নান্দনিকতার ছোঁয়া এবার পাঁচলাইশ-ষোলশহরে আধুনিকায়নের উদ্যোগ চসিকের

মোহাম্মদ আলী

নগরীর প্রবর্তক মোড় থেকে দুই নম্বর গেইট পর্যন্ত চার লেইনের সড়কটি আধুনিকায়নের আওতায় আসছে। একই সাথে ষোলশহর দুই নম্বর গেইট মোড়ের বিপ্লব উদ্যানটিও সংস্কার ও আধুনিকায়নের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক)। তবে নিজস্ব অর্থায়নে নয়, করপোরেট প্রতিষ্ঠানের আর্থিক সহযোগিতায় কাজটি করতে চান সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। সড়ক সৌন্দর্যবর্ধন ও উদ্যানের আধুনিকায়নের ডিজাইনও প্রস’ত করা হয়েছে। ইতিমধ্যে দুটি করপোরেট প্রতিষ্ঠানের সাথে এ বিষয়ে একাধিক বৈঠক করেছে চসিক। সবকিছু ঠিক থাকলে শিগগিরই কাজ শুরু হতে পারে। তার আগে স্পন্সর প্রতিষ্ঠানের সাথে একটি সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষর করবে চসিক। প্রকল্পের সম্ভাব্য ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় তিন কোটি টাকা। আধুনিকায়নের ডিজাইন ও পরামর্শক হিসেবে কাজ করছে ‘রিফর্ম’ নামের একটি প্রতিষ্ঠান। সাথে আছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ‘জল সবুজ’ প্রকল্পের স’পতি মোহাম্মদ মাসুম।
নগর পরিকল্পনা বিভাগ সূত্রে জানা যায়, চসিকের পরিকল্পনায় রয়েছে, পাঁচলাইশের প্রবর্তক মোড় থেকে দুই নম্বর গেইট পর্যন্ত রাস্তায় মোটর ও নন মোটর যানবাহনের জন্য আলাদা লেইন, রাস্তা পারাপারের দুই নম্বর গেইট মোড়ের মসজিদের সামনে এবং কল্লোল সুপার মার্কেটের সামনে জেব্রা ক্রসিং কাম স্পিড ব্রেকার, রিক্সার জন্য আলাদা লেইন এবং আফমি প্লাজার পরে একটি রিক্সা স্ট্যান্ড,
ঁ ১ম পৃষ্ঠার পর রাস্তার দুই পাশে ওয়াকওয়ে, ১০০ ফিট পর পর বয়স্ক ও মহিলার জন্য বসার স’ান, ছোট ছোট ফুলের বাগান, রাস্তার দুই পাশে রাখা হবে ওয়েস্ট ডাস্টবিন, গাড়ি থামার স্ট্যান্ড, মিড আইল্যান্ডে আলোক সজ্জা, ‘বিপ্লব উদ্যান’ সংস্কার করে তাতে স্বাধীনতার গৌরবের প্রতিচ্ছবি হিসেবে ৫০ ফিটের একটি লাইট টাওয়ার (আলোক স্তম্ভ), লিনিয়ার (লম্বা) ফোয়ারা, ফোয়ারের পাশে বসার জায়গা, সর্ব সাধারণের ব্যবহার উপযোগী টয়লেট, সুপেয় পানির ব্যবস’া, পার্কের চারপাশে দেওয়াল ঘেঁষে ফুলের বাগান, পার্কের মাঝখানে একটি মু্ক্তমঞ্চ স’াপন। এছাড়াও দুই নম্বর গেইট মোড়ে একটি ভাস্কর্য স’াপনও রয়েছে পরিকল্পনায়।
চসিকের নগর পরিকল্পনা বিভাগের সহকারী স’পতি আব্দুল্লাহ আল ওমর বলেন, ‘এ রুটে গাড়ি চালানোর একটি নির্দিষ্ট গতি নির্ধারণ করে দেওয়া হবে। পাঁচলাইশ আবাসিক এলাকার সামনে ডাস্টবিনটি তুলে ফেলা হবে। পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ সম্পন্ন করতে পারলে পাঁচলাইশ ও হিলভিউ আবাসিক এলাকার বাসিন্দা সর্বোপরি নগরবাসী উপকৃত হবে।’
তিনি জানান, বর্তমানে বিপ্লব উদ্যানে স্যাঁতস্যাঁতে অবস’া। পানি ঢুকে। তাই বিপ্লব উদ্যান সংস্কার করে সর্ব সাধারণের জন্য নান্দনিক পরিবেশ নিশ্চিত করা হবে। কাজটি আউট সোর্সিংয়ের মাধ্যমে করতে চায় চসিক। ইতিমধ্যে দুটি প্রতিষ্ঠান আগ্রহ দেখিয়েছে।