গৃহকর আজ আবারও সমাবেশের ডাক বাড়িমালিকদের

নিজস্ব প্রতিবেদক

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) পঞ্চবার্ষিকী কর পুনর্মূল্যায়ন বাতিলসহ চার দফা দাবিতে আবারও সমাবেশের ডাক দিয়েছে বাড়ি মালিকদের সংগঠন ‘চট্টগ্রাম করদাতা সুরক্ষা পরিষদ’। চার দফা দাবিতে সংগঠনটি নগরীতে আজ শুক্রবার জুমা নামাজের পর দুটি সমাবেশ করবে। এর মধ্যে একটি সমাবেশ আগ্রাবাদ এক্সেস রোড এবং অন্য সমাবেশটি ইপিজেড মোড়ে অনুষ্ঠিত হবে। একই সাথে চসিকের দশটি ওয়ার্ডে বিক্ষোভ মিছিলও করবেন সংগঠনটির নেতৃবৃন্দ। এর আগে এই দশটি ওয়ার্ড কাউন্সিলর কার্যালয় ঘেরাও কর্মসূচি পালন করেছিল সংগঠনটি।
সংগঠনটির দাবিগুলো হচ্ছে- চসিকের পঞ্চবার্ষিকী কর পুনর্মূল্যায়ন বাতিল করা, ভাড়ার পরিবর্তে ইমারতে ধরনের ভিত্তিতে গৃহকর নির্ধারণ করা, এসেসমেন্ট চলাকালে সংঘটিত দুর্নীতির তদন্ত করা এবং অবিলম্বে ভাঙা রাস্তাঘাট সংস্কার করা।
সংগঠনটির নেতৃবৃন্দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, আজ শুক্রবার জুমা নামাজের পর দশটি ওয়ার্ডে খণ্ড খণ্ড বিক্ষোভ মিছিল করবে বাড়ি মালিকগণ। ওয়ার্ডগুলো হলো- জালালাবাদ, উত্তর আগ্রাবাদ, দক্ষিণ আগ্রাবাদ, উত্তর পাঠানটুলি, পশ্চিম মাদারবাড়ি, পাঠানটুলি, গোসাইল ডাঙ্গা, মধ্যম হালিশহর, উত্তর হালিশহর ও দক্ষিণ-মধ্যম হালিশহর ওয়ার্ড। পরবর্তীতের দুপুর দুইটায় উত্তর-আগ্রাবাদ ওয়ার্ডের এক্সেস রোডে একটি সমাবেশ এবং দুপুর তিনটায় ইপিজেড বে শপিং সেন্টারের সামনে আর একটি সমাবেশ করবেন তারা।
‘করদাতা সুরক্ষা পরিষদ’র মুখপাত্র হাসান মারুফ রুমি সুপ্রভাত বাংলাদেশকে জানান, আগামীকালের (শুক্রবার) বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশের পর আগামী রোববার চসিকের আরো দশটি ওয়ার্ড কার্যালয় ঘেরাও এবং কাউন্সিলরদেরকে স্মারকলিপি প্রদান কর্মসূচি পালন করা হবে। সেই দশটি ওয়ার্ড হলো- রামপুর, এনায়েত বাজার, চকবাজার, উত্তর পাহাড়তলী, দক্ষিণ পাহাড়তলী, সরাইপাড়া, উত্তর কাট্টলী, দক্ষিণ কাট্টলি, লালখান বাজার ও বাগমনিরাম ওয়ার্ড।
কর পুনমূল্যায়নের আপিলে সময় বাড়ানো, আদালত কর্তৃক রিট খারিজ হওয়া, আপিলে সন’ষ্ট না হলে বিভাগীয় কমিশনারের কাছে যাওয়ার সুযোগ থাকতেও আন্দোলন কেন জানতে চাইলে হাসান মারুফ রুমি বলেন, ‘গৃহকর নির্ধারণের পদ্ধতিটাই গলাকাটা। এতে ২ হাজার টাকার কর হয়েছে ২০ হাজার টাকা। আপিলে সর্বোচ্চ ৩০ শতাংশ কমালেও সেটা হবে ১৬,০০০-১৭,০০০ টাকা। তাই আমরা পদ্ধতিটা বাতিল চাই।’
তিনি বলেন, ‘আপিলের বিষয়টা আসলে আইওয়াশ। মানুষকে বিভ্রান্ত করা। আইনের দোহাই দিয়ে এভাবে ২০ গুণ পর্যন্ত গৃহকর বাড়ানো যায় না।’
উল্লেখ্য, আকাশচুম্বী গৃহকর আদায়ে সিটি করপোরেশনের গণবিরোধী কার্যক্রম বন্ধের দাবিতে চলতি বছরের ১২ জানুয়ারি চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে একটি সংবাদ সম্মেলন করে ‘চট্টগ্রাম করদাতা সুরক্ষা পরিষদ’। এরপর গত ২৯ সেপ্টেম্বর শুক্রবার নগরীর কদমতলীতে একটি বিশাল সমাবেশ করে সংগঠনটি। সমাবেশ থেকে চার দফা দাবি মেনে নেওয়ার জন্য চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনকে সাত দিনের সময় দেওয়া হয়। এরপর গত ৭ অক্টোবর শনিবার একই দাবিতে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে আর একটি সংবাদ সম্মেলন করে সংগঠনটি। পরদিন রোববার চসিকের দশটি ওয়ার্ড অফিস ঘেরাও কর্মসূচি পালন করে কাউন্সিলরদেরকে স্মারকলিপি দেয় সংগঠনটির নেতৃবৃন্দ।