কর্ণফুলী নিয়ে বন্দরের সেমিনার

দেশের অর্থনীতির হৃদপিণ্ড কর্ণফুলীকে বাঁচাতে হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক

স্বল্পোন্নত দেশ থেকে বাংলাদেশের উত্তরণ উপলক্ষে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ কর্ণফুলী রক্ষা নিয়ে আয়োজন করে সেমিনারের। আর সেই সেমিনারে দেশের অর্থনীতির জন্য কর্ণফুলীর গুরুত্বারোপের কথা বলা হয়। কর্ণফুলী বাঁচলে দেশের অর্থনীতির চাকা সচল থাকবে। গতকাল চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের শহীদ মো. ফজলুর রহমান মুন্সী অডিটরিয়ামে অনুষ্ঠিত ‘কর্ণফুলী নদী বাংলাদেশের অর্থনীতির প্রাণকেন্দ্র: দখল, দূষণরোধসহ সচল ও পরিবেশবান্ধব কর্ণফুলী’ শীর্ষক এ সেমিনারে এসব কথা বলা হয়।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান কমডোর জুলফিকার আজিজ বলেন, কর্ণফুলী দেশের অর্থনীতির হৃদপিণ্ড। তাই কর্ণফুলীকে বাঁচিয়ে রাখতে হবে। এই নদী ব্যবহার করেই দেশের আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছে। প্রতিবছর গড়ে তিন হাজারের বেশি জাহাজ আসা যাওয়া করে এই বন্দরে। ইতিমধ্যে কনটেইনার পরিবহনে বিশ্বের শীর্ষ ১০০ বন্দরের মধ্যে চট্টগ্রাম বন্দর ৭১ তম অবস’ান অর্জন করেছে।
সেমিনারে কর্ণফুলী বিষয়ে মূল প্রবন্ধে চট্টগ্রাম সরকারি হাজী মুহম্মদ মহসিন কলেজের অধ্যাপক মো. ইদ্রিস আলী বলেন, দখল ও দূষণে হুমকির মুখে কর্ণফুলী। এছাড়া পলি জমে ভরাট হয়ে যাওয়ায় দিন দিন নাব্যতা হারাচ্ছে নদীটি। নদীর উভয় তীরের শিল্প কারখানা থেকে নির্গত তরল বর্জ্যের পাশাপাশি সুয়্যারেজের বর্জ্যে দূষিত হচ্ছে কর্ণফুলী। দেশের স্বার্থে এই অবস’া থেকে কর্ণফুলীকে বাঁচাতে হবে।
চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের সদস্য (প্রশাসন ও পরিকল্পনা) জাফর আলমের সঞ্চালনায় উন্মুক্ত আলোচনায় বন্দরের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তারা অংশ নেন। অনুষ্ঠানের আগে একটি বর্ণাঢ্য র্যালি হয়।