উভয় পক্ষে আহত ১৪ রামগড়ে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া

নিজস্ব প্রতিনিধি, রামগড়

সংসদ নির্বাচনের প্রচারণাকে কেন্দ্র করে খাগড়াছড়ির রামগড় সোনাইপুল বাজারে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির সমর্থকদের মধ্যে শুক্রবার বিকালে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও মারপিটের ঘটনা ঘটেছে।
এ ঘটনায় শুক্রবার রাতে উপজেলা আওয়ামী লীগ দলীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। এতে লিখিত বক্তব্যে উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক নুরম্নল আলম আলমগীর জানান, বিকালে সোনাইপুল বাজারে নৌকা প্রতীকের নির্বাচনী প্রচারণা চালানোর সময় ধানের শীষের সমর্থকরা হামলা চালায় এবং তাদের মারধর করে। এতে চারকর্মী মো. সোহেল, অপু দাশ, আবু তাহের ও নাসির উদ্দিন আহত হন। বর্তমানে আহতরা রামগড় স্বাস’্য কমপেস্নক্সে চিকিৎসাধীন। তিনি আরও বলেন, নির্বাচনের সুস’ পরিবেশ অসি’তিশীল করতেই এ ধরনের হামলা চালানো হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে আরও বক্তব্য দেন পৌর কাউন্সিলর ও আওয়ামী লীগ নেতা মো. বাদশা মিয়া, ছাত্রলীগ আহ্বায়ক কাউছার হাবিব শোভন প্রমুখ।
অন্যদিকে, খাগড়াছড়িতে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি প্রার্থী শহিদুল ইসলাম ভূঁইয়া অভিযোগ করে বলেন, সোনাইপুল বাজারে নেতৃবৃন্দ গণসংযোগ শেষে বক্তব্য দেওয়ার সময় আওয়ামী লীগের লোকজন
তাদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। হামলায় শ্রমিক দলের সভাপতি কামাল হোসেনসহ ১০ জন আহত হন। কামাল হোসেনকে (৪০) গুরম্নতর আহত অবস’ায় চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। অন্য আহতরা হলেন মো. সিরাজুল ইসলাম, মো. শাকিল, আবদুর রহিম, নিজাম উদ্দিন, খোরশেদ আলম, শরিফ, রানা, আরিফ ও মোশারফ।
জেলা বিএনপির সহসভাপতি মোজাম্মেল হোসেন বাবলু এ প্রতিনিধিকে বলেন, তিনি সোনাইপুল বাজারে প্রচারণা চালানোর সময় দলীয় নেতৃবৃন্দের সঙ্গে ছিলেন। আওয়ামী লীগের দলীয় লোকজন তাদের শানিত্মপূর্ণ প্রচারণায় বিঘ্ন সৃষ্টি করতেই এ হামলা চালিয়েছে।
রামগড় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তারেক মো. হান্নান শনিবার বিকাল সাড়ে ৪টায় এ প্রতিনিধিকে জানান, গতকালের ঘটনায় থানায় মামলার প্রস’তি চলছে।