ্দিন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. আবুল কালাম আজাদ, সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলহাজ গিয়াস উদ্দিন, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. শেখ শফিউল আজম, এটিম পেয়ারুল ইসলাম, কোষাধ্যক্ষ ও রাউজান উপজেলা চেয়ারম্যান এহছানুল হায়দর চৌধুরী বাবুল, দপ্তর সম্পাদক মহিউদ্দিন বাবলু, প্রচার সম্পাদক জসিম উদ্দিন শাহ, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মো. হারুন, দক্ষিণ জেলার দপ্তর সম্পাদক আবু জাফর, আলাউদ্দিন সাবেরী, বিজয় বড়-য়া, শওকত আলম, সিদ্দিক আলম, নাছির আহমেদ, উত্তর জেলা কৃষকলীগ সভাপতি নজরুল ইসলাম চৌধুরী, মরহুমের কন্যা, দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদিক শামিমা হারুন লুবনা, গনতন্ত্রী পার্টির নেতা স্বপন সেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় আন্তজার্তিক বিষয়ক উপকমিটির সদস্য ব্যারিষ্টার ইমরানুল কবীর বাপ্পি, আওয়ামী লীগ নেতা সাদাত আনোয়ার সাদী, কেন্দ্রীয় যুবলীগ সদস্য রাশেদ খান মেনন, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি বখতেয়ার সাঈদ ইরান, বর্তমান সাধারণ সম্পাদক মো. রেজাউল করিম প্রমুখ।
সভার শুরুতে মরহুমের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ১ মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। বিজ্ঞপ্তি