ওরা ফিরতে চায় মায়ের কোলে

মোহাম্মদ রফিক

সড়ক দুর্ঘটনায় আহত অজ্ঞাতনামা দুই শিশুর ঠিকানা এখন চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল। বর্তমানে তারা ২৮ নম্বর নিউেরোসার্জারি ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন। একজনকে এ ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছিল ১৩ জানুয়ারি। অন্যজনকে ফেনী থেকে অচেতন অবস’ায় আনা হয়েছিল গত ৫ জানুয়ারি। দুজনের মাথায় গুরুতর আঘাত ছিল। হাসপাতালে তারা এতদিন সংজ্ঞাহীন ছিল। এখানকার চিকিৎসক, নার্সদের সেবায় ধীরে ধীরে সুস’ হয়ে উঠছে। তবে ওরা নিজেদের নাম-ঠিকানা জানে না। ঠিকমতো কথাও বলতে পারছে না। অবুঝ শিশু দুটি ফিরে যেতে চায় তাদের মায়ের কোলে। মা-বাবার নাম জিজ্ঞেস করলে কাঁদছে। সবার দিকে ফ্যাল ফ্যাল করে কেবল তাকিয়ে থাকছে।
নিউরোসার্জারি বিভাগের প্রধান এস এম নোমান খালেদ চৌধুরী জানান, গত ৫ জানুয়ারি ফেনী জেনারেল হাসপাতাল থেকে অচেতন অবস’ায় এক শিশুকে ভর্তি করা হয়েছিল। সড়ক দুর্ঘটনায় মাথায় গুরুতর আঘাত পাওয়ায় সংজ্ঞাহীন ছিল পাঁচদিন। একই ওয়ার্ডে অজ্ঞাত আরেক শিশুকে ভর্তি করা হয়েছিল গত ১৩ জানুয়ারি। চট্টগ্রাম রেল স্টেশন থেকে মাথায় মারাত্মক জখম অবস’ায় তাকে ভর্তি করানো হয়েছিল। সেও অচেতন ছিল তিনদিন। তবে তাদের চিকিৎসায় কোনো গাফিলতি হয়নি। জ্ঞান ফেরার পর দুই শিশুই তাদের বাবা-মা কিংবা স্বজনদের নাম ঠিকানা বলতে পারছে না। তাদের পুরোপুরি সুস’ হতে আরো কিছুদিন সময় লাগবে। যদি তাদের স্বজন পাওয়া না যায়, সেক্ষেত্রে সমাজসেবা অধিদপ্তরকে বিষয়টি জানানো শিশু দুটি যাতে শীঘ্রই তাদের মায়ের কোলে ফিরে যেতে পারে, এজন্য ফেসবুকে প্রচারণা চালাচ্ছে কিছু স্বেচ্ছাসেবী সংস’া।