বাঁশখালীতে অভিভাবকরা ক্ষুব্ধ

উপবৃত্তির টাকা কেটে রাখছে শিউর ক্যাশ এজেন্টরা

নিজস্ব প্রতিনিধি, বাঁশখালী

বাঁশখালী উপজেলার ১৫৩টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের উপবৃত্তির আওতায় আসা প্রায় ৫০ হাজার শিক্ষার্থী উপবৃত্তির টাকা তুলতে গিয়ে শিউর ক্যাশ এজেন্টদের প্রতারণার শিকার হচ্ছে অভিভাবকরা। পুরো বাঁশখালীতে শতাধিক শিউর ক্যাশ এজেন্ট এলাকাভিত্তিক যার যার মত করে প্রতি অভিভাবকের কাছ থেকে ২০ টাকা থেকে ৭০ টাকা পর্যন্ত কেটে রাখছে। উপবৃত্তির টাকা নিয়ে শিউর ক্যাশ এজেন্টদের প্রকাশ্যে এ ভয়াবহ দুর্নীতি ও অনিয়মের কারণে অভিভাবক ও শিক্ষকমহল ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেছে।
এদিকে এজেন্টদের এই দুর্নীতি ঠেকাতে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাইকিং করা হলেও এজেন্টরা প্রকাশ্যে এই টাকা আদায় করছে। ৩জন অভিভাবকের অভিযোগের ভিত্তিতে গত ১০ সেপ্টেম্বর বাঁশখালী উপজেলা সদরে ভ্রাম্যমাণ আদালত শিউর ক্যাশ এজেন্ট বিলাশ দাশ (৪০) নামের এক ব্যক্তিকে ৫দিনের জেল ও ২০০টাকা জরিমানা করে সাজা দেন। অভিযান শুরু হলে অন্য এজেন্টরা তাদের দোকান বন্ধ করে পালিয়ে যান। সরল ইউনিয়নের মিনজিরিতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক অভিভাবক মো. আব্দুর রহিম অভিযোগ করেন, তার ৩ সন্তান স্কুলে পড়ে। শিউর ক্যাশের মাধ্যমে তাদের উপবৃত্তির টাকা ওঠানোর সময় ৭০ টাকা করে ২১০টাকা কেটে রাখা হয়েছে।
বাঁশখালী উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা রবিউল হোসেন বলেন, বাঁশখালীতে ১৫৩টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রায় ৫০ হাজার শিক্ষার্থী উপবৃত্তির আওতায় রয়েছে। পুরো বাঁশখালীতে অন্তত ১৫০ জন শিউর ক্যাশ এজেন্টের মাধ্যমে প্রায় ৩ কোটি টাকা উপবৃত্তি বিতরণ করা হচ্ছে।
স্কুলে উপস্থিতির হিসাব করে প্রতিমাসে ৫০ থেকে ১০০ টাকা করে টাকা পাচ্ছে শিক্ষার্থীরা। সেই হিসেবে ছয়মাসের টাকা একসাথে উত্তোলন করা হচ্ছে। অভিযোগ আছে, শতাধিক শিউর ক্যাশ এজেন্ট উপবৃত্তির টাকা দিতে ৫০ টাকা থেকে ৭০ টাকা পর্যন্ত কেটে রেখে দিচ্ছে। অথচ শিউর ক্যাশ এজেন্টদের ১ পয়সা কেটে নেয়ারও বিধান নেই। কারণ ওই এজেন্টরা টাকা বিতরণের জন্য কোম্পানি থেকে সয়ংক্রিয়ভাবে কমিশন পায়। টাকা কেটে নেয়ার অভিযোগ পেয়ে পুরো বাঁশখালীতে এজেন্টদের সতর্ক করার জন্য মাইকিং করা হয়েছে। তারপরও এজেন্টরা উপবৃত্তির প্রদত্ত মূল টাকা থেকে ২০ থেকে ৭০ টাকা কেটে রেখে দিচ্ছে। তা বন্ধের জন্য জরুরি পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।
বাহারছড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম অভিযোগ করে বলেন, আমার ইউনিয়নে এজেন্টরা প্রতি অভিভাবকের কাছ থেকে ২০ টাকা করে কেটে রাখছে। আমি তা বন্ধের নির্দেশ দিয়েছি।
বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মোহাম্মদ চাহেল তস্তুরী বলেন, মাইকিং করে সতর্ক করা সত্ত্বেও শিউর ক্যাশ এজেন্টরা গরিব ও অসহায় শিক্ষার্থীদের অভিভাবকের কাছ থেকে উপবৃত্তির টাকা কেটে রাখবে, তা হয় না। সামান্য টাকা পাচ্ছে, তাতেও কুদৃষ্টি। তাই একজনকে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে সাজা দেয়া হয়েছে। আদায় করা অতিরিক্ত টাকাও উঠিয়ে নেয়া হয়েছে। সবাই সর্তক না হলে পুনরায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান চালানো হবে।