মিরসরাইয়ে পবন চৌধুরী

ডিসেম্বরে দৃশ্যমান হবে ইকোনমিক জোন

নিজস্ব প্রতিনিধি, মিরসরাই

বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরী বলেছেন, ৩০ হাজার একর জমিতে গড়ে উঠছে মিরসরাই অর্থনৈতিক অঞ্চল। এটি শুধু বাংলাদেশ নয় এশিয়ার সর্ব বৃহত্তর অর্থনৈতিক অঞ্চল। ৫ বছর পর মিরসরাই হবে বিনিয়োগের রাজধানী। এতে প্রায় ৫ লাখ মানুষের কর্মসংস্থান হবে। আগামী ডিসেম্বরে মিরসরাই ইকোনমিক জোন দৃশ্যমান হবে।
তিনি শুক্রবার বিকালে জেলা পরিষদ অডিটরিয়ামে অনুষ্ঠিত ‘মিরসরাই অর্থনৈতিক অঞ্চল উন্নয়ন বিষয়ক মতবিনিময়’ সভায় এসব কথা বলেন। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন। বেজার পরামর্শক কর্মকর্তা আব্দুল কাদেরের সঞ্চালনায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জিয়া আহমেদ সুমনের সভাপতিত্বে জেলা পরিষদ মিরসরাই অডিটোরিয়ামে আয়োজিত সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন বেজা সদস্য ড. এম এমদাদুল হক (অতিরিক্ত সচিব), চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ আতাউর রহমান, উপজেলা চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত) ইয়াছমিন আক্তার কাকলী, সমাপনী বক্তব্য রাখেন বেজা সদস্য হারুনুর রশিদ (অতিরিক্ত সচিব)।
প্রধান অতিথি গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বলেন, মিরসরাইয়ে ইকোনমিক জোন প্রতিষ্ঠার কারণে যদি কোনো ব্যক্তি কিংবা পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয় তাকে উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে। তবে আশা করি কোনো পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হবে না। ইকোনমিক জোন অঞ্চলে ৫টি লেক করা হবে। লেকগুলোর নাম দেয়া হবে শেখ হাসিনা সরোবর। এছাড়া বড়তাকিয়া থেকে ইকোনমিক জোন পর্যন্ত চার লেইন সড়ক হচ্ছে। চার লেইন সড়কের নাম রাখা হবে শেখ হাসিনা লেইন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন ইকোনমিক জোনে প্রথমে মিরসরাইবাসীর চাকরি হবে। পরে অন্য অঞ্চলের মানুষকে চাকরি দেয়া হবে। ভারত ১ হাজার ৫৪ একর জমির জন্য চুক্তি করার প্রস্তাব পাঠিয়েছে। এছাড়া সৌদি আরব, চীনসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ ইকোনমিক জোনে শিল্প কারখানা করার প্রস্তাব এসেছে। দেশের বিভিন্ন কোম্পানি ইতিমধ্যে জমির জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়েছে।