সরকারি হাসপাতাল

চিকিৎসকদের হাজিরার তালিকা চায় হাই কোর্ট

সুপ্রভাত ডেস্ক

দেশের সব উপজেলা স্বাস’্য কমপ্লেক্সসহ সরকারি হাসপাতাগুলোতে চিকিৎসকদের উপসি’তি-অনুপসি’তির তালিকা আগামী ছয় মাসের মধ্যে হলফনামা আকারে দাখিল করতে নির্দেশ দিয়েছে হাই কোর্ট। স্বাস’্য সচিব, স্বাস’্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, স্বাস’্য অধিদপ্তরের মনিটরিং সেলের প্রধান ও সদস্য সচিবকে এ নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। খবর বিডিনিউজ।
একই সঙ্গে কর্মস’লে চিকিৎসকদের উপসি’তি নিশ্চিত করতে ২০১৩ সালে সরকারের গঠিত মনিটরিং সেলের নিষ্ক্রিয়তা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছে আদালত।
স্বাস’্য সচিব, জনপ্রশাসন সচিব, স্বাস’্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের (বিএমডিসি) সভাপতি, সম্পাদক, স্বাস’্য অধিদপ্তরের মনিটরিং সেলের সভাপতি ও সদস্য সচিবকে চার সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।
জনস্বার্থে করা এক রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি মো. আশরাফুল কামালের হাই কোর্ট বেঞ্চ রুলসহ এই আদেশ দেয়। আদালতে রিট আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী আব্দুল হালিম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একরামুল হক টুটুল।
আইনজীবী হালিম পরে বলেন, ‘দেশের বিভিন্ন উপজেলা স্বাস’্য কমপ্লেক্স-হাসপাতালে চিকিৎসকদের অনুপসি’তি নিয়ে বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন সংযুক্ত করে দুই সপ্তাহ আগে মানবাধিকার সংগঠন ব্লাস্ট এ রিট আবেদন দায়ের করে।
‘আজ সেটির প্রাথমিক শুনানি নিয়ে আদালত রুলসহ আদেশ দিয়েছে।’
এ আইনজীবী বলেন, ‘আবেদনে যে নির্দেশনা চাওয়া হয়েছিল সে অনুযায়ী স্বাস’্য সচিব, স্বাস’্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালকসহ সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, দেশের সব স্বাস’্য কমপ্লেক্স ও হাসপাতালে চিকিৎসকদের উপসি’তি-অনুপসি’তির তালিকা করে আগামী ৩০ এপ্রিলের মধ্যে হলফনামা আকারে দাখিল করতে।’
আগামী ৭ মে পরবর্তী শুনানির তারিখ রাখা হয়েছে বলেও জানান এই আইনজীবী।
সরকারি হাসপাতালগুলো, বিশেষ করে উপজেলা পর্যায়ে হাসপাতারগুলোতে চিকিৎসকদের অনুপসি’তি নিয়ে অভিযোগ বহুদিনের।
এ মাসেই দুইটি অনুষ্ঠানে খোদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।
গত ৭ অক্টোবর বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের চিকিৎসক সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী আক্ষেপ প্রকাশ করে বলেন, উপজেলা হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসকদের নতুন পদ সৃষ্টি এবং নিয়োগ দেওয়ার পরও সেখানে তাদের সেবা পাওয়া যাচ্ছে না।
‘যেখানে ৫০ বেডের একটা হাসপাতালে কমপক্ষে ১০ জন ডাক্তার থাকার কথা, কোথাও কোথাও একজন, কোথাও কোথাও খুব বেশি হলে চারজন। সেখানে কিন’ ডাক্তার থাকে না। মানুষ তাহলে সেবা পাবে কিভাবে? এটা আমার প্রশ্ন,’ বলেন শেখ হাসিনা।
তিনি আরো বলেন ‘পদ আমরা সৃষ্টি করে দিয়েছি। কিন’ সেখানে আমরা ডাক্তার পাই না।’
পরদিন বরিশালের শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজের সুবর্ণ জয়ন্তী উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী হাসপাতালে চিকিৎসক না থাকাকে ‘অত্যন্ত দুঃখজনক’ বলেন।
তিনি বলেন, ‘এমন এমনও জায়গা আছে, যেখানে অপারেশন থিয়েটার পড়ে আছে কিন’ অপারেশন করবার মত ডাক্তারও নেই, সার্জন নেই, নার্স নেই; এরকম একটা অবস’া। আমরা শুধু প্রতিষ্ঠান করে যাব, আর সেগুলো অবহেলিত থেকে যাবে এটা কিন’ হতে পারে না।’