উচ্চারকের ১৭ বছরে পদার্পণ

তরুণরাই প্রগতির চাকাকে এগিয়ে নিচ্ছে

বিজ্ঞপ্তি

‘বুকে বাজে দ্রোহের বীণা, মুখে সত্য উচ্চারণ, আমরা মুক্ত উচ্চারক’-১৬ বছর আগের এই স্লোগানকে দলের ‘থিমসং’য়ে রূপান্তর করে ১৭ বছরে পদার্পণ করেছে মনন ও বাচিক চর্চার সংগঠন উচ্চারক আবৃত্তি কুঞ্জ।
বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নগরীর শিল্পকলা একাডেমির জয়নুল আর্ট গ্যালারিতে অনুষ্ঠিত উচ্চারকের এই আয়োজনে অংশ নেন দেশের বিশিষ্ট কবি-সাহিত্যিক, সাংবাদিক, সঙ্গীতশিল্পী, নাট্য ও আবৃত্তিশিল্পীরা।
গান, কথামালা ও শুভেচ্ছা বিনিময়ের এই ব্যতিক্রমধর্মী অনুষ্ঠান শুরু হয় বিশিষ্ট সঙ্গীতশিল্পী মো. মোস্তফা কামালের নেতৃত্বে উচ্চারকের শিল্পীদের সম্মেলক সঙ্গীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে। এরপর জন্মদিনের কেক কেটে অনুষ্ঠান উদ্বোধন ও শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন কবি আশীষ সেন, উদীচীর কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি ডা. চন্দন দাশ, সঙ্গীত ভবনের অধ্যক্ষ শিল্পী কাবেরী সেনগুপ্তা, নারীনেত্রী জেসমিন সুলতানা পারু, কবি কামরুল হাসান বাদল, কবি আকতার হোসাইন, জেলা শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল আলম বাবু, জেলা কালচারাল অফিসার মোসলেম উদ্দিন, সমাজ সমীক্ষা সংঘের সদস্য সচিব আহমেদ খসরু, চট্টগ্রাম গ্রুপ থিয়েটার ফোরামের সভাপতি খালেদ হেলাল ও সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম, সম্মিলিত আবৃত্তি জোট সভাপতি অঞ্চল চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক মশরুর হোসেন, আবৃত্তিশিল্পী মিলি চৌধুরী, রাশেদ হাসান, মাসুদ বকুল, মামুনুল আমীন, মুজাহিদুল ইসলাম, তৈয়বা জহির আরশি, সেলিম ভুইয়া, শুভাশীষ শুভ, ইকবাল হোসেন জুয়েল, মেজবাহ চৌধুরী, শারমিন মুস্তারি নাজু, বিজয় দে, ইমরান হোসেন, শিশির আহমেদ, সাংবাদিক রোকসারুল ইসলাম, সাইদুল ইসলাম, আলিউর রহমান, আসিফ ইকবাল, লেখক সজল চৌধুরী, খণরঞ্জন রায়, কবি অনুপমা অপরাজিতা প্রমুখ।
অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, ১৭ বছর একটি সংগঠনের জন্য কম সময় নয়। উচ্চারক বিগত সময়গুলো তাদের নিত্যনতুন কাজের বিন্যাস ও সৃষ্টিশীলতার মধ্যদিয়ে পার করেছে।
মাত্র চারজন চিন্তাশীল তরুণের সমন্বয়ে যাত্রা করে উচ্চারক গত ১৬ বছরে চার শতাধিক আবৃত্তিকর্মী সৃস্টি করেছে। তাদের মতো তরুণরাই সমাজের প্রগতির চাকাকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে।
উচ্চারক আবৃত্তি কুঞ্জের সভাপতি সাংবাদিক ফারুক তাহেরের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করেন বিশিষ্ট শিল্পী মো. মোস্তফা কামাল, শ্রেয়সী রায়, স্বপন মজুমদার, হাসান জাহাঙ্গীর, মৌটুসী তিতলী, শ্রাবণী দাশগুপ্তা, ফারহিন মাহমুদ খান, প্রিয়াংকা বড়-য়া, মো. নূরনবী, প্রিয়ম প্রমুখ।