জ্ঞানার্জনে শিক্ষার্থীরা জাতীয় সম্পদে পরিণত হবে

বিজ্ঞপ্তি

পোর্ট সিটি ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি’র স্প্রিং-২০১৮ ট্রাইমেস্টারে ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীদের নবীনবরণ বিশ্ববিদ্যালয় অডিটোরিয়ামে গতকাল শনিবার অনুষ্ঠিত হয়।
বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. নূরল আনোয়ার এর সভাপতিত্বে সকালে প্রধান অতিথি হিসেবে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)’র চেয়ারম্যান প্রফেসর আব্দুল মান্নান।
প্রধান অতিথি নবীন শিক্ষার্থীদের অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, নতুন প্রজন্মের একটি ভাল বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম পোর্ট সিটি ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি। বর্তমান যুগ মেধার যুগ। এখন আপনাকে তথ্যের বিশ্লেষণ করতে জানতে হবে। এই জানানোর কাজটা করবে বিশ্ববিদ্যালয়। আপনি কী শিখবেন সেটা বিশ্ববিদ্যালয় শেখাবে না, কীভাবে শিখবেন সেটাই শেখাবে বিশ্ববিদ্যালয়।
তিনি আরও বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় হলো শিক্ষার্থীদের মেধা শাণিত করার জায়গা। আর শিক্ষকদের কাজ হলো এক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের সহায়তা করা। শিক্ষকদের সান্নিধ্যে এসে শিক্ষার্থীরা জ্ঞানচর্চা করার মাধ্যমে জাতীয় সম্পদে পরিণত হবে।
বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক অ্যাডভাইজর প্রফেসর ড. এম. মুজিবুর রহমান বলেন, উচ্চশিক্ষার অন্যতম প্রাণকেন্দ্র পোর্ট সিটি ইনটারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি। এই বিশ্ববিদ্যালয় ইতোমধ্যেই আন্তর্জাতিক সেমিনারের আয়োজন করেছে।
সমাপনী বক্তব্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. নূরল আনোয়ার বলেন, আমরা পথ দেখাই। যারা নিয়ম শৃঙ্খলার মধ্যে থাকবে তারা পথে থাকবে। তাই সব শিক্ষার্থীকে নিয়ম শৃঙ্খলা মেনে পড়াশোনা করা উচিত।
স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মো. ওবায়দুর রহমান।
বক্তব্য রাখেন বিশ্বিবিদ্যালয়ের সায়ন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ডিন প্রফেসর ইঞ্জিনিয়ার মফজল আহমেদ, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. সেলিম হোসেন, বিভিন্ন বিভাগের সভাপতিবৃন্দ এবং নবীন শিক্ষার্থী।
অন্যান্যের মধ্যে উপসি’ত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা, জহির আহমেদ, ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য আহসানুল হক রিজন, আলী আজম স্বপন। অনুষ্ঠান প্রভাষক মোহাম্মদ ইশতিয়াক ও ফাহমিদা আক্তার।
নবীনবরণ অনুষ্ঠানে বেগম আশ্রাফুন্নেছা ফাউন্ডেশন থেকে ১২১ জন শিক্ষার্থীকে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে বৃত্তি প্রদান করা হয়। এছাড়া দ্বিতীয় পর্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হয় এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।