চকরিয়ায় গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ

নিজস্ব প্রতিনিধি, চকরিয়া

চকরিয়ায় বসতঘরের চালার বিমের সাথে ঝুলন্ত অবস’ায় নয়ন মনি রোহানা (২৫) নামের গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করেছে চকরিয়া থানা পুলিশ। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে উপজেলার ডুলাহাজারা ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের রংমহল এলাকার বসতবাড়ি থেকে তার লাশটি উদ্ধার করা হয়।
গৃহবধূর মৃত্যুর ঘটনাটি শ্বশুর বাড়ির লোকজন গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছে দাবি
করলেও বাবার বাড়ির লোকজনের অভিযোগ- তাকে পরিকল্পিত হত্যা করে লাশ বসতঘরের চালার বিমের সাথে ঝুলে রাখা হয়েছে।
এদিকে গৃহবধূর ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন ডুলাহাজারা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল আমিন।
স’ানীয় লোকজন জানান, ডুলাহাজারা ইউনিয়নের রংমহল এলাকার আবদুল গফুর মিস্ত্রীর ছেলে রমজান আলীর সাথে প্রেমের সম্পর্কের জেরে দুই পরিবারের সম্মতিক্রমে প্রায় সাত বছর আগে বিয়ে হয় একই ইউনিয়নের উলুবনিয়া গ্রামের শাহাব মিয়ার মেয়ে নয়ন মনি রোহানার সাথে। বিয়ের পর তাদের সংসার স্বাভাবিকভাবে চলছিল। বর্তমানে তাদের ঘরে ৬ বছর বয়সী একটি ছেলেসন্তান রয়েছে।
রোহানার স্বজনরা জানান, কয়েকমাস ধরে স্বামী রমজান আলী মাছ ব্যবসার কাজে পটিয়ায় স্ত্রী ও ছেলেকে নিয়ে ভাড়া বাসায় বসবাস করতেন। ওখানে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে মনোমালিন্য হয়। এ কারণে স্বামী রোহানাকে মারধর করতেন। গত দু’দিন আগে স্ত্রী রোহানা পটিয়ার ভাড়া বাসা থেকে স্বামীর সাথে রাগ করে বাবার বাড়ি চকরিয়া উপজেলার ডুলাহাজারা ইউনিয়নের উলুবনিয়ায় উদ্দেশে বের হয়। আসার সময় খবর পেয়ে তার পথ আটকায় শ্বশুর গফুর মিস্ত্রী। এক পর্যায়ে ওইসময় রোহানাকে তার শ্বশুর বলেন, বাড়ি আসলে তার ছেলের উপযুক্ত বিচার করবে। এই আশ্বাসে পুত্রবধূকে পুনরায় শ্বশুড় বাড়ি রংমহলে নিয়ে আসেন।
স্বজনরা দাবি করেন, গত বুধবার পটিয়া থেকে বাড়ি ফিরে স্বামী রমজান আলী তাকে না বলে পটিয়ার ভাড়া বাসা থেকে চলে আসার কারণ জানতে চান স্ত্রীর রোহানার কাছে। এক পর্যায়ে বিষয়টি নিয়ে দুইজনের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এরই জেরে স্ত্রীকে পুনরায় মারধর করে স্বামী রমজান। ঘটনার খবর পেয়ে পুত্রবধূকে মারধরের দায়ে ছেলে রমজান আলীকেও পেটায় তার বাবা গফুর ।
শ্বশুর বাড়ির লোকজন জানান, বুধবার রাতে রোহানা ৬ বছরের ছেলেকে নিয়ে বসতঘরের কক্ষে একা দরজাবন্ধ করে ঘুমিয়ে পড়ে। পরদিন বৃহস্পতিবার সকালে ঘুম থেকে না উঠার কারণে পরিবারের সবাই বাইর থেকে অনেক ডাকাডাকি করে। এক পর্যায়ে ঘরের কক্ষের দরজা ভেঙে ভেতরে ঝুলন্ত অবস’ায় রোহানার মৃতদেহ দেখতে পায়। তাৎক্ষণিক বাড়ির লোকজন ঘটনাটি স’ানীয় ইউপি সদস্য নুর নেওয়াজ বেগম ও জসিম উদ্দিনকে জানান। তারা বিষয়টি থানা পুলিশে খবর দেয়।
গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে চকরিয়া থানার এসআই জুয়েল চৌধুরীসহ পুলিশের একটিদল ঘটনাস’লে পৌঁছে বসতঘরের চালার তীরে (বিম) ঝুলন্ত অবস’া থেকে গৃহবধূ রোহানার মৃতদেহটি উদ্ধার করেন।
চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, লাশটি উদ্ধারের পর সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি শেষে ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। উদ্ধারের সময় লাশের দুই পায়ে কালচে দাগ দেখা গেছে। অভিযোগ পেলে পরবর্তী আইনগত ব্যবস’া নেওয়া হবে।