গণজাগরণ মঞ্চের শান্তিপূর্ণ হরতাল

গণজাগরণ মঞ্চের হরতাল চলাকালে জামালখান এলাকায় গতকাল একটি পুলিশ ভ্যান আটকে দেওয়া হয়-সুপ্রভাত
গণজাগরণ মঞ্চের হরতাল চলাকালে জামালখান এলাকায় গতকাল একটি পুলিশ ভ্যান আটকে দেওয়া হয়-সুপ্রভাত
ব্লগার-প্রকাশক হত্যার প্রতিবাদ এবং খুনিদের গ্রেফতারের দাবিতে গতকাল গণজাগরণ মঞ্চের দেশব্যাপী অর্ধদিবস হরতাল কর্মসূচি চট্টগ্রাম নগরে শান্তিপূর্ণভাবে পালিত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার ভোর ৬টা থেকে দুপুর দুইটা পর্যন্ত জামালখান ও আশপাশের এলাকায় দফায় দফায় বিক্ষোভ মিছিল-সমাবেশ করে হরতাল কর্মসূচি পালন করেন গণজাগরণ মঞ্চের কর্মীরা। তবে হরতাল চলাকালীন নগরের কোথাও অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।
সকাল দশটার দিকে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব থেকে চেরাগী মোড়ের দিকে মিছিল নিয়ে যাওয়ার সময় জামাল খান সড়কে যুদ্ধাপরাধী জামায়াত নেতা মীর কাশেম আলীর ‘কেয়ারি’ ভবনে ঢিল ছুঁড়ে জানালার কাঁচ ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় পুলিশ গণজাগরণ মঞ্চের এক কর্মীকে আটক করলেও পরে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। তবে গণজাগরণ মঞ্চ চট্টগ্রামের সমন্বয়ক শরীফ চৌহান সুপ্রভাতকে বলেন, ‘হরতাল চলাকালে জামালখান সড়কের মিছিল থেকে গণজাগরণ মঞ্চের কোনো কর্মী কেয়ারি ভবনে ঢিল ছুঁড়েনি।’
কোতোয়ালি থানার ওসি জসিম উদ্দীন জানান, জামালখান সড়কে গণজাগরণ মঞ্চের মিছিল থেকে ভাঙচুর করার চেষ্টা করলে তাদের বাধা দেয় পুলিশ। হরতাল চলাকালে নগরের বিভিন্ন সড়কে ব্যক্তিগত যান চলাচল স্বাভাবিকের তুলনায় কম থাকলেও গণপরিবহন ছিল স্বাভাবিক। তবে দুপুর দুইটা পর্যন্ত জামালখান সড়কে তেমন যানবাহন চলাচল করতে দেখা যায়নি।
হরতালের সমর্থনে জামাল খান, চেরাগী পাহাড় এলাকায় দফায় দফায় মিছিল-সমাবেশ করেছে গণজাগরণ মঞ্চ। সমাবেশ থেকে প্রকাশক দীপন ও ব্লগারদের হত্যার জন্য যুদ্ধাপরাধী ও জামায়ত-শিবিরকে দায়ী করা হয়। হরতাল চলাকালে বন্দরের অভ্যন্তরে পণ্য উঠানামা এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রমও ছিল স্বাভাবিক। নগরের কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম দুপুর পর্যন্ত বন্ধ ছিল। হরতালের কারণে সময়সূচি পরিবর্তন করা হয় গতকালের জেএসসি ও জেডিসির পরীক্ষার। তবে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা হরতালের আওতামুক্ত ছিল।

আপনার মন্তব্য লিখুন