কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচন ২৩ ফেব্রুয়ারি

নিজস্ব প্রতিবেদক, কক্সবাজার

কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতির কার্যনির্বাহী কমিটির নির্বাচন ২৩ ফেব্রুয়ারি শনিবার। এ উপলক্ষে কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতি ইতোমধ্যে চূড়ান্ত ভোটার তালিকা প্রকাশ করেছে। এতে মোট ৬০৩ জন আইনজীবী ভোটার হয়েছেন। জেলা আইনজীবী সমিতির নতুন গঠনতন্ত্র অনুযায়ী এবছর কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতি ভবন ও চকরিয়া উপজেলা আইনজীবী সমিতি ভবনে পৃথক দুটি ভোট কেন্দ্রে একই সাথে সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ হবে। এর মধ্যে চকরিয়া ও কুতুবদিয়া আদালতে কর্মরত ৪৭ জন আইনজীবীর প্রকাশিত পৃথক একটি ভোটার তালিকার ভোটগ্রহণ করা হবে চকরিয়া উপজেলা আইনজীবী সমিতি ভবনে। অবশিষ্ট ৫৫৬ জন আইনজীবীর অপর একটি ভোটার তালিকার ভোটগ্রহণ করা হবে কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতি ভবনে।
নির্বাচন পরিচালনার জন্য সিনিয়র আইনজীবী অ্যাডভোকেট মুহাম্মদ শাহাজাহানকে প্রধান নির্বাচন কমিশনার, অ্যাডভোকেট শ্যামল কান্তি চৌধুরী ও অ্যাডভোকেট মুহাম্মদ বাকেরকে সহকারী প্রধান নির্বাচন কমিশনার, অ্যাডভোকেট নুর উল আলম, অ্যাডভোকেট আবু ছিদ্দিক, অ্যাডভোকেট ফরিদ আহামদ ও অ্যাডভোকেট সিরাজ উল্লাহকে কমিশনার করে ৭ সদস্যবিশিষ্ট নির্বাচন কমিশন গঠন করা হয়েছে।
নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী ১৪ ফেব্রুয়ারি মনোনয়নপত্র দাখিল, ১৫ ফেব্রুয়ারি মনোনয়নপত্র বাছাই, ১৭ ফেব্রুয়ারি প্রার্থিতা প্রত্যাহার, ১৮ ফেব্রুয়ারি চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা প্রকাশ এবং ২৩ ফেব্রুয়ারি শনিবার ভোটগ্রহণ।
এদিকে, নির্বাচনকে ঘিরে আইনজীবী ভবনে নির্বাচনী আলোচনা বেশ জমে উঠছে। জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনী রেওয়াজ অনুযায়ী আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টি, জাসদ, কমিউনিস্ট পার্টি সহ বামপনি’ রাজনৈতিক দলগুলোর সমর্থিত বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের একটি প্যানেল এবং বিএনপি, জামায়াত ইসলাম সহ জাতীয়তাবাদী ইসলামী মূল্যবোধে বিশ্বাসী সমমনা আইনজীবীদের পৃথক আর একটি প্যানেল নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে।
এবার আওয়ামী প্যানেল থেকে সভাপতি পদে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা, জিপি অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ ইসহাক, বর্তমান সভাপতি অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ নুরুল ইসলাম, অ্যাডভোকেট আ.জ.ম মঈন উদ্দিনের নাম শোনা যাচ্ছে। সাধারণ সম্পাদক পদে বর্তমান সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট ইকবালুর রশিদ আমিন সোহেল, সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট জিয়া উদ্দিন আহামদ, অ্যাডভোকেট অধ্যাপক নাসির উদ্দিনের নাম নির্বাচনী মাঠে রয়েছে।
অপরদিকে, জাতীয়তাবাদী ইসলামী মুল্যবোধে বিশ্বাসী প্যানেলে সভাপতি পদে সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ ছৈয়দ আলম, অ্যাডভোকেট আবুল কালাম ছিদ্দিকী, অ্যাডভোকেট নুরুল মোর্শেদ আমিনের মধ্য থেকে যেকোন একজন প্রার্থী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। একই প্যানেলে সাধারণ সম্পাদক পদে অ্যাডভোকেট আকতার উদ্দিন হেলালী, অ্যাডভোকেট নেজামুল হক, অ্যাডভোকেট তৌহিদুল আনোয়ারের নাম শোনা যাচ্ছে। তবে ১৪ ফেব্রুয়ারি জানা যাবে উভয় প্যানেল থেকে শেষ পর্যন্ত কে কে প্রার্থী হচ্ছেন। নতুন গঠনতন্ত্রে ১৭ সদস্যবিশিষ্ট নির্বাহী কমিটির মধ্যে দুটি পদে সংশোধনী আনা হয়েছে। সংশোধনীর মধ্যে পূর্বের সহসভাপতি দু’টি পদকে বিভাজন করে সিনিয়র সহ সভাপতি ও সহ সভাপতি পদ পদায়ন করে ভোটারদের ঐ দুটি পদে পৃথকভাবে ভোট প্রদানের ব্যবস’া করা হয়েছে। এছাড়া পাঠাগার সম্পাদক পদের নাম এবার পাঠাগার, তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পাদক করা হয়েছে।