জয়ে শুরু ঢাকার

সুপ্রভাত ক্রীড়া ডেস্ক

শিশির পড়া বল স্কিড করলো কিছুটা। দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে ব্যাটে বল এলো দ্রুত। শুরুর দিকে রাজশাহী কিংসের বোলিংও হলো এলোমেলো। তার সুবিধা তুলে নিলেন হজরতউল্লাহ জাজাই। তার টর্নেডো ইনিংসে লড়াইয়ের পুঁজি পেল ঢাকা ডায়নামাইটস। এরপর রুবেল হোসেনের দারুণ বোলিংয়ে রাজশাহীকে উড়িয়ে দিয়ে বিপিএল শুরু করেছে সাকিব আল হাসানের দল। খবর বিডিনিউজ’র।
মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে গতকালের দ্বিতীয় ম্যাচে ৮৩ রানে জিতেছে ঢাকা। ১৯০ রানের লক্ষ্য তাড়ায় রাজশাহী থেমে যায় ১০৬ রানে।
টস হেরে ব্যাট করতে নেমে জাজাই ও সুনিল নারাইনের ব্যাটে উড়ন্ত সূচনা পায় ঢাকা। শুরুর জুটিতে দুই বাঁহাতি ১০.৪ ওভারে যোগ করেন ১১৬ রান।
ইনিংসের প্রথম ওভারে মেহেদী হাসান মিরাজকে ছক্কা হাঁকান জাজাই। রাজশাহী অধিনায়কের পরের ওভার তুলে নিয়েছিলেন আরও তিনটি ছক্কা। পেস বোলিং অলরাউন্ডার আলাউদ্দিন বাবুকে ছক্কায় উড়ানোর পর টানা তিন বলে হাঁকান বাউন্ডারি।
২২ বলে পঞ্চাশ ছোঁয়ার পর ৫০ রানে হাফিজের বলে জীবন পান জাজাই। বেশ উপরে উঠে যাওয়া ক্যাচ গ্লাভসে নিতে পারেননি জাকির হাসান। খানিক পর নারাইনকে থামিয়ে বিপজ্জনক হয়ে উঠা জুটি ভাঙেন মোহাম্মদ হাফিজ।
দ্বাদশ ওভারে বোলিংয়ে ফেরা মিরাজকে আবার ছক্কা হাঁকান জাজাই। পরের বলে একই চেষ্টা করতে গিয়ে লং অনে সৌম্য সরকারের হাতে ধরা পড়েন এই বাঁহাতি ওপেনার। ৪১ বলে খেলা তার ৭৮ রানের ইনিংস গড়া ৭ ছক্কা ও চারটি চারে।
দুই ওপেনারের বিদায়ের পর দ্রুত ফিরেন কাইরন পোলার্ড, সাকিব ও নুরুল হাসান সোহান। ২০ রানের মধ্যে ৫ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় ঢাকা। কিছুটা ঘুরে দাঁড়ায় রাজশাহী।
ঠিকমতো টাইমিং করতে পারছিলেন না আন্দ্রে রাসেল। অফ স্পিনিং অলরাউন্ডার শুভাগত হোম চৌধুরী বাড়ান রানের গতি। অবিচ্ছিন্ন ষষ্ঠ উইকেটে রাসেলের সঙ্গে ২৮ বলে গড়েন ৫৩ রানের জুটি। শুভাগত ১৪ বলে করেন ৩৮ রান। রাসেল ১৯ বলে করেন ২১ রান।
বাঁহাতি স্পিনার আরাফাত সানি ২ উইকেট নেন ২৩ রানে।
রান তাড়ায় শুরু থেকে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারায় রাজশাহী। দায়িত্ব নিয়ে দলকে এগিয়ে পারেননি কেউ। গড়ে উঠেনি তেমন কোনো জুটি। সর্বোচ্চ দশম উইকেটে সানি ও মুস্তাফিজুর রহমানের ২৬। সাকিবকে উড়ানোর চেষ্টায় সীমানায় ধরা পড়েন মুমিনুল হক। রাসেলের বলে কট বিহাইন্ড হয়ে ফিরেন সৌম্য।
জাকিরকে বিদায় করার পর রুবেল তুলে নেন এক প্রান্ত আগলে রাখা হাফিজের উইকেট। পাকিস্তানের অভিজ্ঞ এই ওপেনার করেন ২৯ রান। এর বাইরে দুই অঙ্কে যান লরি ইভান্স এবং শেষ দুই ব্যাটসম্যান সানি ও মুস্তাফিজ। পেসার রুবেল ৩ উইকেট নেন ৭ রানে। তরুণ মোহর শেখ ২৪ রানে নেন দুটি। বিস্ফোরক ব্যাটিংয়ে সুর বেঁধে দেওয়া জাজাই জেতেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার।