তিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী উখিয়ায়

নিজস্ব প্রতিনিধি, কক্সবাজার
cox-pic-(1)-19.11.17

বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের দেখতে কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেছেন জাপান, জার্মান ও সুইডেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। এসময় ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) পররাষ্ট্র বিষয়ক প্রধান ফ্রেডরিকা মোঘেরিনি তাদের সঙ্গে ছিলেন।
গতকাল রোববার দুপুর সাড়ে ১২ টায় বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহামুদ আলীর নেতৃত্বে ৩ দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীসহ আন্তর্জাতিক রেড ক্রসের উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধিদল শিবির পরিদর্শন করেছেন।
এরা হলেন জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী তারো কোনো, জার্মানির সিগমার গ্যাব্রিয়েল ও সুইডেনের মারগট ওয়ালস্টার।
পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং ক্যাম্পে পৌঁছে প্রথমে ক্যাম্প ইনচার্জ কার্যালয়ে বৈঠকে মিলিত হন। দীর্ঘ ১৫ মিনিট বৈঠক শেষে কুতুপালং শরণার্থী ক্যাম্পে আর্ন্তজাতিক অভিবাসন সংস’া (আইওএমওর) পরিচালনাধীন চিকিৎসা কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। এরপর তারা বিভিন্ন রোহিঙ্গা ক্যাম্প ঘুরে দেখেন এবং রোহিঙ্গাদের সাথে কথা বলে তাদের বক্তব্য ধৈর্য সহকারে শুনেন। এসময় এতিম রোহিঙ্গা শিশুদের সাথেও কথা বলেন তারা।
পরিদর্শন শেষে জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী তারো কোনো সাংবাদিকদের এক প্রেসব্রিফিংয়ে বলেন, মিয়ানমার থেকে পালিয়ে এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের করুণ চিত্র আমরা দেখেছি। তাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সেনাবাহিনীর বর্বর নির্যাতন, জুলুম ও জাতিগত হত্যাযজ্ঞের শিকার হয়েছে। তাদের বাড়ি ঘরে আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে। বসত বাড়ি থেকে বিতাড়িত করা হয়েছে। আমরা রোহিঙ্গাদের সংকট সমাধানে দ্রুত কাজ করে যাব। পাশাপাশি রোহিঙ্গাদের স্বদেশে ফেরত পাঠিয়ে নাগরিকত্বসহ তাদের মৌলিক অধিকার ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য আগামী ২০-২১ নভেম্বর মিয়ানমারের অনুষ্ঠিতব্য আসেন সম্মেলনে জোরালো ভাবে তুলে ধরা হবে। আমরাও চাই শান্তিপূর্ণভাবে রোহিঙ্গাদের স্বীকৃতি দিয়ে মিয়ানমার তাদের ফেরত নেবে। বিশেষ করে বিপন্ন রোহিঙ্গাদেরকে আশ্রয় দেওয়ায় বাংলাদেশ সরকারের প্রতিও পররাষ্ট্রমন্ত্রীগণ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। এসময় উপসি’ত ছিলেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, পররাষ্ট্র সচিব শহিদুল হক, আর্ন্তজাতিক অভিবাসন সংস’া (আইওএম) বাংলাদেশের ডিরেক্টর পেপি ছিদ্দিকীসহ ৩ দেশের রাষ্ট্রদূত, বিদেশি কূটনৈতিক ও আর্ন্তজাতিক রেড ক্রস কমিটির (আইসিআরসি) এশীয় ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের পরিচালক বরিস মিশেল।
এর আগে সকাল সাড়ে ১১টায় দিকে ৩ বিদেশি পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর নেতৃত্বে ৩টি বিশেষ হেলিকপ্টার যোগে উখিয়ার ইনানীতে অবতরণ করেন। রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন শেষে বিকেল ৩টায় ঢাকার উদ্দেশে উখিয়া ত্যাগ করেন
পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা।