ড. ইউনূসের ভূমিকা নিয়ে দুই ভিসির বাহাস

নিজস্ব প্রতিবেদক

শান্তিতে নোবেলজয়ী, চট্টগ্রামের সন্তান স্বনামধন্য অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্মদ ইউনূস নিজের জন্মস’ান চট্টগ্রামের উন্নয়ন, হালদার দখল-দূষণ প্রতিরোধ নিয়ে ভূমিকা না রাখায় কড়া সমালোচনা করেছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী।
গতকাল শুক্রবার সকালে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের ইঞ্জিনিয়ার আবদুল খালেক মিলনায়তনে ‘হালদা রক্ষা কমিটি’ আয়োজিত আলোচনা সভা ও সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে চবি উপাচার্য এ সমালোচনা করেন।
অধ্যাপক ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘ড. ইউনূসকে নিয়ে অনেকে অনেক কিছু বলেন। চট্টগ্রামকে নিয়ে তার চিন্তা ভাবনা নেই কেন? তিনি কেন হালদা নিয়ে কথা বলেন না? হালদাকে নিয়ে কেন তিনি কোন সামাজিক ব্যবসার কথা বলছেন না? ড. ইউনূস আমাদের চট্টগ্রামের জন্যে একটি সামাজিক ব্যবসা যদি শুরু করেন, হালদা নদী রক্ষার জন্যে কোনো প্ল্যান নিতেন তাহলে চট্টগ্রামবাসী উপকৃত হতো। তার জন্য এটা কোন ব্যাপার না। এখানে ড. সিকান্দার স্যার আছেন। ড. ইউনূস বিদেশে কোটি কোটি ডলারের ব্যবসা করছেন। নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন। কিন্তু চট্টগ্রামের জন্য তিনি কিছুই করেননি।’
অনুষ্ঠানের সভাপতি ও ইস্ট ডেল্টা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সিকান্দার খান চবি উপাচার্যের বক্তব্যের জবাব দেন।
ড. সিকান্দার খান বলেন, ‘ড. ইউনূস চট্টগ্রামে জন্মগ্রহণ করেছেন। কিন’ চট্টগ্রামের জন্যে কাজ করার সুযোগ তার হয়নি। কোটি কোটি ডলারের কথাটি সঠিক নয়। তিনি যা করেছেন তা হলো তার থিউরির পরীক্ষিত ফর্মুলা বিভিন্ন দেশকে দিয়েছেন। যেমন গ্রামীণ ব্যাংকের ক্ষুদ্রঋণ প্রকল্প। এ প্রকল্পের মূল বিষয় হলো গরিব মানুষকে ঋণ দেওয়া যায়। যেটি তিনি প্রমাণ করেই নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন।’
তিনি বলেন, ‘এখন সামাজিক ব্যবসার কথা বলা হচ্ছে। এ বিষয়টি এখন পরীক্ষার সময় চলছে। এটিও হালদাপাড়ের মানুষের কাজে আসবে। তারা হালদা রক্ষা করতে পারবে। কিন্তু আমাদের দেশে সামাজিক ব্যবসার সুষ্ঠু পরিবেশ নেই।’

আপনার মন্তব্য লিখুন