রিহ্যাব ফেয়ার

ছুটির দিনে জমজমাট

নিজস্ব প্রতিবেদক

ছুটির দিন শুক্রবার ও শনিবারকে টার্গেট করে বৃহস্পতিবার থেকে শুরম্ন হয় রিহ্যাব ফেয়ার।
গতকাল বিকেলের পর থেকে মেলায় ছিল দর্শনার্থীদের ভিড়। তবে এর আগে সকালে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা উপলড়্গেও ছিল প্রচুর দর্শনার্থী। সব মিলিয়ে ছুটির দিনটা দর্শনার্থীতে ছিল জমজমাট।
মেলায় ঘুরে দেখা গেছে, স্টলগুলো অনেক বড় এবং করিডোরও অনেক চওড়া। ফলে দর্শনার্থীরা সহজে ঘুরতে পারছে।
মেলায় ঢুকতেই র্যাডিসনের নিজস্ব একটি স্টল রয়েছে। যেখানে র্যাডিসন নিজেদের প্রমোশনার প্যাকেজ অফার করছে। ভেতরে প্রবেশ করেই চোখে পড়বে জুমায়রাহ হোল্ডিংসের স্টল। সেখানে দর্শনার্থীদের ভিড় দেখা যায়। দর্শনার্থীদের কেউ হাতে নিয়ে প্রতিষ্ঠানটি সুযোগ সুবিধা সম্বলিত প্রকল্প দেখেন। আর কেউবা কথা বলছেন কোন এলাকায় প্রকল্প রয়েছে। মেলায় দর্শনার্থীরা ঘুরে দেখেন কোন স্টলে কোন সুবিধা দিচ্ছে, কত ছাড় দিচ্ছে কোন প্রতিষ্ঠান। অনেকে ব্যাংক স্টলে কথা বলছেন লোন বিষয়ে। স্টলগুলোর দায়িত্বরত স্বেচ্ছাসেবকরা বুঝিয়ে দিচ্ছে কি সুবিধা দিচ্ছে তা, কখন নিলে কখন কত ছাড় দেওয়া হবে তা।
টিটু মলিস্নক এসেছে নববধূ নিয়ে, ঘুরে ঘুরে দেখেছেন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের স্টলগুলোতে। দেখছেন কে কোন ধরনের সুযোগ সুবিধা দিচ্ছে। টিটু বলেন, অনেক ভাল লেগেছে, একই ছাদের নিচে এতগুলো ডেভেলপার কোম্পানি। তবে তাদের নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই ভবনগুলোর নির্মাণ কাজ শেষ করতে পারলে আগামীতে এ মেলার প্রতি মানুষের আগ্রহ আরো বাড়বে। ঁ
মেলায় আসা এনজিও কর্মী শফিকুল ইসলাম তারেক বলেন, রিহ্যাব মেলায় আসার জন্য অনেক আগে থেকেই প্রস’তি নিচ্ছি। সারা বছর উপার্জন করে সঞ্চয় করেছি, এখন মেলায় আসলাম দেখছি। সুবিধা আর ভালো মানের পেলে হয়ে যাবে।
মেলা ঘুরে দেখা গেছে, সানমার, সিপিডিএল, ইকুইটি, জুমায়রাহ, ফিনলে, শেঠ প্রপার্টিজ, সিদরাত-সায়েদ ডেভেলপমেন্টের স্টলের দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভিড়।
রিহ্যাব চট্টগ্রাম জোনাল কমিটির চেয়ারম্যান আবদুল কৈয়ূম বলেন, ছুটির দিন হওয়ায় দর্শনার্থীদের ভিড় অনেক বেশি। তবে মেলায় এবার দর্শনার্থীরা স্বাচ্ছন্দে ঘুরতে পারছেন।
সিদরাত-সায়েদ ডেভেলপমার অ্যান্ড কনস্ট্রাকশন কোম্পানির এস এম শহিদুলস্নাহ বলেন, মেলার দ্বিতীয় শুক্রবার হওয়াতে মেলায় ভিড় বেড়েছে। অনেক আসছেন ঘুরছেন, অনেকে বুুকিং দিচ্ছেন। এছাড়াও মেলা উপলড়্গে মূল্যের ছাড় দেওয়া হচ্ছে। ৪২ কিসিত্মতে ফ্লাট ও ১৮ কিসিত্মতে দোকান দেওয়া হচ্ছে।
এদিকে মেলার দ্বিতীয় দিনে শিশুদের নিয়ে চিত্রাংকন প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। মেলায় ৭৬টি স্টলে অংশ নিয়েছে ৫৬টি প্রতিষ্ঠান।