জমকালো কালেকশন ডল’স হাউসে

Doll's-House

ডল’স হাউসে এবারের ঈদ কালেকশনে রয়েছে মেয়েদের পোশাকের ছড়াছড়ি। বর্ষা ও গরম আবহাওয়া বিবেচনায় রেখে পোশাকে ব্যবহার করা হয়েছে সুতি, খাদি, মসলিন, হ্যান্ডি সিল্ক, লিনেন।। কাজের মধ্যে এপ্লিক, স্ক্রিন প্রিন্ট, হ্যান্ড কারচুপি ও মেশিন এমব্রয়ডারিই বেশি ব্যবহার করা হয়েছে।
ডল‘স হাউসের কর্ণধার ফ্যাশন ডিজাইনার আইভি হাসান জানান, আমি মূলত অর্ডার বেইজ কাজ করে থাকি। এবারে ঈদ ফ্যাশনে পোশাকে সুতিকে প্রাধান্য দিয়েছি। তাছাড়া ফ্যাশনের বর্তমান ট্রেন্ড লং গাউন, লং কোটি ও শর্ট কোটির দিকে বেশি নজর দিয়েছি আমরা। মূলত মধ্যবিত্ত শ্রেণির ক্রেতাদের কথা মাথায় রেখেই পোশাক তেরি করে থাকি। এবারের ঈদে ডল’স হাউসের বিশেষত্ব হলো- এবার আমরা পোশাকের ডিজাইনে প্রকৃতিকে প্রাধান্য দিয়েছি। পোশাকে দেশীয় ম্যাটারিয়াল ব্যবহার করেছি। আমাদের পোশাকে জ্যামিতিক নকশা থাকবে। প্রতি ঈদে আমি নতুন নতুন থিম পোশাকে প্রয়োগ করে থাকি।
তিনি জানান, ডল’স হাউসে পাঞ্জাবী ১০০০-২৫০০, শাড়ি (মুসলিম, সিল্ক, কাতান, তসর) ২০০০-১৫০০০, লং গাউন ৫০০০-১০০০০, সালোয়ার কামিজ ১০০০-১০০০০ ও লং কোটি ও শর্ট কোটি ৫০০০-১০০০০ টাকার মধ্যে পাওয়া যাবে।
বর্তমানে চট্টগ্রামে ফ্যাশন ডিজাইনের অবস্থা আগের চেয়ে ভালো হয়েছে বলে মনে করেন আইভি হাসান। চট্টগ্রামে ঈদ ফ্যাশন সম্পর্কে তিনি বলেন, চট্টগ্রাম ঈদে দুই ধরনের ক্রেতা লক্ষ্য করা যায়। এক ধরনের ক্রেতা ঈদের আগে পোশাক ক্রয় করে বা অর্ডার করে থাকে। অন্য ধরনের ক্রেতা রোজার মধ্যে পোশাক ক্রয় করে থাকে। তবে বর্ষার কারণে এখনো ঈদের কেনাকাটা পুরোদমে শুরু হয়নি।
ঠিকানা: ডল’স হাউস গ্যালারি, ১৬/এ, রোড নম্বর-২, এ-ব্লক, চান্দগাঁও আবাসিক এলাকা।