এক বছরের মধ্যে নগরীকে ধূমপানমুক্ত করা হবে : মেয়র

নিজস্ব প্রতিবেদক

এক বছরের মধ্যে চট্টগ্রাম নগরে প্রকাশ্যে ধূমপান বন্ধ করা হবে। সেই সাথে সিটি করপোরেশন পরিচালিত সকল শিড়্গা প্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল, ক্লিনিকসহ গুরম্নত্বপূর্ণ পাবলিক স’ানের একশ গজের মধ্যে সকল প্রকার তামাকের দোকান বন্ধ করা হবে বলে জানিয়েছেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন।
গতকাল চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব বঙ্গবন্ধু মিলনায়তনে বেসরকারি উন্নয়ন সংস’া বিটা, কনজুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-ক্যাব ও ইলমার উদ্যোগে এবং সিটিএফকের সহায়তায় পিপলস্ জুবিলান্ট এনগেজমেন্ট ফর
টোবাকো ফ্রি চিটাগাং সিটি প্রকল্পের আওতায় তামাক বিজ্ঞাপন, প্রচারণা এবং পৃষ্ঠপোষকতায় নিষেধাজ্ঞার ওপর গুরম্নত্বারোপ করে সাংস্কৃতিক প্রচারণার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
মেয়র বলেন, তামাকমুক্ত নগর গড়ার পড়্গপাতী আমি। আজকে যে শিশু, আগামীতে সে যুবক হবে। তাই শিশুদের এখন থেকে সচেতন করবে হবে। তামাকের ভয়ংকর দিকগুলো তাদের জানাতে হবে। তাদের সামনে ধূমপান করা যাবে না। যারা মাদকাসক্ত তারা ৯৯% প্রথমে ধূমপায়ী ছিল। ভবিষ্যত প্রজন্মকে ধূমপানমুক্ত জীবন উপহার দেওয়ার জন্য আমাদের এখন থেকে সচেতন হতে হবে। দেশ উন্নত হচ্ছে, আমাদের মানসিকতাও উন্নত করতে হবে। আগামী তিন মাসের মধ্যে সংশিস্নষ্ট সকলকে চিঠি পাঠানো হবে সিটি করপোরেশন থেকে। এ বিষয়ে তদারকি করতে অফিসারদের এসাইন করা হবে। সেই সাথে সরাসরি তিনি এই কাজের তদারকি করার কথাও জানান।
বিটার নির্বাহী পরিচালক শিশির দত্তের সভাপতিত্বে এবং বিটার প্রকল্প সমন্বয়কারী অশোক বড়ুয়ার পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন সিভিল সার্জন ডা. আজিজুর রহমান সিদ্দিকী। উপসি’ত ছিলেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের শিড়্গা কর্মকর্তা সুমন বড়-য়া, সিটিএফকে বাংলাদেশের লিড কনসালটেন্ট শরিফুল আলম। আরো বক্তব্য রাখেন ক্যাব-চট্টগ্রামের ভাইস প্রেসিডেন্ট নাজির হোসাইন। অনুষ্ঠানে কবিগানের মাধ্যমে উপসি’ত সকলের কাছে তামাকমুক্ত নগরী গড়ার বার্তা পৌঁছে দেন কবিয়াল মো. ইউসুফ এবং কবিয়াল নিরঞ্জন সরকারের দল।
সভার শুরম্নতে নগরে তামাকের বিজ্ঞাপন, প্রণোদনা এবং প্রদর্শনী অবস’া যাচাই শীর্ষক গবেষণা প্রতিবেদনের ফলাফল উপস’াপন করেন বিটা পরিচালিত তামাকমুক্ত চট্টগ্রাম নগরী প্রকল্পের টিমলিডার প্রদীপ আচার্য।