চিটাগাং কেমিক্যাল কমপ্লেক্স চালু করতে উদ্যোগ নিন

সম্পাদকীয়

আমলাতান্ত্রিক ও আইনি জটিলতার কারণে সীতাকুণ্ড উপজেলার বাড়বকুণ্ডে অবসি’ত দেশের রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান চিটাগাং কেমিক্যাল কমপ্লেক্স (সিসিসি) চালু করা যাচ্ছে না। অথচ রাষ্ট্রায়ত্ত এই প্রতিষ্ঠানটি চালু করতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনাও রয়েছে। আমাদের পত্রিকায় এতদসংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।
এই রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠানটির ওপর বিরাষ্ট্রীয়করণের খড়গ নেমে আসে বিগত বিএনপি সরকারের আমলে। সেই সময় একটি বেসরকারি কেমিক্যাল উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের সাথে আঁতাত করে চিটাগাং কেমিক্যাল কমপ্লেক্সকে অলাভজনক দেখানো হয়। অনেক কর্মচারীকে ছাঁটাইও করা হয়। ৭ বছর বন্ধ থাকে এই প্রতিষ্ঠানটি। কারখানার যন্ত্রাংশে মরিচাও পড়ে। এই কারখানার উৎপাদিত পণ্যের মধ্যে রয়েছে কস্টিক সোডা, লিকুইড ক্লোরিন, হাইড্রোজেন এসিড, ব্লিচিং পাউডার, ক্যালসিয়াম হাইপো ইত্যাদি। দেশের ফার্টিলাইজার কারখানা, গ্যালভানাইজিং কারখানা, বিদ্যুৎ কেন্দ্র, সাবান কারখানা, পেপার মিল ইত্যাদিতে সরবরাহ করা ছাড়া পণ্য বিদেশেও রপ্তানি করা যেতো। এটি লাভজনক শিল্পপ্রতিষ্ঠান হিসেবে পরিচিতও ছিল। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকারের সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে তৎকালীন শিল্পমন্ত্রী দিলীপ বড়-য়া উৎপাদনে যেতে কারখানায় প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি সংযোজন ও অবকাঠামো উন্নয়নে আন্তর্জাতিক দরপত্র আহ্বান করতে বিসিআইসিকে নির্দেশ দেন। চতুর্থ দফা টেন্ডারে একটি চীনা প্রতিষ্ঠানকে এসব কাজ সম্পাদনে দায়িত্ব দেওয়া হয়। কয়েক দফা কাজ শেষ করতে সময়ও দেয়া হয়।
ইতিমধ্যে শিল্পপ্রতিষ্ঠানটি ১মাস পরীক্ষামূলক উৎপাদনে যেতে সক্ষম হয়েছে মর্মে আমাদের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস’াপনা পরিচালক জানিয়েছেন, আইনগত বিষয়ের সুরাহা হলে যথাসময়ে প্রতিষ্ঠানটি উৎপাদনে যাবে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ এ প্রতিষ্ঠান চালু করার ব্যাপারে আন্তরিক বলেও তিনি জানিয়েছেন। দেশের রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্পপ্রতিষ্ঠানগুলি নিয়ে অতীতে কোন সরকারই স্বচ্ছ প্রক্রিয়া অনুসরণ করেনি। নানা ধরনের আমলাতান্ত্রিক জটিলতা, অদক্ষতা, শ্রমিক অসন্তোষ, অতিরিক্ত জনবল নিয়োগ অর্থাৎ সুষ্ঠু ব্যবস’াপনার অভাবে অনেক লাভজনক প্রতিষ্ঠানও বেসরকারি মালিকানায় দিয়ে দেওয়া হয়েছে। আলোচ্য প্রতিষ্ঠানটি দীর্ঘদিন বন্ধ থেকেছে। আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে এটি চালু করার নির্দেশ থাকলেও নানা আমলাতান্ত্রিক ও আইনি জটিলতায় তা চালু করা যায়নি, এটি আমাদের প্রশাসনের ব্যর্থতা।
অর্থনীতি ও জাতীয় স্বার্থে প্রতিষ্ঠানটি দ্রুত চালু করা প্রয়োজন ছিল অনেক আগেই। আমরা মনে করি, সংশ্লিষ্ট কর্পোরেশন ও মন্ত্রণালয় চিটাগাং কেমিক্যাল কমপ্লেক্স চালু করতে দ্রুত প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে। আমাদের ভুলে যাওয়া উচিত নয় যে রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠানগুলি জাতীয় অর্থনীতির ভিত মজবুত করে।