জীবন পেয়ে ওয়ার্নার স্মিথের বাধার দেয়াল

সুপ্রভাত ক্রীড়া ডেস্ক
অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি নাথান লায়ন দ্বিতীয় ইনিংসেও পাঁচ উইকেট লাভ করেন।  গতকাল বল হাতে মাঠ ছেড়ে যাওয়ার সময় সতীর্থ খেলোয়াড়রা তাকে অভিবাদন জানান
অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি নাথান লায়ন দ্বিতীয় ইনিংসেও পাঁচ উইকেট লাভ করেন। গতকাল বল হাতে মাঠ ছেড়ে যাওয়ার সময় সতীর্থ খেলোয়াড়রা তাকে অভিবাদন জানান

ক্যাচ এল শরীর সোজা। সরে গেলেন সৌম্য সরকার, বেঁচে গেলেন ডেভিড ওয়ার্নার। ইমরুল কায়েসের কছে ক্যাচ এলো সোজাসুজি। হাতে নিলেন, কিন্তু পারলেন না জমাতে। বাঁচলেন স্টিভেন স্মিথ। দুটি ক্যাচ ছেড়ে বাংলাদেশের হতাশা। এই দুজন টিকে গেলেন বলেই টিকে থাকল অস্ট্রেলিয়ার আশা। খবর বিডিনিউজ’র।
২৬৫ রানের লক্ষ্য দিয়ে শুরুতেই অস্ট্রেলিয়ার দুই উইকেট তুলে নিয়েছিল বাংলাদেশ। এরপর সুযোগ হাতছাড়া আর ওয়ার্নার-স্মিথের দৃঢ়তায় অস্ট্রেলিয়া হারায়নি আর কোনো উইকেট। দিন শেষ করেছে ১০৯ রান নিয়ে। শেষ দিনে অস্ট্রেলিয়ার চাই রান ১৫৬ রান, বাংলাদেশের ৮ উইকেট।
৭৫ রানে অপরাজিত ওয়ার্নার, উপমহাদেশে ১২ টেস্টে যেটি তার সর্বোচ্চ স্কোর। গত ভারত সফরে চার টেস্টে তিন সেঞ্চুরি করা স্মিথ অপরাজিত ২৫ রানে। অথচ ম্যাচ জয়ের কাজ অনেকটা এগিয়ে রাখত পারত বাংলাদেশ, যদি বোলাররা পাশে পেত ফিল্ডারদের। সাকিব আল হাসানের বলে স্লিপে ক্যাচ ছাড়লেন সৌম্য, ১৪ রানে বেঁচে গেলেন ওয়ার্নার।
রাউন্ড দা উইকেটে বল করে প্রথম ইনিংসে স্মিথকে বোল্ড করেছিলেন মিরাজ। এবারও বিপাকে ফেলেছিলেন রাউন্ড দা উইকেটে বল করেই। শূন্য রানেই হতে পারতেন স্টাম্পড। উদযাপন শুরু করেছিল বাংলাদেশ, ড্রেসিং রুমের দিকে হাঁটা দিয়েছিলেন স্মিথ। কিন্তু তাকে থামালেন আম্পায়ার। বারবার টিভি রিপ্লেদেখে তৃতীয় আম্পায়ার জানালেন, নট আউট। বেঁচে গেলেন মিলিমিটারের জন্য।
সেটির শেষ থাকতে থাকতেই স্মিথের জন্য বাংলাদেশের উপহার। আবার মিরাজ, সেই রাউন্ড দা উইকেট। এবার শর্ট লেগে ক্যাচ নিতে পারলেন না ইমরুল। কঠিন ছিল, তবে ম্যাচ জিততে হলো তো এগুলো ধরা চাই! স্মিথের রান তখন ৩।
তাদের মত ব্যাটসম্যান জীবন পেলে তা কাজে লাগানোরই কথা। ওয়ার্নার খেলেছেন তার মতোই। শুরু করেছিলেন ইনিংসের প্রথম ওভারেই মিরাজকে দুটি চার মেরে। পরেও রান বাড়ানোর কাজটি করে গেছেন দারুণভাবে।
উপমহাদেশে তার সেঞ্চুরি নেই একটিও। এগিয়ে যাচ্ছেন প্রথমের দিকে। ১১ চার ও ১ ছক্কায় করেছেন ৯৬ বলে অপরাজিত ৭৫। দারুণ খেলতে থাকা সহ-অধিনায়ককে সঙ্গ দিয়ে গেছেন অধিনায়ক। অবিচ্ছিন্ন জুটির রান হয়ে গেছে ৮১। বঞ্চিত দুই বোলারই শুরুতে হাসিয়েছিলেন বাংলাদেশকে। ম্যাট রেনশকে ফিরিয়ে প্রথম ব্রেক থ্রু এনে দিয়েছেন মিরাজ। উসমান খাওয়াজার উপমহাদেশ দু:স্বপ্ন দীর্ঘায়িত করেছেন সাকিব।
অনুপ্রেরণার একটি স্মৃতি অবশ্য এখনও বেশ টাটকা। গত অক্টোবরে এই মাঠেই ২৭৩ রান তাড়ায় ইংল্যান্ডের রান ছিল বিনা উইকেটে ১০০। সেখান থেকে এক সেশনেই ১০ উইকেট নিয়ে বাংলাদেশ ইংল্যান্ডকে গুটিয়ে দিয়েছিল ১৬৪ রানে। সেবার পারলে এবার কেন নয়!
সংক্ষিপ্ত স্কোর:
বাংলাদেশ ১ম ইনিংস: ২৬০
অস্ট্রেলিয়া ১ম ইনিংস: ২১৭
বাংলাদেশ ২য় ইনিংস: ২২১
অস্ট্রেলিয়া ২য় ইনিংস: (লক্ষ্য ২৬৫) ৩০ ওভারে ১০৯/২ (ওয়ার্নার ৭৫*, রেনশ ৫, খাওয়াজা ১, স্মিথ ২৫*; মিরাজ ১/৫১, নাসির ০/২, সাকিব ১/২৮, তাইজুল ০/১৭, মুস্তাফিজ ০/৮)।