সঙ্কটাপন্ন কলেজছাত্রী

কক্সবাজারে ভাইয়ের হাতে ভাই খুন

নিজস্ব প্রতিবেদক, কক্সবাজার

কক্সবাজারে রমিজ আহমদ (৫২) নামের এক ব্যক্তি তার ছোট ভাই ও ভাতিজাদের হাতে খুন হয়েছেন। এসময় কুপোঘাতে গুরুতর আহত হয়েছে রমিজ আহমদের মেয়ে রামু ডিগ্রি কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী সেলিনা আক্তার মুন্নি। তাকে গুরুতর আহত অবস’ায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে কক্সবাজারের রামুর রশিদ নগর ইউনিয়নের উল্টাখালী মোরাপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
নিহতের ভাতিজা মোহাম্মদ রশিদ জানান, রমিজ আহমদ সকালে তার চাষাবাদের জমিতে কাজ করতে গিয়েছিলেন। এ সময় তার আপন ছোট ভাই ছব্বির আহমদ ও তার ছেলে রাশেদুল ইসলাম, তাজুল ইসলামসহ অন্যরা রমিজ আহমদকে অতর্কিতভাবে কুপোঘাত শুরু করে। এতে রমিজ উদ্দিন মাটিতে পড়ে যান। তার চিৎকারে স’ানীয়রা এগিয়ে আসলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। রমিজকে গুরুতর আহত অবস’ায় উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সন্ধ্যায় চিকিৎসাধীন অবস’ায় তার মৃত্যু হয়।
স’ানীয় সূত্রে জানা গেছে, আপন সহোদর ছব্বির আহমদ দীর্ঘদিন ধরে রমিজ আহমদের বসতভিটা ও জমি দখলের পাঁয়তারা করে আসছিল। এবিষয়ে স’ানীয় শালিস ও আদালতের রায় নিহতের পক্ষে রয়েছে। এরপরও থেমে থাকেনি ছব্বির আহমদের ঝগড়াটে আচরণ। অব্যাহত রাখে হুমকি-ধমকি। অবশেষে নিজ সন্তানদের নিয়ে এ নির্মম হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটায়। দুবৃর্ত্তরা বাবাকে প্রকাশ্যে কোপাচ্ছে দেখে সেলিনা আক্তার মুন্নি উদ্ধার করতে এলে তাকেও এলোপাতাড়ি কোপানো হয়। তার অবস’াও এখন সঙ্কটাপন্ন।
নিহতের অপর ছোট ভাই ফরিদুল আলম জানান, বসতবাড়ি দখলে জের ধরে বড়ভাই রমিজ আহমদকে প্রকাশ্যে দিন-দুপুর কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে।
কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি রনজিত কুমার বড়-য়া জানান, ঘটনাটি ঘটেছে রামু থানাধীন রশিদ নগর ইউনিয়ন এলাকায়। তবে নিহত ও হামলাকারীরা কক্সবাজার সদর থানার ভারুয়াখালী ইউনিয়নের। রামু থানায় হামলাকারীদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।
রামু থানার ওসি লিয়াকত আলী জানান, সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। তাদের গ্রেফতারের জন্য পুলিশ অভিযান অব্যাহত রেখেছে।