রিহ্যাব ফেয়ার-২০১৯

দর্শনার্থীর ভিড়ে সঠিক ক্রেতার অভাব

নিজস্ব প্রতিবেদক

২০০৬ সালে চট্টগ্রামে প্রথম রিহ্যাব ফেয়ার অনুষ্ঠিত হয়। সেই পরিক্রমায় প্রতিবছর নগরীতে হচ্ছে আবাসন মেলা। রিয়েল এস্টেট কোম্পানিগুলো তাদের পণ্য নিয়ে ফেয়ারে আসে এবং ফেয়ারে আসা দর্শনার্থীরা তা যাচাই করে পরবর্তীতে ফ্ল্যাট কেনার প্রতি আগ্রহী হয়। কিন’ আগের দর্শনার্থী ও বর্তমান দর্শনার্থীদের মধ্যে পার্থক্য অনেক। আগে সঠিক ক্রেতার সংখ্যা বেশি ছিল এবং এখন সেই সংখ্যাটি কমে এসেছে এমনটা দাবি রিয়েল এস্টেট কোম্পানিগুলোর প্রতিনিধির।
কোনো ধরনের রাখঢাক না করে চট্টগ্রামে আবাসন শিল্পের পথিকৃত এবং ইকুইটি প্রপার্টি ম্যানেজমেন্ট লিমিটেডর ব্যবস’াপনা পরিচালক ডা. আইনুল হক বলেন, ‘প্রথম দিকের ফেয়ারে দর্শনার্থী কম আসতো। কিন’ যারা আসতো তাদের একটি অংশ থেকে পাওয়া ফোন নম্বরের মাধ্যমে যোগাযোগ করে কোম্পানিগুলো কিছু ফ্ল্যাট বিক্রি করতো। অর্থাৎ ফেয়ারের স্টলে আসা দর্শনার্থীদের সাথে ফেয়ার পরবর্তী সময়ে যোগাযোগ করে কোম্পানিগুলো সঠিক ক্রেতা বের করে নিতো। কিন’ এখন এই হার কমে এসেছে।’
তিনি বলেন, এখন হয়তো ফেয়ারে আগের চেয়ে অনেক বেশি দর্শনার্থী আসে। কিন’ এদের বেশিরভাগ এক স্টল থেকে আরেক স্টলে যাচ্ছে অনেক ফোল্ডার ও গিফট সংগ্রহ করছে, তবে প্রকৃত ক্রেতার পরিমাণ কম পাওয়া যাচ্ছে।
আইনুল হকের এই মতের সাথে অনেকেই সহমত রয়েছে। এবিষয়ে ফিনলে প্রপার্টিজের প্রধান নির্বাহী এম আই খসরু বলেন, ‘ফেয়ারে এতো কোটি টাকার ফ্ল্যাট বিক্রি হয়েছে এগুলো বোগাস কথা। ফেয়ার হলো একই ছাদের নিচে বিভিন্ন কোম্পানিকে দর্শনার্থীরা পাবে। কার কাছে কোন ধরনের ফ্ল্যাট বা অফার রয়েছে তা যাচাই করবে। পরে ভেবেচিন্তে কোনো একটি কোম্পানি থেকে ফ্ল্যাট কিনবে। কিন’ বর্তমানে ফেয়ারে আগের চেয়ে দর্শনার্থীর সংখ্যা বাড়লেও সেই হারে সঠিক ক্রেতার পরিমাণ বাড়েনি।’
তবে বর্তমানের ক্রেতারা অনেক বেশি সচেতন জানিয়ে সিপিডিএল প্রপার্টি ম্যানেজমেন্টের ব্যবস’াপনা পরিচালক প্রকৌশলী ইফতেখারুল ইসলাম বলেন,‘ এখন দর্শনার্থীর পরিমাণ অনেক বেড়েছে। কিন’ তারা ফ্ল্যাট কেনার ক্ষেত্রে অনেক কিছু যাচাই করেন। কোম্পানির অবস’া, সঠিক সময়ে প্রকল্প হ্যান্ডওভার হবে কিনা প্রভৃতি অনেক বিষয় যাচাই করে ক্রেতারা ফ্ল্যাট কিনেন।’
আবাসন শিল্পের শুরু থেকে মার্কেটিং নিয়ে কাজ করছেন মোহাম্মদ আবু তছলিম। প্রথমদিকে ইকুইটিতে ও বর্তমানে এয়ারবেল প্রপার্টি ম্যানেজমেন্ট কোম্পানিতে কাজ করা আবু তছলিম বলেন, ‘এখনকার ক্রেতারা অনেক বেশি সচেতন। মাঝখানে এই খাতে কিছু অদক্ষ ব্যবসায়ী চলে আসায় আবাসন খাতের ক্ষতি হয়েছে। সেই ক্ষতি কাটিয়ে আবাসন খাত আবারো সামনের দিকে অগ্রসর হচ্ছে। সেসব ব্যবসায়ীদের কারণে ক্রেতারা অনেক ভেবেচিন্তে ফ্ল্যাট কিনছেন। তবে ফ্ল্যাট কেনার প্রতি মানুষের আগ্রহ বাড়ছে, এজন্য অনেক কোম্পানি নতুন নতুন প্রকল্পও নিচ্ছে।’
আগেকার সময়ের ফেয়ার ও বর্তমান সময়ের ফেয়ার নিয়ে কথা হয় রিহ্যাব চট্টগ্রাম চ্যাপ্টারের চেয়ারম্যান আবদুল কৈয়ুম চৌধুরীর সাথে। তিনি বলেন, ‘এখনকার ফেয়ারে দর্শনার্থীর সংখ্যা অনেক বেশি। এসব দর্শনার্থীদের একটি অংশ অবশ্যই ফ্ল্যাট কিনছে। আর কিনছে বলে বিভিন্ন ডেভেলপার নতুন নতুন প্রকল্প নিচ্ছে। আবারো ঘুরে দাঁড়াচ্ছে এই খাত।’
উল্লেখ্য, আজ থেকে চারদিনের রিহ্যাব ফেয়ার শুরু হচ্ছে পাঁচ তারকা হোটেল র্যাডিসন ব্লু তে।