নকল ঘি কারখানার সন্ধান

নিজস্ব প্রতিনিধি, হাটহাজারী

পামঅয়েল, সুজি, রঙ, ফ্লেভার ও গাম দিয়ে তৈরি হচ্ছে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের ঘি। কৌটার গায়ে লাগানো আছে বিভিন্ন কোম্পানির স্টিকার। এমনই এক অবৈধ ও ভেজাল ঘি কারখানায় অভিযান চালিয়েছে হাটহাজারী উপজেলা প্রশাসন।
গতকাল সন্ধ্যার দিকে পৌর এলাকার ১১ মাইল এলাকার একটি ভাড়াঘরে ওই ভেজাল ঘি কারখানায় অভিযান চালানো হয়। এ সময় ওই অবৈধ ও ভেজাল ঘি কারখানা থেকে জব্দকৃত ১৫শ লিটার ঘি ধ্বংস করা হয়।
এ বিষয়ে হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ রুহুল আমিন সুপ্রভাতকে বলেন, পৌর এলাকার ১১ মাইল এলাকার কবির চেয়ারম্যান বাড়ির ভাড়াঘরে একটি ভেজাল ঘি কারখানার সন্ধান পাওয়ার পর ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনা করা হয়। এখানে বিভিন্ন নামিদামি ব্র্যান্ডের স্টিকার ব্যবহার করে দীর্ঘদিন ধরে নকল ঘি উৎপাদন করে বাজারজাত করে আসছিল একটি চক্র।
বাঘাবাড়ী স্পেশাল খাঁটি গাওয়া ঘি, গোল্ডেন এসপি, গোল্ডেন পিএস, গোল্ডেন স্পেশাল, আরএস রাজেশ ঘোষ সুপার প্রভৃতি ঘি-এর নাম ব্যবহার করে এসব অবৈধ ও ভেজাল ঘি বিভিন্ন বাজারের মুদি দোকানে সরবরাহ করা হতো। এসব ভেজাল ঘি তৈরি হয় পামঅয়েল, রঙ, ফ্লেভার, সুজি এবং গাম দিয়ে। তবে অভিযানের সময় ওই ভেজাল ঘি কারখানার কাউকে আটক করা যায়নি বলে জানা গেছে।
এদিকে ওই অবৈধ ও ভেজাল ঘি কারাখানায় অভিযান চালানোর পরপর ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রুহুল আমিন হাটহাজারী পৌরসভার বিভিন্ন মুদি দোকানেও অভিযান পরিচালনা করেন। এসময় তিনি ভেজাল ঘি জব্দ করার পর ধ্বংস করা ওই ভেজাল ৫টি ব্র্যান্ডের ঘি খুঁজে পান দোকান মালিকরা বলেন, আমরা এসবের বিষয়ে জানি না। ঘি-এর বিক্রয় প্রতিনিধিরা আমাদের কাছে আসে, আমরা সেগুলো কিনে নিয়ে বিক্রি করি।
ভেজাল ঘিসহ বিভিন্ন ভেজাল পণ্যের বিরুদ্ধে আরো কঠোর অভিযান চালানো হবে বলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জানান।