চট্টগ্রাম ওয়াসার মদুনাঘাট পানি সরবরাহ প্রকল্প প্রধানমন্ত্রীর জন্য অপেক্ষা

ভূঁইয়া নজরম্নল

চট্টগ্রাম ওয়াসার মদুনাঘাট পানি সরবরাহ প্রকল্প। হালদা নদীর পানি পরিশোধন করে দৈনিক ৯ কোটি লিটার পানি উৎপাদন হচ্ছে প্রকল্পটি থেকে। গত অক্টোবর থেকে পরীড়্গামূলকভাবে চালুর পর আগামী ২৪ ফেব্রম্নয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তা আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করার কথা রয়েছে। একইসাথে এই প্রকল্পের নাম ‘শেখ রাসেল পানি শোধনাগার প্রকল্প’ নামে ঘোষণারও কথা রয়েছে।
কর্ণফুলী পানি সরবরাহ প্রকল্পের দুই বছরের মধ্যে আরো একটি প্রকল্প চালু করেছে ওয়াসা। দিনে ৯ কোটি লিটার পানি পরিশোধন ড়্গমতার প্রকল্পটি মদুনাঘাট পানি সরবরাহ প্রকল্প নামে চলতে থাকলেও এর নতুন নাম ‘শেখ রাসেল পানি শোধনাগার প্রকল্প’। যদি আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন না হওয়ায় এখনো এই নাম উন্মোচিত করা হয়নি। আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন বিষয়ে চট্টগ্রাম ওয়াসার ব্যবস’াপনা পরিচালক প্রকৌশলী এ কে এম ফজলুলস্নাহ বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনের তালিকায় রাখার জন্য মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন শেষে তা প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী দেশে এলেই এ বিষয়ে চূড়ানত্ম সিদ্ধানত্ম জানা যাবে।’
তবে যদি উদ্বোধনের তালিকায় পাওয়া না যায় তাহলে কি করা হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা নিজেরাই প্রকল্পের নামফলক লাগিয়ে দিতে পারি। অনেক আগেই নামের অনুমোদন পাওয়া গেছে। আমরা এতোদিন প্রধানমন্ত্রীকে দিয়ে উদ্বোধনের অপেড়্গায় ছিলাম।
এদিকে গত অক্টোবর থেকে পরীড়্গামূলকভাবে চালুর পর নভেম্বর থেকে দিনে ৯ কোটি লিটার পানি ওয়াসার প্রধান লাইনে সরবরাহ করা হচ্ছে প্রকল্পটি থেকে। এসব পানি কোন এলাকায় যাচ্ছে জানতে চাইলে ওয়াসার প্রকৌশলীরা জানান, বহদ্দারহাট, চান্দগাওঁ, বাকলিয়া, কল্পলোক আবাসিক এলাকা, চকবাজার, আন্দরকিলস্না, চাক্তাই, খাতুনগঞ্জ, ফিরিঙ্গীবাজার, পাথরঘাটা, আলকরণ, সদরঘাট, স্ট্যান্ড রোড, মাদারবাড়ি প্রভৃতি এলাকায় সরবরাহ করা হচ্ছে। এসব এলাকায় এতোদিন আয়রনযুক্ত পানি পাওয়া যেতো। মদুনাঘাট প্রকল্পটি চালু হওয়ার পর এখানে আর আয়রনযুক্ত পানি সরবরাহ করা হচ্ছে না।
হাটহাজারীর মদুনাঘাটে হালদা নদীর পানি পরিশোধন করে ১৯৯৮ সালে এ প্রকল্পটি থেকে দৈনিক সাড়ে চার কোটি লিটার পানি উৎপাদনের কথা থাকলেও ২১ বছর পরে এসে তা রূপানত্মরিত হচ্ছে ৯ কোটি লিটারে। বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে চিটাগাং ওয়াটার সাপস্নাই ইমপ্রম্নভমেন্ট অ্যান্ড স্যানিটেশন প্রকল্পের আওতায় এক হাজার ৭৮ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রকল্পটি বাসত্মবায়ন করা হয়েছে। এই প্রকল্পের আওতায় মদুনাঘাট পানি সরবরাহ প্রকল্প বাসত্মবায়ন এবং নগরীতে পাইপ লাইন স’াপন ও স্যানিটেশন প্রকল্পও রয়েছে।
উলেস্নখ্য, হালদা নদীর পানি পরিশোধন করে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে এক হাজার ৭৮ কোটি টাকা ব্যয়ে বাসত্মবায়ন হচ্ছে চিটাগাং ওয়াটার সাপস্নাই ইমপ্রম্নভমেন্ট এন্ড স্যানিটেশন প্রকল্পটি। এই প্রকল্পের একটি অংশ হলো হাটহাজারি মদুনাঘাট পানি সরবরাহ প্রকল্প। এছাড়া নগরীতে পাইপ লাইন স’াপন ও স্যানিটেশন প্রকল্পও রয়েছে এর আওতায়। মদুনাঘাট পানি সরবরাহ প্রকল্পটি ১৯৯৮ সালে কোরিয়ান সরকারের অর্থায়নে বাসত্মবায়নের কথা ছিল, কিন’ সর্বনিম্ন দরদাতাকে কাজ না দেয়া এবং পরবর্তীতে মামলা করার কারণে সেইসময় তা বাতিল হয়ে যায়। আর তা বাতিল হয়ে যাওয়ার পর ২০১১ সালে নতুন করে এ প্রকল্পে অর্থায়ন করে বিশ্বব্যাংক। ১৯৯৮ সালে দিনে সাড়ে চার কোটি লিটার পানি পরিশোধন করার কথা ছিল, তবে এখন এর উৎপাদন ড়্গমতা দ্বিগুণ করা হয়।