জাতীয় শোক দিবসে বক্তারা তাঁর আদর্শকে হত্যা করা যাবে না

দেশগ্রাম ডেস্ক
Screenshot_2

গতকাল ছিল জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪২তম শাহাদাত বার্ষিকী। এ উপলক্ষে আয়োজিত বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, জাতির পিতাকে হত্যা করা হলেও তাঁর আদর্শকে হত্যা করা যাবে না।
কক্সবাজার
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪২তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস কক্সবাজারে গভীর শ্রদ্ধার সাথে পালিত হয়েছে। জেলা প্রশাসন, জেলা আওয়ামী লীগ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদসহ আওয়ামী লীগের বিভিন্ন অঙ্গসংগঠন ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জাতীয় শোক দিবস পালন করেছে। কর্মসূচির মধ্যে ছিল খতমে কোরআন, শোকর্যালি, পুষ্পস্তবক অর্পণ, আলোচনা সভা ও কাঙালি ভোজ।
জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বের হওয়া শোকর্যালিতে নেতৃত্ব দেন জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেন। র্যালিটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে এসে শেষ হয়।
এ সময় কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ চেয়ারম্যান লে. কর্নেল (অব.) ফোরকান আহমেদ, পুলিশ সুপার ড. এ কে এম ইকবাল হোসেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) কাজি মো. আবদুর রহমান ও স’ানীয় সরকার বিভাগের উপপরিচালক মো. আনোয়ারুল নাসের, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট খালেদ মাহমুদ, সহকারী কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেটবৃন্দ, জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা, সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের প্রধানগণ, মুক্তিযোদ্ধাসহ শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা উপসি’ত ছিলেন।
অন্যদিকে সকাল ১০টায় বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কক্সবাজার ইউনিটের উদ্যোগে খতমে কোরআন, আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
পরে কাঙালিভোজের আয়োজন করা হয়। জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ২০ হাজার মানুষের জন্য এক কাঙালিভোজ আয়োজন করা হয়। এছাড়া সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শোক দিবসের কর্মসূচি পালিত হয়েছে।
রাউজান
গতকাল সকালে রাউজান উপজেলা আওয়ামী লীগ যুবলীগ ছাত্রলীগের উদ্যোগে উপজেলা কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে খতমে কোরান ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।
পরে উপজেলা মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি কমপ্লেক্স ভবনের সামনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন উপজেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, উপজেলা পরিষদ, উপজেলা প্রশাসন। সকাল ১১ টায় উপজেলা পরিষদ হলে ও মাঠের একাংশে স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়।
স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসুচিতে ১ হাজার ব্যাগ রক্তদান করেন আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, মহিলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ত্রিশ হাজার লোককে মেজবান খাওয়ানো হয়।
পরে এবি এম ফজলে করিম চৌধুরী এমপির সভাপতিত্বে আলোচনা সভা অনুষ্টিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি নুরুল আলম চৌধুরী।
বিশেষ অতিথি ছিলেন এডভোকেট রানা দাশগুপ্ত, জেলা পুলিশ সুপার নুরে আলম মিনা, প্রকৌশলী শাহ আলম পাটোয়ারী, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ যুগ্ম সম্পাদক ইউনুছ গনি চৌধুরী, আওয়ামী লীগ নেতা মনজুরুল আলম চৌধুরী, উপজেলা চেয়ারম্যান এহসানুল হায়দার বাবুল, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামীম হোসেন রেজা, সহকারী কমিশনার জোনায়েদ কবির সোহাগ, উত্তর জেলা ছাত্রলীগর সভাপতি বখতেয়ার সাঈদ ইরান, সাধারণ সম্পাদক আবু তৈয়ব। আলোচনা সভায় উপসি’ত ছিলেন দিলু আরা ইউসুফ, কামাল উদ্দিন আহম্মদ, আনোয়ারুল ইসলাম, প্যানেল মেয়র বশির উদ্দিন খান, নুরুল আবছার, আইরুন নেছা নিলু, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফৌজিয়া খানম মিনা, রুবিনা ইয়াসমিন রুজি, নজরুল ইসলাম চৌধুরী, নুরুল ইসলাম শাহজাহান, স্বপন বড়-য়া, সংঘপ্রিয় বড়-য়া, শ্যামল পালিত, রবীন্দ্র লাল চৌধুরী, সুনীল চক্রবর্তী, আবদুল নবী, মুসলিম উদ্দিন জয়নাল, আলমগীর আলী, জসিম উদ্দিন চৌধুরী, জাফর আহম্মদ, সাইফুল ইসলাম চৌধুরী রানা প্রমুখ।
মিরসরাই : মিরসরাইয়ে জাতীয় শোক দিবস পালন করা হয়েছে। সকালে করেরহাট গনিয়াতুল উলুম আলিম মাদ্রাসা ছাত্রলীগের উদ্যোগে দোয়া, মিলাদ মাহফিল, কাঙালিভোজ ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
ছাত্রলীগ মাদ্রাসা শাখার সভাপতি নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক ইমাম হোসেনের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন করেরহাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এনায়েত হোসেন নয়ন, ফয়েজ কামাল, সুলতান গিয়াস উদ্দিন জসিম, মো. শেখ সেলিম, সাখাওয়াত উল্লাহ রিপন, এস এম আবুল হোসেন, অধ্যক্ষ শাহজাহান, ডা. জামাল উদ্দিন চৌধুরী।
উপসি’ত ছিলেন হেদায়েত উল্লাহ, আনোয়ার হোসেন রানা, গোলাম মর্তুজা, জহিরুল আলম, মো. সরোয়ার, তাইফ উদ্দিন, যুবলীগের সদস্য জাবেদ আহম্মদ, আরেফিন নাহিদ, অহিদুর রহমান সুমন, ইকবাল হোসেন ভূঁইয়া, কফিল উদ্দিন, জাহিদুল আলম, সালাউদ্দিন, আরিফ হোসেন, আমজাদ হোসেন সুজন, আশরাফুল আলম প্রমুখ।
অন্যদিকে চট্টগ্রাম বাস-মিনিবাস হিউম্যান হলার মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দ মঙ্গলবার সকালে শোকর্যালি বের করে।
এসময় চট্টগ্রাম জেলা হিউম্যান হলার বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির সভাপতি রফিক উদ্দিন, মিনিবাস-হিউম্যান হলার শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আরিফ মাসুদ, সহ-সম্পাদক মো. ইউসুফ, কোষাধ্যক্ষ আবু নাসের পিন্টুসহ শ্রমিকবৃন্দ উপসি’ত ছিলেন।
চন্দনাইশ
জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে দোহাজারী সড়ক বিভাগের উদ্যোগে খতমে কোরআন, মিলাদ মাহফিল, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সড়ক উপবিভাগ পটিয়ার উপবিভাগীয় প্রকৌশলী মো. সাখাওয়াত হোসেনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন নির্বাহী প্রকৌশলী মো. তোফায়েল মিয়া।
বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রকৌশলী তাহসিনা বিনতে ইসলাম, সহকারী প্রকৌশলী প্রবীর কুমার সাহা, কালিয়াইশ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মাস্টার মো. মহিউদ্দীন। বিশ্বজিৎ বড়-য়ার সঞ্চালনায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আবদুন নুর, মোক্তাদের মাওলা, বিমল কান্তি চৌধুরী, মো. শফিকুল ইসলাম, কুতুব উদ্দীন তালুকদার, আবদুল মোমেন, টোয়েন চাকমা, নাজিম উদ্দীন।
জুরাছড়ি

রাঙামাটির জুরাছড়ি উপজেলায় বিভিন্ন কর্মসূচির মধে দিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে সকাল সাড়ে আটটায় উপজেলা প্রশাসন, আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন, উপজেলা স্বাস’্য বিভাগ ও ভুবনজয় সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় পৃথক পৃথক শোক র্যালি বের করে। র্যালি শেষে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য দিয়ে শ্রদ্ধ নিবেদন করা হয়।
পরে উপজেলা প্রশাসনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ রাশেদ ইকবাল চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান উদয়জয় চাকমা, বিশেষ অতিথি ভাইস চেয়ারম্যান রিটন চাকমা, উপজেলা স্বাস’্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা বিপাশ খীসা, জুরাছড়ি, বনযোগীছড়া, মৈদং ও দুমদুম্যা ইউপি চেয়ারম্যানগণ, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. ইউসুফ সিদ্দিকী, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা তরুণ চাকমা, প্রধান শিক্ষক দীপ উজ্জল চাকমা, মো. মোরশেদুল আলমসহ সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তাগণ উপসি’ত ছিলেন।
সভায় বক্তারা বলেন, বঙ্গবন্ধুর কারণে আজ আমরা স্বাধীন সার্বভোমত্ব একটি শান্তিময় রাষ্ট্রে বসবাস করছি। অথচ ঘাতক-দালালরা জাতির পিতাসহ তার পরিবারে সদস্যদের নির্মমভাবে হত্যা করেছে। বক্তারা বঙ্গবন্ধুর হত্যার সাথে জড়িতদের বিচার করে জাতিকে কলঙ্কমুক্ত করার আহ্বান জানান।
এদিকে উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবসে র্যালি শেষে পার্বত্য জেলা পরিষদ বিশ্রামাগারে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় চেয়ারম্যান প্রবর্তক চাকমার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য জ্ঞানেন্দু বিকাশ চাকমা। অন্যদের মধ্যে সাধারণ সম্পাদক প্রমথ কান্তি চাকমা, মহিলা আওয়ামী লীগ সভানেত্রী মিতা চাকমা, ছাত্রলীগ সভাপতি রিকো চাকমাসহ ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতাকর্মীরা উপসি’ত ছিলেন।
জ্ঞানেন্দু বিকাশ চাকমা বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ঘাতকরা হত্যা করলেও তাঁর আদর্শকে হত্যা করা যাবে না। আজ তাঁর সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর আদর্শে লালিত হয়ে দেশে কৃষি, স্বাস’্য, যোগাযোগসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রেখেছেন।
বাঁশখালী
বাঁশখালী উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে জাতির পিতার শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। এতে পতাকা অর্ধনমিতকরণ, শোকব্যাচ ধারণ, চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা, রচনা প্রতিযোগিতা, আলোচনা সভাসহ বিবিধ অনুষ্ঠানসূচি ছিল। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মোহাম্মদ চাহেল তস্তরীর সভাপতিত্বে এবং উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. শহীদুল ইসলামের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সংসদ সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন পৌর মেয়র শেখ সেলিমুল হক চৌধুরী ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আব্দুর গফুর।
বক্তব্য রাখেন মো. আরিফুল হক মৃদুল, মো. আলমগীর হোসেন, শ্যামল দাশ, শেখ রেহেনা আক্তার কাজেমি, ডা. তৌহিদুল আনোয়ার প্রমুখ।
সাংসদ মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী বলেন, জাতির জনককে নির্মমভাবে সপরিবারে হত্যা করেছিল ঘাতকরা। আমাদের এই দুর্নাম খণ্ডন হবে সেদিন, যেদিন ঘাতকদের প্রত্যেকের ফাঁসি কার্যকর করতে পারব।
পটিয়া
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের খুনিদের জাতি চিরদিন ঘৃণা করে যাবে। বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে এদেশ স্বাধীন হতো না। কিন’ অতীব দুঃখের বিষয়, জাতির এই শ্রেষ্ঠ সন্তানকে পরিকল্পিতভাবে খুন করা হয়।
এসব খুনিদের বিচারের মুখোমুখি করতে হবে। জাতি খুনিদের চিরদিন ঘৃণা করে যাবে। সোমবার পটিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আয়োজিত মাসব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসেবে আলোচনা সভায় দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগ সভাপতি চেমন আরা তৈয়ব এ কথা বলেন।
রাশেদ মনোয়ারের সভাপতিত্বে ও নাসির উদ্দিনের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন এম, শামসুল হক, এম,এ জাফর, একেএম আবদুল মতিন চৌধুরী, মোহাম্মদ নাসির, জোবাইর আহমদ, এডভোকেট আবদুর রশিদ, মুক্তিযোদ্ধা কাজী আবু তৈয়ব, এডভোকেট মুজিবুল হক, সেলিম নবী, বদিউল আলম, দিদারুল আলম, মাজাহেরুল ইসলাম চৌধুরী, সিরাজুল ইসলাম, জয়নাল আবেদীন, ছৈয়দ নুরুল আবছার, মামনুর রশিদ তরফদার, সবুজ বড়-য়া, আশিষ তালুকদার প্রমুখ।
রাজস’লী
রাজস’লী উপজেলায় জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। এ লক্ষে সকাল ৯টায় উপজেলা চত্বরের র্যালি প্রদক্ষিণ করে।
শেষে উপজেলা পাবলিক হল কক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন ডা. রুইহ্লা অং মারমা। প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান অংনুচিং মারমা, বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি উবাচ মারমা, রাখাল চন্দ্র দাশ, এসএম মাহাবুবুল আলম।
সভায় বক্তরা বলেন, জাতির পিতার জন্ম না হলে আমরা বাংলাদেশ পেতাম না। আজ তিনি জীবিত নেই। কিন’ বাংলার মাটিতে তাকে খুঁজে পাচ্ছি সকল স’ানে। বক্তারা বলেন, দেশ স্বাধীনের বিপক্ষে পাকিস্তানের দালাল হিসেবে চিহ্নিত, তাদের সবাইকে সুষ্ঠু বিচারের মাধ্যমে শাস্তি দিতে হবে।
মো. আবু নাইম ভুইয়ার সঞ্চালনায় সভায় স্বাগতম বক্তব্য রাখেন মানসমুকুল চাকমা, সাংসদ প্রতিনিধি লংবতি ত্রিপুরা, পুচিংমং মারমা, ইউপি চেয়ারম্যান সুশান্ত প্রসাদ তঞ্চংগ্যা, প্রধান শিক্ষিকা স্নিগ্ধা চাকমা, অধ্যক্ষ উপানন্দ দাশ।