ওবামার বিদায় ভাষণে গণতন্ত্র রক্ষার আহ্বান

সুপ্রভাত ডেস্ক
3C09A9BB00000578-4108126-image-a-30_1484108614427

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা তার বিদায়ী ভাষণে গণতন্ত্র রক্ষার আহ্বান জানিয়েছেন আমেরিকার নাগরিকদের উদ্দেশে।
তিনি বলেছেন, আট বছর আগে তিনি যখন দায়িত্ব নিয়েছিলেন, তার তুলনায় ‘যে কোনো বিচারে আমেরিকা এখন ভালো ও শক্তিশালী অবস’ানে আছে’।
কিন’ গণতন্ত্র বার বার হুমকির মুখে পড়েছে বলে দেশের জনগণকে সতর্ক করে দিয়েছেন তিনি। বিদায়ী প্রেসিডেন্ট সব বিভাজনকে অতিক্রম করে পরস্পরের মতামতকে শ্রদ্ধা করা শিখতে যুক্তরাষ্ট্রবাসীর কাছে আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ‘আমাদের মনোযোগ দিতে হবে, সবার কথা শুনতে হবে।’
পরিবর্তনের স্বপ্ন দেখিয়ে ২০০৮ সালে যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেওয়া বারাক ওবামার বয়স এখন ৫৫। তার উত্তরসূরী ডোনাল্ড ট্রাম্প আগামী ২০ জানুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের ৪৫তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেবেন। দায়িত্ব নিয়েই ওবামার নেওয়া বেশ কিছু নীতি বাতিল করার ঘোষণা দিয়ে রেখেছেন তিনি। মঙ্গলবার রাতে শিকাগোতে ওবামার বিদায়ী ভাষণের সময় হাজার হাজার সমর্থক স্লোগান ধরেন- ‘আরও চার বছর, আরও চার বছর’। জবাবে ওবামা বলেন, ‘তা আমি পারি না।’
যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধান অনুযায়ী, দুই মেয়াদের বেশি কেউ প্রেসিডেন্ট থাকতে পারেন না। আর ওবামা প্রেসিডেন্টদের শান্তিপূর্ণ দায়িত্ব হস্তান্তরকে যুক্তরাষ্ট্রের একটি ‘হলমার্ক’ হিসেবে বর্ণনা করে। তিনটি বিষয়কে যুক্তরাষ্ট্রের গণতন্ত্রের জন্যব সবচেয়ে বড় হুমকি হিসেবে চিহ্নিত করে বিদায়ী প্রেসিডেন্ট। এগুলো হল- অর্থনৈতিক বৈষম্যস, জাতিগত বিভেদ এবং ‘অলীক কল্পনায় ডুবে থাকা’ সমাজের বিভিন্ন অংশ, যাদের মতামত সাধরণ বাস্তবতার সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়।
২০০৮ ও ২০১২ সালের নির্বাচনে জয়ী হওয়ার পরও এই শিকাগোতেই সমর্থকদের সামনে এসে অভিনন্দন জানিয়েছিলেন ওবামা। তিনি বিদায়ও বললেন সেখানেই। বক্তৃতার এক পর্যায়ে তাকে চোখ মুছতে দেখা যায়।
জাতির উদ্দেশে শেষ বক্তৃতায় ওবামা বলেন, বিদায় বেলায় প্রেসিডেন্ট হিসেবে একটি অনুরোধ তিনি আমেরিকানদের করতে চান। ‘আমি আপনাদের বলছি, বিশ্বাস রাখুন। আমি পরিবর্তন এনে দিতে পারব কি না- সে বিষয়ে নয়, আস’া রাখুন নিজেদের ওপর।’ খবর বিডিনিউজ।
সতর্ক না হলে গণতন্ত্র সঙ্কটে পড়তে পারে- এই হুঁশিয়ারি দিয়ে তিনি বলেন, ‘পরিবর্তন তখনই হয়, যখন সাধারণ মানুষ তা চায়।… আমাদের প্রত্যেকের আলাদা স্বপ্ন, ঘাম আর পরিশ্রম মিলে তৈরি হয় সকলের স্বাধীনতা।’ বিদায়ী ভাষণে জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব ঠেকাতে আরও দৃঢ় অবস’ান নিতে বিশ্ববাসীর প্রতি আহ্বান জানান ওবামা। দায়িত্ব পালনকালে সহযোগিতার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের জনগণকে ধন্যবাদ জানান। ‘আপনাদের জন্য দায়িত্ব পালন আমাকে সম্মানিত করেছে, গর্বিত করেছে।… প্রত্যেকটি দিন আমি আপনাদের কাছ থেকে শিখেছি। আপনারা আমাকে ভালো প্রেসিডেন্টে পরিণত করেছেন, আপনারাই আমাকে ভালো মানুষে পরিণত করেছেন।’
বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ওবামার বিদায়ী ভাষণ শুনতে ২০ হাজারের বেশি সমর্থক হাজির ছিলেন এই অনুষ্ঠানে।
ভাষণের সময় উপসি’ত ছিলেন ওবামার স্ত্রী ও ফার্স্টলেডি মিশেল ওবামা, মেয়ে মালিয়া; ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ও তার স্ত্রী জিল বাইডেন। হোয়াইট হাউজে থাকার সময় এদের প্রত্যেকের ‘ত্যাগের কথা’ আলাদা করে স্মরণ করেন ওবামা।

আপনার মন্তব্য লিখুন