চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় : অনলাইন ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু

চবি সংবাদদাতা
চবি ২০১৭-২০১৮ শিক্ষাবর্ষের অন-লাইনে আবেদন প্রক্রিয়ার উদ্বোধন করছেন উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী
চবি ২০১৭-২০১৮ শিক্ষাবর্ষের অন-লাইনে আবেদন প্রক্রিয়ার উদ্বোধন করছেন উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষে ১ম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) শ্রেণিতে ভর্তির অনলাইন আবেদন প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুর ২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিটি ভবনে অনলাইনে ভর্তির আবেদন কার্যক্রম উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী।
উপাচার্য বলেন, ‘প্রতিবারই ভর্তির আবেদন প্রক্রিয়া চলার সময়ে কিছু আসন বাড়ানো হয়। এ শিক্ষাবর্ষেও বৃদ্ধি করা হয়েছে। শিক্ষার্থীদের কষ্ট লাঘব ও আর্থিক সাশ্রয়ের বিষয়টি চিন্তা করেই ভর্তি কার্যক্রমে পরিবর্তন আনা হয়েছে।’
২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষে এ ইউনিটে ১৩৫৬, বি ইউনিটে ১৫৫৪, সি ইউনিটে ৭৫২, ডি ইউনিটে ১১৭০টি আসন রয়েছে।
প্রসঙ্গত, মঙ্গলবার দুপুর ২টা থেকে শুরু হওয়া অনলাইনে ভর্তির আবেদনপত্র পূরণ করা যাবে ৪ অক্টোবর রাত ১২টা পর্যন্ত। পরীক্ষার ফি জমা দেয়া যাবে ৫ অক্টোবর পর্যন্ত। এ বছর নতুন বিভাগসহ ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষে মোট ১৩৩টি আসন বৃদ্ধি করা হয়েছে। নতুন অনুমোদন প্রাপ্ত কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের অধীনে বাংলাদেশ স্টাডিজ বিভাগে ৫০টি সাধারণ আসন, সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের অধীন ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ ও ক্রিমিনোলজি অ্যান্ড পুলিশ সায়েন্স বিভাগে ৩০টি করে সাধারণ আসনে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে। অনলাইনে ভর্তির আবেদনপত্র পূরণ করা যাবে ৪ অক্টোবর রাত ১২টা পর্যন্ত। আর পরীক্ষার ফি জমা দেয়া যাবে ৫ অক্টোবর পর্যন্ত।
ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের অনলাইন আবেদন ফি রাষ্ট্রায়ত্ত জনতা, সোনালী, অগ্রণী ও রূপালী ব্যাংকের যেকোনো শাখায় ৪৭৫ টাকা আবেদন ফি এবং ব্যাংক অনলাইনের সার্ভিস চার্জ হিসেবে ৯০ টাকা জমা দিতে হবে।
চারটি ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা ২৬, ২৭, ২৮, ২৯ অক্টোবর যথাক্রমে সি, ডি, বি ও এ ইউনিটের পরীক্ষা সকাল ১০টা থেকে অনুষ্ঠিত হবে। বর্তমানে চালুকৃত অনলাইন পদ্ধতিতে শিক্ষার্থীরা বিষয়/ বিভাগ পছন্দ করার সুযোগ পাবে। এতে শিক্ষার্থীদের ক্যাম্পাসে স্বশরীরে সাক্ষাৎকারে উপস্থিত থাকার প্রয়োজন হবে না। শিক্ষার্থীর পছন্দ, ভর্তি পরীক্ষার মেধাক্রম ও ভর্তির যোগ্যতা বিবেচনায় এনে অটোমেশন পদ্ধতিতে বিষয়/ বিভাগ নির্ধারিত হবে।
এছাড়াও, অনলাইন আবেদন প্রক্রিয়ায় আবেদনকারী শিক্ষার্থীরা প্রতিটি ধাপের প্রামাণিক দলিল (যেমন টাকা জমার রশিদ, ফলাফল ইত্যাদি) পাবে। এদিকে বরাবরের মতো এবারও পরীক্ষা কেন্দ্রে ক্যালকুলেটর, মোবাইল ফোন বা টেলিযোগাযোগে সক্ষম কোনো ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস, যন্ত্র ও ঘড়ি সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ থাকবে। এছাড়া কোনো ধরনের অসদুপায় অবলম্বন করলে পরীক্ষা বাতিলসহ আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। জালিয়াতি ঠেকাতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালিত হবে।
উল্লেখ্য, ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষে ৪৭৯১টি আসনে ছাত্রছাত্রী ভর্তি করা হয়। ভর্তি কার্যক্রমের এ অনুষ্ঠানে জানানো হয়, নতুন শিক্ষাবর্ষে ৪টি ইউনিটের মাধ্যমে ৮টি অনুষদের অধীন ৪৬টি বিভাগ ও ৫টি ইন্সটিটিউটে ৪৯২৪টি আসনে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারবে। এর মধ্যে সাধারণ আসনে ৪১৮৯ ও কোটায় ৭৩৫টি আসন রয়েছে।