একই ফ্রেমে শাবনূর-পূর্ণিমা

অভি মঈনুদ্দীন, ছবি : মোহসীন আহমেদ কাওছার

ঢাকাই চলচ্চিত্রের দুই নন্দিত নায়িকা শাবনূর ও পূর্ণিমা। দু’জনই চলচ্চিত্রে অভিনয়ের সর্বোচ্চ স্বীকৃতিস্বরূপ পেয়েছেন একবার করে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। মোস্তাফিজুর রহমান মানিকের ‘দুই নয়নের আলো’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য শাবনূর জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে ভূষিত হন। অন্যদিকে কাজী হায়াৎ’র ‘ওরা আমাকে ভালো হতে দিলোনা’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে ভূষিত হন পূর্ণিমা। দু’জন একসঙ্গে তিনটি চলচ্চিত্রে অভিনয়ও করেছেন একসঙ্গে। দীর্ঘদিন বিরতির পর সম্প্রতি একটি অনুষ্ঠানে এই দুই নন্দিত নায়িকা একসঙ্গে উপস্থিত হয়েছিলেন। দু’জনে একসঙ্গে বসে খোশ গল্পে মেতে উঠেছিলেন তারা দু’জন। ক্যামেরার একই ফ্রেমে বাঁধা পড়েনও দু’জন। পূর্ণিমা প্রসঙ্গে শাবনূর বলেন, ‘আমরা দু’জন একসঙ্গে বেশ কয়েকটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছি। হয়তো আমার কাজের ধারাবাহিকতা নিয়মিত থাকলে আরো কয়েকটি চলচ্চিত্রে কাজ করা হয়ে উঠতো। তারপরও সময়োপযোগী গল্প হলে আমি আর পূর্ণিমা আবারও কাজ করতেও পারি। তার পুরোটাই নির্ভর করছে গল্পের ওপর, চরিত্রের ওপর।’ শাবনূর প্রসঙ্গে পূর্ণিমা বলেন, ‘শাবনূর আপুর সঙ্গে অভিনয় করতে আমার ভীষণ ভালো লাগে। তিনি অনেক বড় মাপের একজন অভিনেত্রী। তারসঙ্গে অভিনয় করতে পারাটা আমার জন্য সৌভাগ্যের। বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে তারমতো এতো বড় মাপের অভিনেত্রী তারপরে আর কেউই আসেনি।’ এদিকে গেলো শুক্রবার থেকে মাছরাঙ্গা টিভিতে প্রচার শুরু হওয়া রিয়েলিটি শো ‘সেরা রাধুনী’র বিচারক হিসেবে কাজ করছেন পূর্ণিমা। এর শুটিং-এ অংশ নিতে বর্তমানে গাজীপুরের একটি রিসোর্ট-এ আছেন। শাবনূর ও পূর্ণিমা একসঙ্গে তিনটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। চলচ্চিত্র তিনটি হচ্ছে এফ আই মানিকের ‘স্বামী স্ত্রীর যুদ্ধ’, জাকির হোসেন রাজুর ‘নিঃশ্বাসে তুমি বিশ্বাসে তুমি’ এবং সোহানুর রহমান সোহানের ‘বলো না ভালোবাসি’। দু’জনের একসঙ্গে অভিনীত সবচেয়ে ব্যবসাসফল চলচ্চিত্র ‘স্বামী স্ত্রীর যুদ্ধ’।