কেন্দ্র দখলের চেষ্টা

চন্দনাইশ-পেকুয়ায় দুই পুলিশসহ গুলিবিদ্ধ ছয়

নিজস্ব প্রতিবেদক, প্রতিনিধি, চন্দনাইশ ও পেকুয়া

চন্দনাইশ উপজেলায় গতকাল সকালে ভোটগ্রহণ শুরু হওয়ার পর থেকে কয়েকটি কেন্দ্র দখলের চেষ্টা করে দূর্বৃত্তরা। সকাল সাড়ে ৯টার দিকে চন্দনাইশ পৌরসদরস’ পুর্ব চন্দনাইশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ব্যালটে সিল মারার সময় বাধা দিলে দুর্বৃত্তদের গুলিতে আহত হন দায়িত্বরত পুলিশের এস আই মোহাম্মদ শাহ আলম ও কনস্টেবল ফরহাদ হোসেন (২২)। গুলিবিদ্ধ শাহ আলমকে স’ানীয়ভাবে চিকিৎসা দেয়া হলেও কনস্টেবল ফরহাদকে প্রথমে চন্দনাইশ হাসপাতাল পরে চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। সেখানে তার অবস’া আশঙ্কাজনক হওয়ায় হেলিকপ্টারযোগে তাকে ঢাকার হৃদরোগ ইনস্টিটিউটে পাঠানো হয়েছে।
ঘটনার পর ওই কেন্দ্রে ৪০ মিনিট ভোট গ্রহণ বন্ধ ছিল। পরবর্তীতে পুনরায় ভোট শুরু হলে পৌনে ১টার দিকে দুর্বৃত্তরা আবারও গুলি ছুঁড়ে কেন্দ্র দখলের চেষ্টা করলে প্রশাসন ওই কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স’গিত করে। পৌনে ১টা পর্যন্ত ঁ
ওই কেন্দ্রে ৩৫০ ভোট গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানান ওই কেন্দ্রের সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার জাকির হোসেন। ব্যালটে সিল মারা থাকার অপরাধে ওই কেন্দ্রের ২ সহকারী প্রিসাইডিং অফিসারকে প্রত্যাহার করে আইনশৃংখলা বাহিনী। এরা হলেন মমতাজ উদ্দীন ও মোহাম্মদ আলম।
দুপুর আড়াইটার উত্তর বরকল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে দুর্বৃত্তরা ব্যালট পেপারে সিল ও ব্যালট পেপার ছিনতাই করার সময় আইন শৃংখলাবাহিনী বাধা দিলে দুর্বৃত্তদের সাথে হাতাহাতি হয়। এসময় বাহিনীর স্পেশাল ফোর্স আসলে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। এসময় কেন্দ্রটির ভোটগ্রহণ স’গিত করা হয়।
এদিকে বেলা সাড়ে ১১টার সময় দক্ষিণ জোয়ারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে সশস্ত্র একদল দুর্র্র্র্র্র্র্র্র্র্র্র্র্র্র্বৃত্ত ৬ রাউন্ড ফাঁকা গুলিবর্ষণ করে কেন্দ্রে ঢুকে ব্যালটে সিল মারা শুরু করে। এসময় দায়িত্বরত পুলিশের এএসআই তানভীর ও কনস্টেবল লোকমান বাধা দিলে তাদেরকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে। এসময় দায়িত্বরত স্পেশাল ফোর্স উপসি’ত হয়ে ২ রাউন্ড ফাঁকা গুলি করলে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। তবে ওই কেন্দ্রে কতটি ব্যালটে সিল মারা হয়েছে তা জানা যায়নি। সিল মারা ব্যালটগুলোকে বাতিল ভোট হিসেবে গণ্য করা হবে বলে জানান ওই কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার। এছাড়া আরো কয়েকটি কেন্দ্রে উত্তাপ ছড়ালেও আইনশৃংখলা বাহিনী তা প্রতিহত করেন।
এদিকে বেলা ১১টার দিকে আহত কনস্টেবল ফরহাদকে দেখতে চমেক হাসপাতালে আসেন চট্টগ্রামের পুলিশ সুপার নুরে আলম মিনা। এ সময় তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘ভোটকেন্দ্র দখল বা ব্যালট ছিনতাইয়ের চেষ্টা হলে জিরো টলারেন্স দেখানোর জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’
যেভাবে হোক নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হতে হবে সরকারের এমন নির্দেশনার কথা উল্লেখ করে এসপি মিনা বলেন, ‘দখলদাররা নৌকা মার্কার প্রার্থী নাজিম উদ্দিনের সমর্থক বলে স’ানীয়রা জানিয়েছেন। তবে আমরা তদন্ত করে দেখছি। যেসব সন্ত্রাসী এ ঘটনা ঘটিয়েছে তাদের আমরা ধরে ফেলব। অভিযান শুরু হয়েছে।’
আহত কনস্টেবলের তলপেটে গুলি লেগেছে জানিয়ে এসপি বলেন, চিকিৎসকরা বলেছেন ছোট একটা অপারেশন লাগবে। তবে সে (আহত কনস্টেবল ফরহাদ) শঙ্কামুক্ত।
পুলিশ জানায়, গতকাল রোববার সকালে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তৃতীয় ধাপে ভোট শুরুর দেড় ঘণ্টার মাথায় চন্দনাইশে ভোটকেন্দ্র দখল নিয়ে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের গুলিতে পুলিশ কনস্টেবল ফরহাদ হোসেন গুরুতর আহত হন।
পূর্ব চন্দনাইশ প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তা মো. মতিন স’ানীয় সাংবাদিকদের জানান, সকালে একটি পক্ষ জোর করে ব্যালটে সিল মারতে চেষ্টা করে। বিষয়টি পুলিশকে জানালে পুলিশ ঘটনাস’লে উপসি’ত হয়। এ সময় সংঘর্ষ বাধে। এতে পুলিশের এক সদস্য আহত হন। এরপর এ কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স’গিত করে দেয়া হয়েছে।
জেলা পুলিশের এক কর্মকর্তা জানান, রোববার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে চন্দনাইশ পৌরসভার পূর্ব চন্দনাইশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে নৌকার প্রতীকের প্রার্থী কে এম নাজিম উদ্দীনের সমর্থকরা জোর করে জাল ভোট দিতে চেষ্টা করে। এ সময় ভোটকেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তা তাদের বিরত করতে গেলে নৌকার সমর্থকরা মারমুখি হয়। প্রিসাইডিং কর্মকর্তাকে রক্ষায় এগিয়ে আসে পুলিশ। এ সময় উভয়পক্ষে সংঘর্ষ বাধে। সংঘর্ষে যোগ দেয় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী দোয়াত-কলম প্রতীকের আবদুল জব্বার চৌধুরীর সমর্থকরাও।
চন্দনাইশ সদর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার মোহাম্মদ ইসমাইল জানান তার কেন্দ্রে সকাল ১০টা ১৫ মিনিটের সময় ২শ ভোটগ্রহণ করা হয়েছে।
গাছবাড়িয়া নিত্যানন্দ গৌরচন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ব্যালটে সিল মারা অবস’ায় পাওয়ায় ওই কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার শাহ আলম ও সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার কহিনুর আকতার লিপিকে প্রত্যাহার করা হয়।
সাতবাড়িয়া বেপারীপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে গিয়ে প্রিসাইডিং অফিসার এসএম মুনির উদ্দীনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এই কেন্দ্রে মোট ভোটার ৪ হাজার ৩৪জন। ১টা ৩৫ মিনিটে পর্যন্ত ৬শ ভোটগ্রহণ করা হয়েছে। তিনি আরো জানান কেন্দ্র পরিদর্শনের সময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পদ্মাসিন সিংহ নৌকার প্রতীকের এজেন্ট জহিরুল আলম হিরুকে মোবাইল ব্যবহার করার অপরাধে আটক করে তাকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেন।
দোহাজারী জামিজুরী আহমদুর রহমান উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রিসাইডিং অফিসার মাওলানা মো. মোহছিন শহিদ ছিদ্দিকী জানান তার কেন্দ্রে শান্তিপুর্ণ ভোট অনুষ্ঠিত হয়।
দোহাজারী পৌরসভা কার্যালয় কেন্দ্রে ৩টা পর্যন্ত ৭শ ভোট গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানান ওই কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার মীর মোহাম্মদ ইমরান হোসেন।
পেকুয়া
পেকুয়ার মগনামা ইউনিয়নের দক্ষিণ মগনামা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র এলাকায় গোলাগুলির ঘটনায় চারজন গুলিবিদ্ধ হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। সকাল ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। গুলিবিদ্ধরা হলেন- আবুল হোছেন, ছাদেক, বদি ও রমিজ। তারা একই এলাকার বাসিন্দা। আহতদেরকে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
স্বতন্ত্র প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম অভিযোগ করেছেন, নৌকার প্রতীকে ভোট লুটের জন্য স’ানীয় চেয়ারম্যান শরাফত উল্লাহ ওয়াসিমের লোকজন এ ঘটনা ঘটিয়েছে। তবে স’ানীয়রা জানিয়েছেন, দু’পক্ষের মধ্যে এ সংঘর্ষ হয়েছে।
স’ানীয়রা জানিয়েছেন, কেন্দ্রের আধা কিলোমিটার দূরে রাতে রাস্তা কেটে দেয় দুর্বৃত্তরা। তাই সংঘর্ষ চললেও তাৎক্ষণিক ঘটনাস’লে যেতে পারেনি আইন-শৃঙ্খলাবাহিনীর লোকজন।
দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তা নুর আলম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, কেন্দ্রের বাইরে ধাওয়া পাল্টা ও গুলিবিদ্ধের ঘটনা ঘটেছে। তবে কেউ আহত হয়েছে কিনা জানা যায়নি।