বনফুল দ্বিতীয় বিভাগ ফুটবল লিগ

কমরেড ক্লাবের গুরুত্বপূর্ণ জয় শেষ মুহূর্তে সমতা লিটল ব্রাদার্সের

নিজস্ব ক্রীড়া প্রতিবেদক

শেষ মুহূর্তের গোলে সমতা এলে নিশ্চিত জয়ের উৎসব করা হয়নি শিরোপা প্রত্যাশী পাইরেটস অব চিটাগং দলের। চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস’া ও চট্টগ্রাম জেলা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের (সিডিএফএ) যৌথ আয়োজনে বনফুল দ্বিতীয় বিভাগ ফুটবল লিগের সুপার ফোর পর্বে গতকাল দ্বিতীয় দিনের খেলায় প্রায় অন্তিম সময় পর্যন্ত ২-১ গোলে এ গিয়ে ছিল পাইরেটস। জয়ের আনন্দ উদযাপনের প্রস’তিও হচ্ছিল, কিন’ ৫ মিনিট দেয়া ইনজুরি সময়ের শেষ দিকে কর্নার থেকে লিটল ব্রাদার্সের রিয়াদের হেড জাল স্পর্শ করলে কপালে ভাঁজ পড়ে তাদের। গোলের পরেই রেফারির শেষ বাঁশি। আর মেজাজ ঠিক রাখতে না পেরে পাইরেটস কোচ আসাদ প্রথমে চতুর্থ রেফারির দিকে তেড়ে যান, সেখান থেকে লিগ কমিটির কর্মকর্তাদের তাবুতে এসে প্রতিবাদ ও পরে মূল রেফারি খোরশেদ আলমের দিকে তেড়ে গেলে দলের ম্যানেজার আরিফ আহমেদ তাকে নিবৃত্ত করেন। ৫ মিনিটের বেশি খেলা চালানো হয়েছে বলে অভিযোগ ছিল আসাদের। অপর খেলায় আরিফের গোলে হাটহাজারী উপজেলা ক্রীড়া সংস’াকে পরাজিত করে স্বস্তি পেয়েছে আগ্রাবাদ কমরেড ক্লাব। ২ খেলায় ৪ পয়েন্ট নিয়ে শিরোপা জয়ের পথে সুবিধাজনক স’ানে আছে তারা। পাইরেটস দলের ২ খেলায় ২ পয়েন্ট।
এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে শুরু থেকেই পাইরেটস ও লিটল ব্রাদার্স আক্রমণ করে খেলতে থাকে। এরমধ্যে ২১ মিনিটে এগিয়ে যায় পাইরেটস। গুছানো আক্রমণ থেকে বল পেয়ে জেরালো শটে মহিবুল্লাহ বল জালে পৌঁছে দেন (১-০)। বেশিক্ষণ স’ায়ী হয়নি এ লিড। ৯ মিনিট পর ব্রাদার্সের জাহিদুল দর্শনীয় হেডে জালের ঠিকানা খুঁজে পেলে সমতা ফিরে (১-১)। এর আগে ২৪ মিনিটে হাসানউদ্দিন ফাঁকা পোষ্টে বল পাঠাতে না পারায় ব্রাদার্স নিশ্চিত গোল থেকে বঞ্চিত হয়। আক্রমণে থাকা পাইরেটস ৪৯ মিনিটে আবারো এগিয়ে যায়। বামপ্রান্ত থেকে আসা সেন্টার ব্রাদার্সের ডিফেন্ডার ও কিপার ঠেকাতে ব্যর্থ হলে ফাঁকায় থাকা বদলি খোরশেদ টোকা দিয়ে বল জালে জগান (২-১)। ইনজুরি সময়ের শেষ দিকে কর্নার থেকে উড়ে আসা বলে মাথার সংযোগ করে রিয়াদ সমতা আনলে পাইরেটস দলের জয়ের আনন্দ ভেস্তে যায়। এর আগে একই দলের জাহিদুলের দূর্দান্ত ফ্রি-কিক পাইরেটস কিপার কর্নার করে প্রতিহত করেন।
দু’দলে যারা খেলেছেন-
লিটল ব্রাদার্স:শেখ সাদি, বাপ্পা, ছিদ্দিক, সদয়, ফয়সাল আরাফাত, ফয়সাল (কুতুবউদ্দিন), রিয়াদ মো. আসিফ, জাহেদুল, দিদারুল আলম, হাসানউদ্দিন (আরিফ), দিদারুল।
পাইরেটস অব চিটাগং: হাসান, আবির, রুবেল, রাজু, তৌহিদুল (ফরিদ), ইকরাম, রাশেদ, মহিবুল্লাহ, বোরহান (খোরশেদ), ইমন, ছোটন।
দ্বিতীয় খেলায় কমরেড ক্লাবের বিরুদ্ধে ভালো খেলেও শেষ পর্যন্ত হাটহাজারী উপজেলা ক্রীড়া সংস’া পরাজয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে। এ দ’দলের খেলাও প্রতিদ্বন্দ্বিতা ছিল। প্রথমে হাটহাজারী দল এগিয়ে যেতে পারতো। ১৫ মিনিটে স্ট্রাইকার মনসুর বক্সের বাইরে ফাঁকায় পেয়েও বাইরে বল পাঠিয়ে সুযোগ নষ্ট করেন। এরপর ২২ মিনিটে কমরেডের বেলালের বিপজ্জনক শট সাইড বার ঘেষে চলে যায়। অব্যাহত চেষ্টার পর ৬৩ মিনিটে সফল হয় তারা। বামপ্রান্ত থেকে সোহেলের সেন্টারে দারুনভাবে মাথা ছুঁইয়ে বদলি আরিফ বল জালে জড়ান। আজ খেলার বিরতি। আগামীকাল শেষ দিনের খেলায় পাইরেটস-হাটহাজারী উপজেলা ক্রীড়া সংস’া (৩টা) ও লিটল ব্রাদার্স-কমরেড ক্লাব প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে।
দু’দলে যারা খেলেছেন-
আগ্রাবাদ কমরেড ক্লাব: ইছাক, টিংকু, নোমান, সাজ্জাদ, সালাউদ্দিন (আরিফ), তানভীর, বেলাল, শামীম (তায়েফ), সোহেল, কামালউদ্দিন, সুমন (আজমির)।
হাটহাজারী উপজেলা: ইব্রাহিম, সাহেদ, রোকন, সাজ্জাদ, বাবলূ (জাহাঙ্গীর), আনিস, রাকিবুল, মনছুর, সোহেল, মোরশেদ, নুরুল ইসলাম (্ইরফান), (তৈয়বুল)। রেফারি: ধীমান বড়-য়া।