চকরিয়ায় খতিয়ান জালিয়াতির অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিনিধি, চকরিয়া

কক্সবাজারের চকরিয়ায় একটি সংঘবদ্ধ চক্রের বিরুদ্ধে খতিয়ান জালিয়াতির অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগে জানা যায়, সংশ্লিষ্ট ভূমি বিভাগের কতিপয় লোকজনের সহায়তায় অনেকের ভোগদখলীয় বেশ কিছু জায়গা রেকর্ডভুক্ত করে নিয়েছে সংঘবদ্ধ চক্রটি। এ ঘটনায় ইতোমধ্যে কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) ও উপজেলা সহকারি কমিশনারের (ভুমি) কাছে নালিশি মামলা করেছে ক্ষতিগ্রস্ত পক্ষের মৃত সাবের আহমদের ছেলে নিজাম উদ্দিন ও মৃত ছিদ্দিক আহমদের ছেলে সাব্বির আহমদ গং। তাদের বাড়ি চকরিয়া পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের দক্ষিণ ফুলতলা গ্রামে।
মামলার আর্জিতে বাদিপক্ষ জানিয়েছেন, উপজেলার লক্ষ্যারচর মৌজার বিএস ২৩৯ নম্বর খতিয়ানের জায়গার মালিক ছিদ্দিক আহমদ মারা গেলে অভিযোগকারী ওয়ারিশরা মালিক হন। ইতোমধ্যে বাদিপক্ষের সাব্বির আহমদ হিস্যায় রেকর্ডমতে ও ১৯৯৪ সালের ১০ মার্চ ৯২৫ নম্বর রেজিস্ট্রি দলিলমুলে রের্কডীয় সমন খাতুনের কাছ থেকে প্রাপ্ত হয়ে ছয় গন্ডা এক কড়া জায়গা মালিক হিসেবে বৈধভাবে ভোগদখলে নেন।
মামলার আর্জিতে বাদি সাব্বির আহমদ জানান, তাঁর নামের জায়গার বিপরীতে তিনি একটি জমাভাগ খতিয়ান সৃজন করতে কিছুদিন আগে উপজেলা ভুমি অফিসে যান। তিনি সেখানে কাগজপত্র তল্লাশি করে দেখতে পান অভিযুক্ত মৃত আহমদ কবিরের স্ত্রী মেহেরুন্নিছা গং তাদের ওয়ারিশি প্রাপ্য জায়গা অনুযায়ী খতিয়ান না করে কৌশলে অতিরিক্ত জায়গা নিজেদের অনুকুলে নিয়ে একটি নতুন খতিয়ান (নম্বর ৩৪৪০) করেন। ফলে বাদিপক্ষ হয়রানির স্বীকার হন।
মামলার বাদি সাব্বির আহমদের ছেলে নুরুল আবছার চকরিয়া প্রেসক্লাবে এসে সাংবাদিকদের জানান, খতিয়ান জালিয়াতির এ ঘটনায় তাঁর বাবাসহ পরিবারের দুই সদস্য ইতোমধ্যে কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসকের (রাজস্ব) কাছে একটি রিভিউ মামলা (নম্বর-১৫/১৭) ও চকরিয়া উপজেলা সহকারি কমিশনারের (ভুমি) কাছে অপর একটি মামলা করেন।