বার কাউন্সিল নির্বাচন

টানা দ্বিতীয়বারের মতো কর্তৃত্ব আওয়ামীপন্থিদের

নিজস্ব প্রতিবেদক

বার কাউন্সিল নির্বাচনে সাধারণ ও গ্রুপভিত্তিক উভয় ক্যাটাগরিতে আওয়ামীপনি’রা সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করলেও চট্টগ্রাম অঞ্চল থেকে সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন গ্রুপভিত্তিক ক্যাটাগরি থেকে বিএনপিপনি’ দেলোয়ার হোসেন। নির্বাচনে আওয়ামীপনি’ প্রার্থী ইব্রাহীম হোসেন চৌধুরী বাবুল ভোট পান ১ হাজার নয়শত ৩১টি এবং ১ হাজার নয়শত ৩৯টি ভোট পান দেলোয়ার হোসেন। নির্বাচিত দেলোয়ার হোসেন এর আগে একবার করে চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির সেক্রেটারি ও সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। প্রথমবারের মতো তিনি বার কাউন্সিলের সদস্য নির্বাচিত হন। বাবুল ও দেলোয়ার ছাড়াও এবারের নির্বাচনে চট্টগ্রাম অঞ্চল থেকে মূলধারার বাইরের আরও দুইজন প্রার্থী লড়েছিলেন কিন’ তাঁরা তেমন একটা সুবিধা করতে পারেননি। তাদের একজন আবদুর রহমান জাহাঙ্গীর। অন্যজন ফেরদৌস আহমেদ।
এদিকে ঐতিহ্যবাহী এই বার কাউন্সিল নির্বাচনে ভরাডুবি হয়েছে বিএনপি সমর্থিত আইনজীবীদের নীল প্যানেলের। সাধারণ ক্যাটাগরিতে একটি এবং অঞ্চলভিত্তিক ক্যাটাগরিতে একটিসহ মোট দুইটি পদে তাঁরা সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। অন্যদিকে নির্বাচনে টানা দ্বিতীয়বারের মতো কর্তৃত্ব ধরে রেখেছে আওয়ামী লীগ সমর্থিত সাদা প্যানেল। ১৪টি পদের মধ্যে ১২টি পদ পেয়ে সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করেছে সাদা প্যানেল। বিএনপিপনি’রা টানা দ্বিতীয়বারের মতো তাদের হারানো কর্তৃত্ব উদ্ধার করতে পারেনি। নির্বাচনে তাঁরা মাত্র দুইটি পদে জয় লাভ করে।
গত ১৪ মে সোমবার অনুষ্ঠিত এ নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা বজায় রেখে সাধারণ ক্যাটাগরির সাতটি পদের মধ্যে আওয়ামীপনি’ প্যানেল থেকে ছয়জন নির্বাচিত হয়েছেন। নির্বাচিতরা হলেন- বার কাউন্সিলের বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আব্দুল বাসেত মজুমদার, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুয়ায়ুন, মানবাধিকারকর্মী অ্যাডভোকেট জেড আই খান পান্না, আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট শ. ম. রেজাউল করিম, অ্যাডভোকেট সৈয়দ রেজাউর রহমান ও আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর মোহাম্মদ মোখলেছুর রহমান বাদল। সাধারণ ক্যাটাগরিতে বিএনপিপনি’ প্যানেল থেকে একমাত্র সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এ জে মোহাম্মদ আলী নির্বাচিত হন।
আদালতসূত্রে জানা যায়- গ্রুপভিত্তিক সাতটি
পদের মধ্যেও সংখ্যাগরিষ্ঠ আওয়ামীপনি’রা। চট্টগ্রাম অঞ্চল থেকে একমাত্র বিএনপি সমর্থিত নীল প্যানেল থেকে অ্যাডভোকেট মো. দেলোয়ার হোসেন চৌধুরী নির্বাচিত হয়েছেন। অন্যদিকে আওয়ামীপনি’রা গ্রুপ এ, গ্রুপ বি, গ্রুপ ডি, গ্রুপ ই, গ্রুপ এফ এবং গ্রুপ জি তে জয় লাভ করে। তাঁরা হলেন- অ্যাডভোকেট কাজী নজিবুল্লাহ হিরু, মো. কবির উদ্দিন ভূঁইয়া, এ এফ মো. রুহুল আনাম চৌধুরী, পারভেজ আলম খান, মো. ইয়াহিয়া এবং রেজাউল করিম মন্টু।
বাংলাদেশ লিগ্যাল প্র্যাকটিশনার্স অ্যান্ড বার কাউন্সিল অর্ডার ১৯৭২ অনুসারে প্রতি তিন বছরে একবার বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ১৫ সদস্যের কমিটির মাধ্যমে পরিচালিত হয় বার কাউন্সিল। উক্ত পনের জনের মধ্যে চৌদ্দ জন সদস্য নির্বাচনের মাধ্যমে বার কাউন্সিল পরিচালনার দায়িত্ব পান। তবে রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আইনি কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল পদাধিকার বলে বার কাউন্সিলের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন পান। যে কারণে এই পদটি ব্যতীত অবশিষ্ট ১৪ পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। পরে নির্বাচিত ১৪ সদস্যের মধ্যে থেকে সংখ্যাগরিষ্ঠতা ও মতামতের ভিত্তিতে একজনকে ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত করা হয়।
বিএনপিপনি’ আইনজীবী রেজাউল করিম রনি মনে করেন নির্বাচনে সততার জয় হয়েছে। তিনি আরও বলেন, চট্টগ্রাম অঞ্চল থেকে সদস্য পদে জয়ী দেলোয়ার হোসেন একজন সৎ ও যোগ্য ব্যক্তি। তাই তিনি জয় লাভ করেছেন।
আওয়ামীপনি’ আইনজীবী ও জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী সুপ্রভাতকে বলেন, আমরা ভোটারদের মন জয় করতে পারি নি। তাই আমাদের প্রার্থী হেরেছে। এটি আমাদের জন্য ব্যর্থতা।