এবার চাকসু নির্বাচন দিন

সম্পাদকীয়

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্রসংসদ (ডাকসু) নির্বাচন সম্পন্ন হওয়ায় দেশের বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজগুলোর ছাত্র সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের তাগিদ দিয়েছেন শিড়্গার্থী ও সচেতন মহল। সরকারের নানা মহলেও এ নিয়ে ইতিবাচক ধারণা পাওয়া গেল তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদের বক্তব্যে। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের ৫০ বছর পূর্তি উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এই বিভাগের প্রাক্তন ছাত্র ড. হাছান মাহমুদ দ্রম্নত ‘চাকসু’ (চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ) নির্বাচনের কথা বলেছেন।
সম্প্রতি ডাকসু নির্বাচনে ড়্গমতাসীন দলের ছাত্র সংগঠন অধিকাংশ হল এবং কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী হলেও স্বতন্ত্র প্রার্থীরাও ৫টি হলে জিতেছে। কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের ভিপি নির্বাচিত হয়েছেন সাধারণ ছাত্রদের অধিকার সংরড়্গণ পরিষদের প্রার্থী। ছাত্রলীগ ব্যতীত মূলধারার অন্যান্য ছাত্র সংগঠন প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আসতে পারেনি। কেবল রাজনৈতিক ইস্যু নিয়ে যে ছাত্রছাত্রীদের মন জয় করা যায় না, ডাকসু নির্বাচনে তার প্রমাণ পাওয়া গিয়েছে। তবে ভোটে বেশ কিছু অনিয়ম, ত্রম্নটি বিচ্যুতি, অভিযোগ তুলে কয়েকটি ছাত্র সংগঠন পুনর্নির্বাচনের দাবি তুললেও এর কোন সুযোগ নেই বলে জানিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য।
শিড়্গাজীবনে শিড়্গার্থীদের মৌলিক অধিকার ভোটাধিকার প্রয়োগের মাধ্যমে হল সংসদ ও কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদে তাদের প্রতিনিধি নির্বাচিত করা। শিড়্গার্থীদের সাধারণ দাবি দাওয়া ছাড়াও মেধা, সৃজনশীলতা ও মননশীলতার বিকাশে ক্রীড়া সংস্কৃতি চর্চা ও বিভিন্ন কর্যক্রমের মাধ্যমে শিড়্গাজীবন পরিপূর্ণ ও সম্পূর্ণ করে তোলা অতীব জরম্নরি। দুর্ভাগ্যের বিষয় এই ভাবনা দেশের কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুপসি’ত। দুই যুগেরও বেশি সময় ধরে চাকসু’র নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে না। শিড়্গার্থীদের মধ্যে রাজনৈতিক দলাদলি, বিদ্বেষের কারণে বিশ্ববিদ্যালয় অঙ্গন রক্তাক্ত হয়েছে। বেশ কিছু ছাত্রের জীবন অকালে ঝরে গেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্রীড়া, সাংস্কৃতিক কর্মকা-, গবেষণা, প্রকাশনা- এসব নিয়মিত হয় না। দুর্ভাগ্যের বিষয়, শিড়্গক এবং বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের এসব সৃজনশীল ও মানবিক কর্মকা-ে যে ভাবে শিড়্গার্থীদের অনুপ্রাণিত করার কথা, তাঁরা সে ভাবে তাঁদের দায়িত্ব পালন করেননি। বরং দেখা গেছে অনেক শিড়্গক একাডেমিক ছুটি নিয়ে বিদেশে গিয়ে ফিরে আসেননি। অনেক শিড়্গক বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ও নানা সংস’ার কনসালটেন্সিতে সময় দিচ্ছেন- এসবের কারণে বিশ্ববিদ্যালয় তথা উচ্চ শিড়্গার মূল উদ্দেশ্য ব্যাহত হচ্ছে, শিড়্গক ছাত্রের সম্পর্কের অবনতি হয়েছে।
কলেজ- বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র রাজনীতির বর্তমান প্রচলিত, অর্থহীন ধারা বদলে দিতে ছাত্র সংসদ নির্বাচন সম্পন্ন করা প্রয়োজন। এ জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে সকল মত ও পথের শিড়্গার্থীদের সহাবস’ানের পরিবেশ সৃষ্টিতে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপড়্গকে উদ্যোগী হতে হবে। ছাত্র প্রতিনিধিদের সাথে আলোচনা করে সুষ্ঠু নির্বাচনের লড়্গ্যে প্রয়োজনীয় পদড়্গেপ নেওয়া প্রয়োজন। ডাকসু নির্বাচনে যে সব অনিয়ম হয়েছে সেসব থেকে অভিজ্ঞতা ও শিড়্গা নিয়ে সুষ্ঠু ও স্বচ্ছ নির্বাচন অনুষ্ঠানের ব্যবস’া করতে হবে।