চকরিয়ায় বনাঞ্চলের পাহাড় কেটে সাবাড়

এম. জিয়াবুল হক, চকরিয়া

চট্টগ্রাম দক্ষিণ বন বিভাগের চুনতী রেঞ্জের অধীন কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার বরইতলী বনবিটের বানিয়ারছড়া এলাকায় প্রকাশ্যে চলছে রিজার্ভ বনাঞ্চলের পাহাড় কাটার মহোৎসব।
প্রায় একমাস ধরে একটি মহল এভাবে মাটি কেটে পাহাড়ি এলাকা সমতল ভূমিতে পরিণত করে এলেও রহস্যজনক কারণে বনকর্মীরা রয়েছেন দর্শকের ভূমিকায়।
তবে ঘটনাটি বনবিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানানো হলে বৃহস্পতিবার বিকালে অভিযান চালিয়ে মাটি কাটার কাজে ব্যবহৃত একটি স্কেভেটর আটক করেছেন বনকর্মীরা।
অভিযানের সত্যতা নিশ্চিত করে চুনতী রেঞ্জ কর্মকর্তা মিজানুর রহমান বলেন, ‘বরইতলী বনবিটের অধীন বানিয়ারছড়া এলাকায় রিজার্ভ বনাঞ্চলের পাহাড় কাটার খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার বিকালে সেখানে অভিযান পরিচালনা করা হয়। পরে ঘটনাস’ল থেকে মাটি কাটার কাজে ব্যবহৃত একটি স্কেভেটর জব্দ করা হয়।’
তিনি বলেন, এ ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে বন আইনের সংশ্লিষ্ট ধারায় মামলা দায়ের করা হচ্ছে।
স’ানীয় সূত্রে জানা গেছে, চকরিয়া পৌরসভার জনতা মার্কেট এলাকার বাসিন্দা শফিকুল ইসলাম ওরফে শফি সওদাগর অনেক বছর আগে উপজেলার বরইতলী বনবিটের বানিয়ারছড়া এলাকায় বিপুল পরিমাণ বনভূমি দখলে নিয়েছেন। গত এক মাস আগে থেকে অভিযুক্ত ওই ব্যক্তি দখলে রাখা এসব বনভূমির পাহাড় স্কেভেটর দিয়ে কেটে সমতল করে আসছেন। অভিযোগ উঠেছে, পাহাড় কেটে সমতল করে অভিযুক্ত ওই ব্যক্তি সেখানে স’াপনা নির্মাণ ও মৎস্য প্রকল্প তৈরি করছেন।
তবে অভিযোগ অস্বীকার করে অভিযুক্ত শফিকুল ইসলাম স’ানীয় সাংবাদিকদের বলেন, তিনি যেখানে মাটি কাটছেন, সেখানে বনভূমি বা পাহাড় নেই। নিজের নামে কেনা বিএস খতিয়ানভুক্ত সমতল জায়গা থেকে মাটি কেটে তা চাষের উপযোগী করছেন মাত্র।
উপজেলার বরইতলী বনবিটের আবুল কাসেম জানিয়েছেন, জায়গাটি বরইতলী বনবিটেরই অধীন। কিন’ অভিযুক্ত শফিকুল ইসলাম সেখানে তার ৫ একর জমি আছে বলে দাবি করছেন। বিষয়টি সমাধানকল্পে চট্টগ্রামে ডিএফও অফিসে বৈঠক করার কথা থাকলেও তিনি (অভিযুক্ত শফিকুল) তা না করে সেখানে মাটি কেটে যাচ্ছেন।