পটিয়ায় নির্বাচন কমিশনার শাহাদাত

কর্ণফুলী উপজেলা নির্বাচনে কারচুপি সহ্য করা হবে না

নিজস্ব প্রতিনিধি, পটিয়া
কর্ণফুলীতে আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক সভায় বক্তব্য রাখেন নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরী -সুপ্রভাত
কর্ণফুলীতে আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক সভায় বক্তব্য রাখেন নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরী -সুপ্রভাত

নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শাহাদাত হোসেন চৌধুরী (অব.) বলেছেন, নবগঠিত কর্ণফুলী উপজেলা নির্বাচনে কোনো ধরনের অনিয়ম কিংবা কারচুপি সহ্য করা হবে না। অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে বর্তমান নির্বাচন কমিশন অঙ্গীকারবদ্ধ। যে দলেরই হোক, কোনো প্রার্থী কিংবা প্রার্থীর সমর্থক নির্বাচনের দিন বিশৃঙ্খলা করলে তাদের রেহাই দেয়া হবে না। সাধারণ ভোটাররা যাতে নির্ভয়ে ভোট দিয়ে নিরাপদে ঘরে ফিরতে পারে সেজন্য প্রতি কেন্দ্রে র‌্যাব, পুলিশ, বিজিবির পাশাপাশি আনসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্বে থাকবেন। নতুন নির্বাচন কমিশনের ভাবমূতি নষ্ট হয়, এমন কোনো কাজে সরকারি কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারী জড়িত থাকলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। কর্ণফুলী উপজেলা পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক মতবিনিময় সভায় শনিবার দুপুরে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইসি শাহাদাত এ কথা বলেন।
চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক জিল্লুর রহমান চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন নির্বাচন কমিশনের অতিরিক্ত সচিব মোখলেসুর রহমান, সিএমপি’র (বন্দর) উপপুলিশ কমিশনার হারুন-উর-রশিদ, চট্টগ্রাম পুলিশ সুপার নুরে আলম মিনা, বিজিবি চট্টগ্রামের লে. কর্নেল মঞ্জুরুল আলম, র‌্যাব চট্টগ্রামের মেজর আশেকুর রহমান, কর্ণফুলী উপজেলা নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা জ্যেষ্ঠ নির্বাচন কর্মকর্তা মুনির হোসাইন খান, সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা সৈয়দ আবু ছাঈদ, কর্ণফুলী উপজেলার বিদায়ী ইউএনও আহ্‌সান উদ্‌দীন মুরাদ, নবাগত ইউএনও বিজেন ব্যানার্জী, কর্ণফুলী থানার ওসি রফিকুল ইসলাম, পটিয়া থানার ওসি শেখ মুহাম্মদ নেয়ামত উল্লাহ, আওয়ামী লীগের উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী ফারুক চৌধুরী, বিএনপির চেয়ারম্যান প্রার্থী এসএম ফোরকান, ইসলামী ফ্রন্টের চেয়ারম্যান প্রার্থী এডভোকেট জাহাঙ্গীর আলম রিজভী, আওয়ামী লীগের ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী দিদারুল ইসলাম চৌধুরী, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী হাজি মো. ওসমান, ইসলামি ফ্রন্টের ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী মাওলানা মুহাম্মদ মুছা, ইসলামিক ফ্রন্টের ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী নাছির উদ্দীন, আওয়ামী লীগের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী বানাজা বেগম নিশি, বিএনপির মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী উম্মে মিরজান শামীমা ও জাতীয় পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী মুন্নি বেগম।
সভায় আওয়ামী লীগ চেয়ারম্যান প্রার্থী ফারুক চৌধুরী সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য সকল প্রকার সহযোগিতার আশ্বাস দেন। ক্ষমতাসীন দল হিসেবে তাদের পক্ষে কোনো রকমের কারচুপি কিংবা কোনো অনিয়মের আশ্রয় নেয়া হবে না। জনগণের রায় তারা মাথা পেতে নেবে। বিএনপির প্রার্থীরা যে অনিয়মের আশ্রয় নেয়া হবে বলে প্রচার শুরু করেছেন, তা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। বিএনপির চেয়ারম্যান প্রার্থী এডভোকেট এস এম ফোরকান আওয়ামী লীগের প্রার্থীর পক্ষে কেন্দ্র দখল করে ভোটডাকাতির আশংকার অভিযোগ তুলেন। তিনি প্রতি কেন্দ্রে একজন করে নিবার্হী ম্যাজিস্ট্রেটসহ পর্যাপ্ত পরিমাণে পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবি মোতায়নের দাবি জানান। বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী হাজি মো. ওসমান সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের জন্য প্রতিটি কেন্দ্রে সিসি ক্যামেরা স্থাপন এবং ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগের দাবি জানান। ইসলামিক ফ্রন্টের চেয়ারম্যান প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম রিজভী বৈরী আবহাওয়ার কারণে আগামী ২০ আগস্টের নির্বাচন পেছানোর দাবি তুলেন।
উল্লেখ্য, পটিয়ার সাবেক ৫ ইউনিয়ন বড়উঠান, চরলক্ষ্যা, চরপাথরঘাটা, শিকলবাহা ও জুলধা ইউনিয়নকে নিয়ে গঠিত কর্ণফুলী উপজেলা পরিষদের নির্বাচন আগামী ২০ আগস্ট। এ নির্বাচনে মোট ভোটার এক লাখ ৭ হাজার ৭৯৯। তন্মধ্যে পুরুষ ৫৩ হাজার ৫৯৯, মহিলা ৫৪ হাজার ২৩০। ভোটকেন্দ্র ৪২টি।