সর্বত্র শোকের ছায়া

চলে গেলেন সিদ্দিক আহমেদ

নিজস্ব প্রতিবেদক

চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের স’ায়ী সদস্য, দৈনিক আজাদীর সাবেক সহকারী সম্পাদক, গবেষক ও প্রাবন্ধিক সিদ্দিক আহমেদ আর নেই। দীর্ঘদিন ধরে দুরারোগ্য ক্যান্সার রোগে আক্রান্ত বর্ষীয়ান এ সাংবাদিক গতকাল বুধবার সন্ধ্যা ৬টায় ঢাকার বঙ্গবন্ধু মেডিক্যাল হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তার বয়স হয়েছিল ৭১ বছর। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, তিন ছেলে, এক মেয়েসহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।
২৮ মার্চ অসুস’ সিদ্দিক আহমদকে চট্টগ্রামের বেসরকারি ম্যাক্স হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার অবস’ার অবনতি ঘটলে তাকে ঢাকার অ্যাপোলো হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়। পরে তাকে পিজি হাসপাতালের নেওয়া হয়।
আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৯টায় চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব প্রাঙ্গণে প্রথম নামাজে জানাজা এবং রাউজান গশ্চি হাইস্কুল মাঠে বেলা ১২টায় দ্বিতীয় নামাজে জানাজা শেষে তাকে পারিবারিক কবরস’ানে দাফন করা হবে বলে পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে।
সিদ্দিক আহমেদ চট্টগ্রামের সাংবাদিকতা জগতে নবীন-প্রবীণ সবার ‘বন্ধু’ হিসেবে পরিচিত ছিলেন। চট্টগ্রামের শিল্প-সাহিত্য ও সংস্কৃতি জগতের সবার কাছে প্রিয় মানুষ তিনি। সত্য প্রকাশে নির্ভীক ও সৎ সাংবাদিকতার একজন উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত সিদ্দিক আহমেদ।
সিদ্দিক আহমেদের জন্ম চট্টগ্রামের রাউজান উপজেলার গশ্চি গ্রামে ১৯৪৬ খ্রিস্টাব্দ ৩১ জুলাই তারিখে। তিনি বাষট্টির ছাত্র আন্দোলন ও ঊনসত্তরের গণআন্দোলনের একজন সক্রিয় কর্মী ছিলেন।
ছাত্র জীবনে ছাত্র ইউনিয়নের সঙ্গে যুক্ত সিদ্দিক আহমেদ ১৯৬৮ সাল থেকে ছিলেন সাহিত্যিক-সাংবাদিক রণেশ দাশগুপ্তের সান্নিধ্যে। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে সিদ্দিক আহমেদ সংগঠকের ভূমিকা পালন করেন। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর রাউজানে শিক্ষকতায় যুক্ত হন। এরপর কৃষি কাজ ও কৃষক আন্দোলনে যুক্ত ছিলেন। ১৯৯১ সাল থেকে সাংবাদিকতায় যুক্ত হয়ে ২০১৫ সালে পেশাগত জীবনের ইতি টানেন দৈনিক আজাদীর সহকারী সম্পাদক হিসেবে।
প্রবীণ এই সাংবাদিক চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন একুশে পদক, সিদ্দিক আহমেদ সম্মাননা স্মারক, উদীচী সম্মাননা, দুর্নিবার সম্মাননা, ইঞ্জিনিয়ার আবদুল খালেক ও মোহাম্মদ খালেদ ফাউন্ডেশন সম্মাননা, বৌদ্ধ একাডেমি সম্মাননা, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব সম্মাননা, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন সম্মাননাসহ নানা সম্মাননা পেয়েছেন।
তার উল্লেখযোগ্য প্রকাশিত গ্রন’সমূহ হচ্ছে- ‘কবিতার রাজনীতি’, ‘খোলা জানালায় গোপন সুন্দরবন’, ‘পিকাসো’, ‘আপেলে কামড়ের দাগ’, ‘কিছু মানবফুল’, ‘পৃষ্ঠা ও পাতা’, ‘জল ও তৃষ্ণা’ প্রভৃতি। এছাড়া তাকে নিয়ে বের হয়েছে দুটি স্মারক গ্রন’ও।
এদিকে প্রবীণ এই সাংবাদিকের মৃত্যুতে সর্বত্র নেমে এসেছে শোকের ছায়া। তার মৃত্যুতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও ছিল শোকের আবহ। সবাই তার অতীত কর্মকাণ্ড ও উপদেশ স্মরণ করার পাশাপাশি জানিয়েছেন শ্রদ্ধাও। কেউ কেউ তুলে ধরেছেন তার সাথে তোলা ছবি।
তার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন, চট্টগ্রাম সাংবাদিক হাউজিং কো-অপারেটিভ সোসাইটি, চট্টগ্রাম ফটোজার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ ফটোজার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন ও সংবাদপত্র কম্পিউটার্স অ্যাসোসিয়েশন চট্টগ্রাম।
শোক জানিয়েছেন প্রেস ক্লাব সভাপতি কলিম সরওয়ার ও সাধারণ সম্পাদক শুকলাল দাশ, সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি শহীদ উল আলম ও যুগ্ম মহাসচিব তপন চক্রবর্তী, চট্টগ্রাম সাংবাদিক হাউজিং কো-অপারেটিভ সোসাইটির সভাপতি মঈনুদ্দিন কাদেরী শওকত ও সাধারণ সম্পাদক মোরশেদ আলম, চট্টগ্রাম ফটোজার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মশিউর রেহমান বাদল ও সাধারণ সম্পাদক রাশেদ মাহমুদ, বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন চট্টগ্রামের সভাপতি মঞ্জুরুল আলম মঞ্জু ও সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান ও সংবাদপত্র কম্পিউটার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি হারুন-উর-রশিদ ও সাধারণ সম্পাদক রতন বিশ্বাস।
সাংবাদিক সিদ্দিক আহমেদের মৃত্যুতে আরো শোক প্রকাশ করেছেন- বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ও সাবেক রাষ্ট্রদূত গোলাম আকবর খোন্দকার, জেলা পরিষদের প্রশাসক এম এ সালাম, উদীচী চট্টগ্রাম জেলা সংসদের সভাপতি শহীদজায়া বেগম মুশতারী শফী ও সাধারণ সম্পাদক শীলা দাশগুপ্ত, খেলাঘর চট্টগ্রাম মহানগরী কমিটির সভাপতি ডা. একিউএম সিরাজুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী রূপক চৌধুরী, গণজাগরণ মঞ্চ চট্টগ্রামের সদস্যসচিব ডা. চন্দন দাশ, সমন্বয়কারী শরীফ চৌহান, সংগঠক সুনীল ধর ও আবৃত্তিশল্পী রাশেদ হাসান, চট্টগ্রাম একাডেমির মহাপরিচালক জিন্নাহ চৌধুরী, চট্টগ্রাম বিপ্লব ও বিপ্লবী স্মৃতি সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক আলমগীর সবুজ ও সদস্যসচিব মিঠুন চৌধুরী প্রমুখ।