তারুণ্যের উচ্ছ্বাস এর ষোড়শ সমাবর্তনে বক্তারা

তরুণদের মুক্তবুদ্ধি চর্চায় সম্পৃক্ত করা প্রয়োজন

নিজস্ব প্রতিবেদক

সমাজে শিল্পবোধ সম্পন্ন মানবিক মানুষ গড়তে কবিতা ও কবিতার আবৃত্তি ইতিবাচকভাবে বিশেষ ভূমিকা রাখতে সক্ষম। অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ে তুলতে তরুণদের আরও বেশি বেশি মুক্তবুদ্ধির চর্চার সাথে সম্পৃক্ত করা প্রয়োজন।

গতকাল নগরীর জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে বাচিক শিল্প চর্চা কেন্দ্র ‘তারুণ্যের উচ্ছ্বাস’ এর শুদ্ধ উচ্চারণ ও আবৃত্তি কর্মশালার ষোড়শ সমাবর্তন ও আবৃত্তি অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

তারুণ্যের উচ্ছ্বাস সভাপতি ভাগ্যধন বড়-য়ার সভাপতিত্বে সমাবর্তন অনুষ্ঠানে বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন ত্রিপুরার জনপ্রিয় অনুষ্ঠান সঞ্চালক শুভ্রজিৎ ভট্টাচার্য। অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি ছিলেন এটিএন নিউজের প্রধান নির্বাহী সম্পাদক সাংবাদিক মুন্নী সাহা, বাংলা একাডেমির উপ পরিচালক ড. শাহাদাৎ হোসনে নিপু এবং চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের পরিচালক মাহবুবুল হক চৌধুরী বাবর।
আবৃত্তিশিল্পী সেজুঁতি দের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন তারুণ্যের উচ্ছ্বাসের সাধারণ সম্পাদক মো. মুজাহিদুল ইসলাম।

অনুষ্ঠানে অতিথির বক্তব্যে সাংবাদিক মুন্নী সাহা বলেন, বর্তমানে আমরা একটি অসি’র সময় অতিক্রম করছি। এ সময়ে শুভবোধ সম্পন্ন মানুষগুলোকে আরো ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। সংস্কৃতি চর্চা ও সুন্দরের চর্চার মধ্য দিয়ে সকল কলুষতাকে পরাজিত করতে হবে।

আবৃত্তিশিল্পী শুভ্রজিৎ ভট্টাচার্য বলেন, মনের মধ্যে অন্ধকার রেখে শিল্পের চর্চা হয় না। শিল্প চর্চার আগে শিল্পবোধ সম্পন্ন মানবিক মানুষ হতে হবে। মনে সুন্দরের আলো জ্বেলে নিয়মিত চর্চা ও সাধনায় থাকতে হবে। তবেই আবৃত্তি বা যেকোন শিল্প চর্চায় সফলতা আসবে।’

সংগঠনের সভাপতি ভাগ্যধন বড়-য়া বলেন, এক দশকের এই নান্দনিক পথচলায় তারুণ্যের উচ্ছ্বাস আগামীতে সকল সৃজনশীল মানুষ সাথী হলেই লক্ষে পৌঁছাতে পারবে। মুক্তবুদ্ধি ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করে তারুণ্যের উচ্ছ্বাস একটি অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ বিনির্মানের স্বপ্নে এগিয়ে চলেছে।
অনুষ্ঠানে তারুণ্যের উচ্ছ্বাস পরিচালিত শুদ্ধ উচ্চারণ ও আবৃত্তি কর্মশালার ত্রয়োদশ ব্যাচের উত্তীর্ণ শিক্ষাথীদের হাতে সনদপত্র তুলে দেন অতিথিরা। পরবর্তীতে সনদপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের মধ্যে একক ও বৃন্দ আবৃত্তিতে অংশ নেয়। আবৃত্তি শিল্পীরা রবীন্দ্রনাথের অনন্ত প্রেম, কাজী নজরুলের বাংলাদেশ, হুমায়ুন আজাদের শুভেচ্ছা, সৈয়দ শামসুল হকের পরানের গহীন ভিতর, জয় গোস্বামীর মালতীবালা বলিকা বিদ্যালয়, সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের কেউ কথা রাখেনি, হেলাল হাফিজের উৎসর্গসহ বেশ কিছু কবিতা আবৃত্তি করেন।