ইডিইউতে নকিব খান

একাডেমিক ডিগ্রি নিলেই শেখার সিলেবাস শেষ হয়না

সীমাবদ্ধতার মধ্যেও চট্টগ্রামের ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটি (ইডিইউ) উচ্চ শিক্ষায় অনেকটুকু এগিয়ে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন নেসলে বাংলাদেশের কর্পোরেট অ্যাফেয়ার্স ডিরেক্টর ও দেশ বরেণ্য সঙ্গীত শিল্পী নকিব খান।
তিনি বলেছেন, চট্টগ্রামে সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে একাধিক বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে উঠছে ঠিকই, কিন’ কর্মমুখী শিক্ষা নিয়ে কাজ করছে এমন ইউনিভার্সিটির তালিকা হাতে গোনা। প্রতিবছর এই অঞ্চল থেকে প্রচুর মেধাবী শিক্ষার্থী উচ্চশিক্ষার জন্য ঢাকায় পাড়ি জমাত। অনেকে চলে যেত দেশের বাইরে। এখন ইডিইউ আন্তর্জাতিক মানের শিক্ষা ছড়িয়ে দিতে বদ্ধপরিকর।
নগরীর প্রবর্তক মোড়ের ইডিইউর একাডেমিক ভবনে ক্লাস কার্যক্রম পরিদর্শন শেষে এসব কথা বলেন তিনি।
এ সময় নকিব খান ইডিইউর শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আড্ডা দেন। পরে নিজের বাস্তব-অভিজ্ঞতা, ক্যারিয়ার, সঙ্গীত জীবন ও কর্পোরেট লাইফ নিয়ে বিভিন্ন তথ্য তুলে ধরেন।
নকিব খান বলেন, তিনটি বিষয়কে সামনে রেখে আমি সবসময় এগিয়ে চলেছি। নিজেকে সমৃদ্ধ করতে আমার জ্ঞানের প্রসার বাড়ানোর চেষ্টা করেছি। সাংস্কৃতিক মূল্যবোধ নিজের ভেতর ধারণ করেছি সেই শৈশব থেকে। সর্বোপরি একজন ভালো মানুষ হওয়ার ইচ্ছা ছিলো সবসময়।
তিনি আরো বলেন, একাডেমিক ডিগ্রি নিলেই শেখার সিলেবাস শেষ হয়ে যায় না। যদিও আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে চাকরির সুবিধা অনেক কম। তাই সবাই ওইদিকে যেতে চায়। তরুণদের প্রতি আমার পরামর্শ থাকবে, তোমরা চ্যালেঞ্জ নিতে শেখো। নিজে কিছু করে তাক লাগিয়ে দাও।
নকিব খান বলেন, ইডিইউ প্রতিনিয়ত তাদের সিলেবাস আপডেট করছে। এতে করে ছাত্র-ছাত্রীরা আরো দক্ষ হয়ে গড়ে উঠছে। আমার জানা মতে ২০০৮ সালে তারাই প্রথম বাংলাদেশে এমবিএতে সাপ্লাই চেইন চালু করেছে।
তিনি বলেন, ইডিইউ জ্ঞান অর্জনের বিষয়টিকে প্রাধান্য দিচ্ছে। আমি মনে করি তাদের স’ায়ী ক্যাম্পাসের নির্মাণ কাজ শেষ হলে এই অঞ্চলের শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা মনের মতো একটি ইউনিভার্সিটি দেখতে পাবে।
ইডিইউতে নকিব খানকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান উপাচার্য প্রফেসর মুহাম্মদ সিকান্দার খান।
এ সময় উপসি’ত ছিলেন ডিরেক্টর, প্ল্যানিং অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট শাফায়েত চৌধুরী, ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার সজল বড়ুয়া, অ্যাসোসিয়েট ডিন ড. মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন, অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর রাশেদ আল করিম প্রমুখ।
ইডিইউর প্রতিষ্ঠাতা ভাইস চেয়ারম্যান সাঈদ আল নোমান বলেন, আমরা একাডেমিক শিক্ষকদের পাশাপাশি কর্পোরেট বিশ্বের সফল ব্যক্তিদের বাস্তব অভিজ্ঞতা ক্লাস রুমে উপস’াপন করার চেষ্টা করি। বিশ্বমানের শিক্ষা নিশ্চিত করতেই এই ধরনের উদ্যোগ আমাদের প্ল্যানিং-এ অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এতে পাঠ্যসূচির বাইরে কর্মমুখী জ্ঞানের বিষয়ে নানা ধারণা পায় ছাত্র-ছাত্রীরা।
তিনি আরো বলেন, নকিব খান সাপ্লাই চেইন বিষয়ে একজন অভিজ্ঞ ব্যক্তি। সবসময় উপদেষ্টা হিশেবে আমাদের সুচিন্তিত পরামর্শ দিয়ে আসছেন। ইডিইউকে চট্টগ্রাম থেকে আন্তর্জাতিকভাবে মেলে ধরতে যোগসূত্র হয়েও তিনি কাজ করছেন। বিজ্ঞপ্তি

আপনার মন্তব্য লিখুন