দুই রাউন্ড গুলিসহ সেই বন্দুক উদ্ধার

ছাত্রলীগ নেতা সাব্বিরকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে চায় পুলিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক

গ্রেফতার হওয়া নগর ছাত্রলীগ নেতা সাব্বির ছাদেককে পাঁচ দিনের রিমাণ্ডে চায় মহানগর ডিবি পুলিশ। গত বুধবার রাতে কোতোয়ালি থানার রাজাপুকুর লেন এলাকা থেকে সাব্বিরকে গ্রেফতারের পর শুক্রবার ভোরে দুই রাউন্ড গুলিসহ সেই বন্দুকটিও উদ্ধার করা হয়েছে। গতকাল সন্ধ্যায় বিষয়টি সুপ্রভাতকে নিশ্চিত করেছেন নগর ডিবির অতিরিক্ত উপকমিশনার (উত্তর-দক্ষিণ) মো. কামরুজ্জামান।
ডিবির এ কর্মকর্তা জানান, উদ্ধার করা অস্ত্রের উৎস সম্পর্কে জানতে সাব্বির ছাদেককে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ প্রয়োজন। তাই তাকে পাঁচদিনের রিমান্ডে পেতে মহানগর হাকিম আদালতে আবেদন করা হয়েছে। রোববার (আজ) ওই আবেদনের উপর শুনানি অনুষ্ঠিত হওয়া কথা রয়েছে। এর আগে গত ১৯ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণাকে কেন্দ্র করে অস্ত্র হাতে গুলি ছুড়তে থাকা দুই যুবককে শনাক্ত ও একজনকে গ্রেফতার করে নগর ডিবি পুলিশ।
মুখে মাস্ক, হাতে একনলা বন্দুক থাকা যুবক সাব্বির ছাদেককে ১৯ সেপ্টেম্বর রাত ১০টার দিকে নগরের কোতোয়ালি থানার রাজাপুকুর লেন থেকে গ্রেফতার করে নগর গোয়েন্দা পুলিশ। সাব্বির নগর ছাত্রলীগের সহ সাধারণ সম্পাদক। শনাক্ত করা অপর যুবকের নাম আবু মোরশেদ। তিনি যুবলীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। ওইদিন সাদা শার্ট পরিহিত মোরশেদ রাইফেল উঁচিয়ে ফাঁকা গুলি ছোঁড়েন। আবু মোরশেদকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলে জানান ডিবি কর্মকর্তা মো. কামরুজ্জামান।
দলীয় সূত্র জানায়, সাব্বির ও আবু মোরশেদ দুজনই মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীনের অনুসারী হিসেবে পরিচিত। প্রসঙ্গত, গত ১৭ সেপ্টেম্বর রাতে ২৫ সদস্যের চট্টগ্রাম কলেজ শাখার কমিটি ঘোষণা করে নগর ছাত্রলীগ। এতে প্রয়াত নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর অনুসারী মাহমুদুল করিমকে সভাপতি এবং প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস’ানমন্ত্রী নুরুল ইসলামের অনুসারী সুভাষ মল্লিককে সাধারণ সম্পাদক করা হয়।
পরের দিন সকাল থেকে ওই কমিটি বাতিলের দাবিতে মাঠে নামেন মেয়র পক্ষের অনুসারীরা। প্রথম দিন তারা প্রায় তিন ঘণ্টা কলেজ রোড সড়ক অবরোধ করে। গত ১৯ সেপ্টেম্বর তাদের মিছিল থেকে দফায় দফায় ফাঁকা গুলি ছোড়ার ঘটনা ঘটে। এর আগে ২০১৭ সালের ১২ জুলাই চট্টগ্রাম কলেজে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের সময় সেলিম নামের যুবলীগ নামধারী এক সন্ত্রাসী অস্ত্র উঁচিয়ে ফাঁকা গুলি ছোড়েন। গণমাধ্যমে তার ছবি প্রকাশ হলেও আজও খোঁজ পায়নি পুলিশ।