উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী, চবি’র বসন্ত উৎসব

তারুণ্যের শক্তিকে আলোর পথে এগিয়ে যাওয়ার আহ্বান

বিজ্ঞপ্তি

বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যোগে ১৩ ফেব্রয়ারি দিনব্যাপী বসন্ত উৎসব উদযাপন করা হয়।
সকাল ১১টায় উদ্বোধক হিসেবে উপসি’ত থেকে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় মুক্তমঞ্চে এ কর্মসূচি উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণ দেন উদীচী কেন্দ্রীয় সংসদের সহ-সভাপতি একুশে পদকপ্রাপ্ত মাহমুদ সেলিম। এতে আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন চবি উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. শিরীণ আখতার, চবি বাংলা বিভাগের সভাপতি প্রফেসর ড. মহীবুল আজিজ, উদীচী কেন্দ্রীয় সংসদের সহ-সভাপতি ডা. চন্দন দাশ ও উদীচী, চবি প্রতিষ্ঠাকালীন সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ ঘোষ।
এ ছাড়া বক্তব্য রাখেন উদীচী, চবি সহ-সভাপতি ইউসুফ মুহম্মদ এবং সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম অন’।
উপাচার্য তাঁর ভাষণে বলেন, বাংলাদেশ ষড়ঋতুর দেশ। ঋতুর আবর্তনের সাথে সাথে এ গ্রামবাংলা নবরূপে সজ্জিত হয়। বলা হয় বসন্ত ঋতুরাজ। শীতের শূন্যতা কাটিয়ে আমের মুকুলের ঘ্রাণে অভিষেক হয় বসন্তের। গাছের শাখা-প্রশাখায় সবুজ কিশলয় তারুণ্যের বুকে জাগিয়ে তোলে জীবনের নব উচ্ছ্বাস।
এ উচ্ছ্বাস তারুণ্যের শক্তিকে প্রাণিত করে সৃষ্টি সুখের উল্লাসে। উপাচার্য তারুণ্যের শক্তিকে অন্ধকার, কুসংস্কার, কূপমণ্ডকতা, পশ্চাদপদতা, সাম্প্রদায়িকতা এবং জঙ্গি-সন্ত্রাসকে পদদলিত করে সত্য-সুন্দর-মঙ্গল, কল্যাণ ও আলোর পথে এগিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানান।
উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সভাপতি প্রফেসর ড. গণেশ চন্দ্র রায়ের সভাপতিত্বে এবং উদীচী’র কোষাধ্যক্ষ দূরদানার পরিচালনায় দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত এ বসন্ত উৎসবে কর্মসূচিতে ছিল-গণসংগীত, নৃত্য, মুখাভিনয়, আবৃত্তি, নাটক, গম্ভীরা, আদিবাসী গান ও নৃত্য, পুতুল নাচ, বাউল গান এবং চলচ্চিত্র প্রদর্শনী।
অনুষ্ঠানে উদীচীর সদস্যবৃন্দ, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক এবং অসংখ্য শিক্ষার্থী উপসি’ত ছিলেন।