চট্টগ্রাম বন্দরের শুল্ক কার্যক্রম ব্যাহত সন্ধ্যায় সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টদের ধর্মঘট প্রত্যাহার

সুপ্রভাত ডেস্ক

শুল্ক কর্মকর্তাদের হয়রানি ও বৈষম্যমূলক আচরণের প্রতিবাদে চট্টগ্রাম বন্দরে অবস’ান ধর্মঘট করছেন সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট ও তাদের কর্মচারীরা। মঙ্গলবার সকাল ৯টা থেকে চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউস চত্বরে অবস’ান নিয়ে তারা বিড়্গোভ করছেন বলে চট্টগ্রাম সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের প্রথম যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কাজী মাহমুদ ইমাম বিলু জানিয়েছেন।

ধর্মঘটের কারণে বন্দরে শুল্ক বিভাগের কার্যক্রম এক প্রকার বন্ধ হয়ে পড়ে। সন্ধ্যা ছয়টা পর্যনত্ম চট্টগ্রাম কাস্টমসে কোনো বিল অব এন্ট্রি দাখিল হয়নি। তবে আগে দাখিল করা বিল অব এন্ট্রির আমদানি পণ্য খালাস ও রপ্তানি পণ্য জাহাজীকরণ হয়। সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট ও কর্মচারীদের ধর্ঘটের কারণে বুধবার থেকে বন্দরে পণ্য খালাসে সমস্যা হতে পারে বলে বন্দর সংশিস্নষ্ট কর্মকর্তারা জানান। কর্মসূচির বিষয়ে সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট মাহমুদ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টদের হয়রানি, চট্টগ্রামের আমদানিকারকদের প্রতি বৈষম্যমূলক আচরণ, কাস্টমসের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের পৃষ্ঠপোষকতা এবং সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট ও তাদের কর্মচারীদের প্রতি দুর্ব্যবহারেরপ্রতিবাদে আমরা এ অবস’ান কর্মসূচি পালন করেছি।

‘মিথ্যা ঘোষণায় পণ্য আমদানি ঠেকাতে সমপ্রতি সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টদের বিরম্নদ্ধে শাসিত্মর সুপারিশ করে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডে চিঠি দিয়েছেন চট্টগ্রাম কাস্টমস কমিশনার। আমদানিকারকদের অন্যায়ের দায়ভার সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টরা কেন নেবে- এটি অন্যায় ও অযৌক্তিক।’

এদিকে মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে চট্টগ্রাম কাস্টমস কর্তৃপড়্গের সাথে বৈঠকের পর কাজে ফিরে যাওয়ার ঘোষণা দেন সংগঠনের নেতারা। চট্টগ্রাম কাস্টমস কর্তৃপড়্গের আশ্বাসে অবস’ান ধর্মঘট কর্মসূচি প্রত্যাহার করেছে সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টস অ্যাসোসিয়েশন ও তাদের কর্মচারীরা।

কাজী মাহমুদ ইমাম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘চট্টগ্রাম কাস্টমস কমিশনারসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠকে আমাদের দাবিগুলো মানার ব্যাপারে আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।’ সে কারণে অবস’ান কর্মসূচিপ্রত্যাহার করে সন্ধ্যা থেকে কাজ শুরম্ন করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

এ বিষয়ে কাস্টমস কমিশনার ফখরম্নল আলম বলেন, তাদের দাবির বিষয়ে উভয়পড়্গের মধ্যে আলোচনা হয়েছে এবং এসব নিয়ে তাদের আশ্বসত্ম করা হলে সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টরা ধর্মঘট প্রত্যাহার করে কাজে ফিরে এসেছেন।