পরিবহন ব্যবসায়ী হারুন হত্যার প্রতিবাদে সমাবেশ

তিন কাউন্সিলরকে দোষারোপ বোন রাহেলা বানুর

নিজস্ব প্রতিবেদক

যুবদল নেতা ও পরিবহন ব্যবসায়ী হারুনুর রশিদ চৌধুরী হত্যার প্রতিবাদে সমাবেশ করেছে এলাকাবাসী। গতকাল বিকেলে কদমতলী ট্রাক স্ট্যান্ড সংলগ্ন পলাশী চত্বরে ‘সন্ত্রাস প্রতিরোধ কমিটির’ ব্যানারে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠনের নেতারাও উপস্থিত ছিলেন।
সমাবেশে হারুনের বড় বোন রাহেলা বানু সেদিনের (৩ ডিসেম্বর) শোভাযাত্রায় উপস্থিত তিন কাউন্সিলরের সমালোচনা করে বলেন, ‘ওইদিন আপনারা তিন কাউন্সিলর উপস্থিত ছিলেন। আপনারা পাহারা দিয়ে হত্যাকারীদের চলে যাওয়ার সুযোগ করে দিয়েছেন। কিন্তু আজকের প্রতিবাদ সমাবেশে কেউ আসেননি।’
পাশাপাশি ঘটনার দিন পুলিশের ভূমিকার সমালোচনা করে বানু আরও বলেন, ‘হারুনকে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যাচ্ছিল। এসময় আমরা পুলিশকে বার বার বলেছি তাদের ধরতে। পুলিশ ফাঁকা গুলি ছুঁড়লেও খুনিদের গুলি করেনি। আওয়ামী লীগ-বিএনপি হিসেবে বিবেচনা না করে আপনারা (পুলিশ) সন্ত্রাসীদের দ্রুত গ্রেফতার করুন।’
সমাবেশ থেকে হারুনুর রশিদ হত্যায় জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবি জানিয়ে আগামী রোববার নগর পুলিশ কমিশনার বরাবরে স্মারকলিপি, ১৩ ডিসেম্বর সংহতি সমাবেশ ও ১৮ ডিসেম্বর মানববন্ধনের ঘোষণা দেওয়া হয়।
নগর বাইশ মহল্লার সর্দার শওকত আলীর সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য দেন প্রয়াত বিএনপি নেতা দস্তগীর চৌধুরীর স্ত্রী ডা. কামরুন্নাহার দস্তগীর, নিহত হারুনের বড় ভাই এবং মামলার বাদি হুমায়ুন রশিদ চৌধুরী, সাবেক ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও বাসদ নেত্রী জান্নাতুল ফেরদৌস পপি।